প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কাকন রেজা: কুমিল্লার ঘটনা ও ঘটনার কার্য-কারণ

কাকন রেজা : ‘কার্য-কারণ’ ছাড়া কিছুই ঘটে না। আর সেই ‘কার্য-কারণ’ কী, তা অনেকেই বোঝেন। কিন্তু তারপরেও ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটে। মাটির প্রতিমা ভাঙা হয়, আগুন জ্বলে, মারা যায় মানুষ। কখনো মরে অপরপক্ষের হাতে, কখনো পুলিশের গুলিতে। এই যেন নিয়তি হয়ে দাঁড়িয়েছে। অবশ্য নিয়তি বললে ভুল বলা হবে। নিয়তি হলো অজানা বিষয়, যা ঘটার পূর্বমুহূর্ত পর্যন্ত আমাদের ধারণায় থাকে না। আর ‘কার্য-কারণ’ সংশ্লিষ্ট যা, তা পূর্ব পরিকল্পিত।

হ্যাঁ, কুমিল্লার ঘটনা নিয়ে বলছি। এটা খুব একটা বিস্মিত হবার মতন ঘটনা নয়। এমন ঘটনা প্রায়ই ঘটে। মূর্তি ভাঙা তার মধ্যে অন্যতম। সঙ্গে কোরআন বা মুসলমানদের জন্য অবমাননাকর এমন ঘটনাও রয়েছে। আর এসব ঘটনার পরপরই একটা শ্রেণি ‘আহা-উহু’ ররে তুলকালাম করে তোলে। যার ফলে ঘটনা ক্ষুদ্র হলেও তার পরিসর আর ক্ষুদ্র থাকে না। দুটি পক্ষ যেন তৈরিই থাকে। একটি ইজ্জত রক্ষায় নেমে পড়েন ভাঙচুরে। আরেকপক্ষ ভাঙচুরকে পুঁজি করে দেশটা যে জঙ্গিতে ভরে গেছে তা প্রমাণে ব্যস্ত হয়ে ওঠেন। ফলাফল যা হবার তাই হয়। মাঝখান থেকে ‘নেপোয় মারে দই’। সুতরাং এই দুইপক্ষ হলো নেপো’র দুই হাত।
মরহুম আতাউস সামাদ একদিন বলছিলেন, ‘যে খবর করলে উত্তেজনা আরও বেশি ছড়িয়ে পড়তে পারে, সম্পদ ও প্রাণের ক্ষতি হতে পারে, সে খবর প্রচারের সময় খুবই সতর্ক হওয়া উচিত।’ এটা খুব সত্য এবং একাডেমিক কথা। কিন্তু আমাদের কেউ কেউ ইচ্ছে করেই অসতর্ক হন। আর সেই ইচ্ছেটার পেছনে রয়েছে রাজনীতি। আগেই বলেছি, সেই রাজনীতির কথা তথা ‘কার্য-কারণ’ প্রায় সবাই বোঝেন। তবু চুপ থাকেন। কেউ থাকেন ভয়ে, কেউ স্বার্থপরতায়, কেউ ধান্ধাবাজিতে।
লেখক : সাংবাদিক ও কলামিস্ট।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত