প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সাকিব এ চৌধুরী: শুধু ড. পিয়াস করিমকেই নয়, মনে রাখতে হবে নষ্ট বামেদের এবং  চেতনা ব্যবসায়ীদেরও!

সাকিব এ চৌধুরী: শুধু দেশের টানেই দীর্ঘদিন পর দেশে ফিরেছিলেন। দেশের অসভ্য রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে বিরক্ত হয়েই মনে হয় বলেছিলেন, ‘দেশ বদলায়নি জানলে হয়তোবা দেশে ফিরতেন না’। না ফিরলেও হয়তোবা দেশের তেমন কোনো ক্ষতি হতো না, কিন্তু খুব সম্ভবত তিনি এতে আত্মতৃপ্তি পেতেন না। একজন পিয়াস করিম দেশে ফিরে আসায় বিন্দু পরিমাণে হলেও কথা বলা মানুষগুলো পেয়েছিলো সাহস, কেউবা পেয়েছিলো একজন নির্ভীক সহযোদ্ধাকে। কেউ অন্তত মুখের ওপরই বাচ-বিচার না করেই বলে দিচ্ছে উচিত কথাখানি এই ভেবে দেশের গণতন্ত্রকামী মানুষগুলো পেয়েছিলো আশার আলো। ড. করিমের কথায় যে সবাই আলোই দেখবে তা নয়। তাইতো তার গঠনমূলক সমলোচনার মধ্যে একশ্রেণির নষ্ট/ভ বামেরা এবং চেতনার ব্যবসায়ীরা দেখতে পেয়েছিলেন অন্ধকার, পেয়েছিলেন ভয়। ভয় না পেলে কী আর তারা একজন পিয়াস করিমের কণ্ঠকে থামিয়ে দিতে তার ওপর বোমা এবং গুলি নিক্ষেপ করে। এসব সন্ত্রাসী কর্মকা করে যখন তাকে থামানো গেলো না তখন তাদের আশ্রয় নিতে হয় তথ্য সন্ত্রাসের।

মৃত মানুষটার প্রতি অপচেষ্টা চালালো স্বাধীনতাবিরোধী বানাতে। কিন্তু প্রকৃতির প্রতিশোধ বলেও তো কিছু আছে। বিবেকের তাড়নায় সেই অপপ্রচারের দাঁতভাঙ্গা জবাবটা আসলো তাদেরই স্বগোত্রীর কাছ থেকে। বেরিয়ে এলো স্বাধীনতায় তার এবং তার পরিবারের পজেটিভ ভ‚মিকার কথা। তাদের লজ্জাও করে না নিজেদের পূর্বপূরুষদের নিয়ে মিথ্যা অপবাদ দিতে। যাই হোক সৃষ্টিকর্তা যাকে সম্মানিত করবেন বলে ঠিক করে রেখেছেন তাকে মৃত্যুর পরে শহীদ মিনারে রাখা হলো কিনা তাতে কোনো প্রভাব পড়ে না এবং পড়বেও না। অগণিত শহীদের রক্ত না শুকাতেই যখন বাংলাদেশ তার মাটিতে ভুট্টুকে বহন করতে পেরেছে তখন সাচ্চা দেশপ্রেমিক হয়েও ড. পিয়াস করিমকে সেই বাংলাদেশের শহীদ মিনার বহন করতে পারবে না বলে এই তত্তে¡র জন্ম যারা দিয়েছিলো এবং এতে যারা সায় দিয়েছে তাদের এই কর্মকাÐ মনে রাখতে হবে আমাদের। Sakib A Chowdhury–র ফেসবুক ওয়ালে লেখাটি পড়ুন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত