প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে আরও ২০১ জন

শিমুল মাহমুদ: [২] নতুন আক্রান্তদের মধ্যে ১৪০ জন রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে এবং ৬১ জন ঢাকার বাইরের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তবে এই সময়ে নতুন করে কেউ ডেঙ্গুতে মারা যায়নি। আর আক্রান্তদের অধিকাংশই রাজধানীর বাসিন্দা। রোববার বিকেলে সারা দেশের পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের নিয়মিত ডেঙ্গুবিষয়ক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

[৩] প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে সর্বমোট ভর্তি থাকা রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮৪৪ জনে। ঢাকার ৪৬টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি আছেন ৬৫১ জন এবং অন্যান্য বিভাগের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি আছেন ১৯৩ জন।

[৪] এ বছরের ১ জানুয়ারি থেকে আজ (১৭ অক্টোবর) পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্ত হাসপাতালে সর্বমোট রোগী ভর্তি হয়েছেন ২১ হাজার ৪০২ জন। তাদের মধ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন ২০ হাজার ৪৭৫ জন রোগী। ডেঙ্গুতে এ পর্যন্ত ৮৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।

[৫] রোববার স্বাস্থ্য অধিদফরের নিয়মিত করোনা বিষয়ক স্বাস্থ্য বুলেটিনে অধিদফতরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম বলেন, এডিসবাহী মশা সাধারণত দিনের বেলায় কামড় দেয়। সেজন্য দিনে ঘুমালেও মশারি টানিয়ে ঘুমাতে হবে। বর্তমানের অনেক কারণেই জ্বর হতে পারে। হতে পারে সেটি করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) বা ডেঙ্গু। তাই যদি জ্বর আসে কোনো ধরনের অবহেলা করবেন না।

[৬] যেকোনো ব্যক্তি জ্বরে আক্রান্ত হলে করোনার পাশাপাশি ডেঙ্গু পরীক্ষার নির্দেশ দিয়ে তিনি আরও বলেন, বর্ষাকাল শুরু হওয়ার পর দেশে মশাবাহিত রোগটির প্রাদুর্ভাব বাড়ার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। এ অবস্থায় জ্বর নিয়ে কোনো রোগী হাসপাতালে এলেই তাকে করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার পাশাপাশি ডেঙ্গু পরীক্ষাও করতে হবে। এ বিষয়ে দেশের সব সরকারি হাসপাতালের পরিচালক, সিভিল সার্জন, তত্ত্বাবধায়ক, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের কাছে নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে।

[৭] নাজমুল ইসলাম আরও বলেন, সরকারের তরফ থেকে করোনাভাইরাস ও ডেঙ্গু, দুটো পরীক্ষাই বিনামূল্যে করা হচ্ছে। তাই সাধারণ মানুষের কাছেও আমাদের নির্দেশনা হলো; জ্বর হলেই এ দুটো পরীক্ষা অবশ্যই করাবেন।

সর্বাধিক পঠিত