প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] গত এক বছরে সবচেয়ে দুর্বল অবস্থায় চীনের অর্থনীতি

লিহান লিমা: [২] ২০২১ সালের তৃতীয় ত্রৈমাসিকে চীনের অর্থনীতি মাত্র ৪.৯ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে, যা গত এক বছরের মধ্যে সবচেয়ে দুর্বল হার। বড় ধরণের জ্বালানি সংকট, সরবরাহ শৃঙ্খল ব্যবস্থা বিঘ্ন, কোভিড মহামারী এবং টাল-মাটাল রিয়েল এস্টেট খাত ঋণ সংকটকে আরো গভীর করে তুলেছে।

[৩] এপ্রিল-জুন মাসে ৭.৯ শতাংশ প্রবৃদ্ধি থেকে অর্থনৈতিক বিশ্লেষকরা আশা করেছিলেন এবার মোট দেশজ উৎপাদন হবে ৫.২ শতাংশ। প্রত্যাশিত ৪.৫ শতাংশ না হয়ে সেপ্টেম্বরে শিল্প খাতে উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে ৩.১ শতাংশ ।

[৪] চীনের ন্যাশনাল ব্যুরো অব স্ট্যাটিস্টিক্সের তথ্য থেকে জানান যায়, গত কয়েক মাস ধরে চীনের অর্থনীতি অনেক চ্যালেঞ্জের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। দেশটি জ্বালানি সংকটের মধ্যে থাকায় কারখানায় বিদ্যুৎ উৎপাদন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে এবং কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। কয়লার দাম রেকর্ড উচ্চতায় পৌঁছেছে। চাহিদা এবং সরবরাহ বিলম্বে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন চীনের ক্ষুদ্র নির্মাতারা। তারা উৎপাদন কমাতে বা অর্ডার ছাড়তে বাধ্য হচ্ছেন।

[৫] সোমবারের পাওয়া তথ্যে দেখা গিয়েছে, ভবিষ্যত ব্যবসায়িক প্রকল্পগুলোতে অর্থ বিনিয়োগে আগ্রহ হ্রাস পেয়েছে। রিয়েল এটেস্টে বিনিয়োগ প্রত্যাশার চেয়ে দুর্বল হয়ে পড়েছে। প্রত্যাশিত ৭.৯ এর চেয়ে এটি এক বছর আগের তুলনায় ৭.৩ শতাংশ বেড়েছে। জেপি মরগান অ্যাসেট ম্যানেজম্যান্টের গ্লোবাল মার্কেট স্ট্র্যাটেজিস্ট চাওপিয় ঝু বলেন, ‘কঠোর ঋণের করণে বিনিয়োগ কার্যক্রম বন্ধ হয়ে গিয়েছে। ঝু অনুমান করছেন, স্থায়ী সম্পদে বিনিয়োগ এক বছর আগের তুলনায় সেপ্টেম্বরে ২.৫ শথাংশ হ্রাস পেয়েছে। প্রাথমিকভাবে রিয়েল এস্টেটে বিনিয়োগ ৩.৫ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। মুডির অনুমান অনুসারে, রিয়েল এস্টেট এবং সংশ্লিষ্ট শিল্পগুলো চীনের জিডিপির প্রায় এক চতুর্থাংশ। গত ১৮ মাসে বেইজিং ঋণের ওপর ডেভেলপারদের নির্ভরতা কমাতে প্রচেষ্টা বাড়িয়েছে।

[৬] ম্যান্ডারিনে সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় পরিসংখ্যার ব্যুরোর মুখপাত্র ফু লিংহুই বলেন, ‘তৃতীয় ত্রৈমাসিকে প্রবেশের পর থেকে দেশীয় ও বৈদেশিক ঝুঁকি এবং চ্যালেঞ্জ বেড়েছে।’ যদিও চীনের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গর্ভনর বলেছেন তার দেশ ‘ভালো করেছে’ এবং আর্থিক ঝুঁকিগুলো নিয়ন্ত্রণযোগ্য। তবে স্বাধীন অর্থনীতিবিদও গভীর মন্দার সতর্কবার্তা দিয়েছেন। তারা আরো বলেছেন, আগামী বছর থেকে এক দশকের বেশি সময় ধরে দেশটির দুর্বল প্রবৃদ্ধি হবে।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত