প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মধ্যরাত থেকে শুরু ইলিশ ধরা, ব্যস্ততা জেলেপল্লীতে

ডেস্ক রিপোর্ট: দীর্ঘ ২২ দিন বন্ধ থাকার পর মধ্যরাতে শেষ হচ্ছে ইলিশ ধরায় নিষেধাজ্ঞা। ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুম রক্ষায় ৪ অক্টোবর থেকে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত ইলিশ ধরায় নিষেধাজ্ঞা দেয় সরকার। আজ সোমবার (২৫ অক্টোবর) রাত ১২টা ১ মিনিট থেকে ইলিশ ধরতে আর কোনো বাধা থাকবে না। সময় টিভি

এদিকে নদীতে নামতে পুরোপুরি প্রস্তুতি নিয়ে ফেলেছেন জেলারা। এখনো যারা প্রস্তুতি শেষ করতে পারেননি, তারাও শেষ মুহূর্তে ব্যস্ত সময় পার করছেন। ফলে সরব হয়ে উঠেছে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের নদীবিধৌত জেলেপল্লীগুলো।

ইলিশ মূলত সারা বছরই ডিম ছাড়ে। তবে সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর এই দুই মাসের চারটি অমাবস্যা-পূর্ণিমায় ডিম ছাড়ে বেশি। তাই অক্টোবরের মাস অর্থাৎ, বাংলা মাস আশ্বিনের দুটি অমাবস্যা-পূর্ণিমাকে কেন্দ্র করে প্রতি বছর ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়। এই সময় মা ইলিশ রক্ষা করতে ইলিশ ধরা থেকে বিরত থাকাতে বলা হয়। যাতে ইলিশগুলো নিরাপদে নদীতে এসে ডিম ছাড়তে পারে। এই ডিম রক্ষা করতে পারলে তা থেকে জাটকার জন্ম হবে। সেই জাটকা রক্ষা করা গেলে দেশে বড় আকারের ইলিশের উৎপাদন বাড়বে।

এই ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার পর আবার জাটকা ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হবে। দুই ধাপের এই নিষেধাজ্ঞার কারণে দেশে ইলিশ উৎপাদন বেড়েছে, ওজন-আকারও বেড়েছে ইলিশের।

মৎস্য বিভাগ জানিয়েছে, এ বছর মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযানের অংশ হিসেবে ৪ অক্টোবর থেকে ২৩ অক্টোবর পর্যন্ত ১ হাজার ৮৯২টি মোবাইল কোর্ট ও ১৫ হাজার ৩৮৮টি অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে এবং ৮৮৪ লাখ মিটার অবৈধ জাল আটক করা হয়। বাংলাদেশে ২০০৩-০৪ সাল থেকেই জাটকা রক্ষার কর্মসূচি শুরু করা হয়। তখন থেকেই ধীরে ধীরে ইলিশের উৎপাদন বাড়ছিল। বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের তথ্যানুযায়ী দেশের মোট মাছ উৎপাদনের প্রায় ১২ শতাংশ আসে ইলিশ থেকে।

মৎস্যবিষয়ক আন্তর্জাতিক সংস্থা ওয়ার্ল্ড ফিশের হিসাবে, বিশ্বের মোট ইলিশের ৮৬ শতাংশ এখন বাংলাদেশে আহরিত হচ্ছে। বাংলাদেশের পরই ইলিশের উৎপাদনে দ্বিতীয় স্থানে আছে ভারত। ৫ বছর আগে দেশটিতে বিশ্বের প্রায় ২৫ শতাংশ ইলিশ উৎপাদিত হতো।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত