প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] আগামী ৫ বছরে দেশে ইলিশ উৎপাদন বাড়বে ১৬ শতাংশ

মতিনুজ্জামান মিটু: [২] দেশে ইলিশের উৎপাদন বাড়াতে মৎস্য অধিদপ্তর ২০২০ সালের জুলাই মাস থেকে ইলিশ সম্পদ উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। বাংলাদেশ সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে বাস্তবায়ন করা এই প্রকল্পটি ২০২৪ সালের জুন মাসে শেষ হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

[৩] প্রকল্পটির পরিচালক মো. জিয়া হায়দার চৌধুরী বলেন, প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট ২৪৬ কোটি ২৭ লাখ ৫৩ হাজার টাকা খরচ হবে। এ পর্যন্ত প্রকল্পের শতকরা ২০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই প্রকল্পের সব কাজ শেষ হবে।

[৪] প্রকল্পের পটভূমি তুলে ধরে তিনি বলেন, ইলিশ আমাদের জাতীয় মাছ এবং নবায়নযোগ্য প্রাকৃতিক সম্পদ। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, রপ্তানি আয় ও আমিষ সরবরাহে ইলিশের গুরুত্ব অপরিসীম। দেশের মোট মৎস্য উৎপাদনে ইলিশের অবদান সর্বোচ্চ (প্রায় ১১ ভাগ) এবং জিডিপিতে অবদান ১শতাংশ। উপকূলীয় মৎস্যজীবীদের জীবিকার প্রধান উৎস হচ্ছে ইলিশ।

[৫] প্রায় ৫ লাখ লোক ইলিশ আহরণে সরাসরি নিয়োজিত এবং ২০ থেকে ২৫ লাখ লোক প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে জড়িত। বিশ্বে ইলিশ আহরণকারী ১১টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান এখন শীর্ষে। সারা বিশ্বের মোট উৎপাদিত ইলিশের প্রায় ৮০ শতাংশ আহরিত হয় এ দেশের নদ-নদী থেকে।

[৬] এক সময় দেশের প্রায় সব নদ-নদী এবং নদীগুলোর শাখা ও উপনদীতেও প্রচুর পরিমান ইলিশ মাছ পাওয়া যেত। বন্যা বা প্লাবনের বছরে নদীর সঙ্গে সংযোগ আছে এমন সব বিল ও হাওরেও ইলিশ মাছ কখনও কখনও পাওয়া যেত। গুরুত্বপূর্ণ এ মৎস্য সম্পদ আশির দশকে সংকটে পড়ে। আশির দশকের আগে মোট মৎস্য উৎপাদনের ২০শতাংশ ছিল ইলিশের অবদান।

[৭] ২০০২-২০০৩ সালে ইলিশের অবদান দাঁড়ায় জাতীয় উৎপাদনের মাত্র ৮শতাংশ (১.৯৯ টন)। ইলিশ উৎপাদনের গতিধারায় লক্ষ্য করা যায় যে, বিগত ২০০০-২০০১ সালে ইলিশের উৎপাদন ২.২৯ টন থাকলেও ২০০১-০২ ও ২০০২-০৩ সালে তা ক্রমান্বয়ে কমে যথাক্রমে ২.২০ টন এবং ১.৯৯ টনে পৌঁছে। প্রাকৃতিক ও মনুষ্যসৃষ্ট উভয় কারণেই ইলিশের উৎপাদন কমেছিলো।

[৮] এর অন্যতম কারণ হলো অভ্যন্তরীণ জলাশয়ের পরিবেশগত পরিবর্তনের ফলে বিশেষ করে বিভিন্ন নদ-নদীতে অপরিকল্পিতভাবে বাঁধ ও কালভার্ট বা ব্রিজ নির্মাণের কারণে এবং উজান হতে পরিবাহিত পলি জমার জন্য পানি প্রবাহ ও নদ-নদীর নাব্য কমছে এবং জলজ পরিবেশ দূষিত হয়ে পড়ছে। ফলে ইলিশ মাছের পরিভ্রমণ পথ, প্রজননক্ষেত্র, বিচরণ ও চারণক্ষেত্র (ফিডিং এবং নার্সারি গ্রাউন্ড) দিন দিন পরিবর্তিত ও বিনষ্ট হচ্ছে এবং অভ্যন্তরীণ জলাশয়ে ইলিশ মাছের উৎপাদন কমছে।

[৯] এছাড়াও বর্তমানে ক্রমাগত বর্ধিত জনসংখ্যার চাপ, কর্মসংস্থানের অভাব, অতি কার্যকরী একতন্তু বিশিষ্ট ফাঁস জাল এবং মাছ আহরণের উন্নত পদ্ধতির প্রবর্তন ও নৌকা যান্ত্রিকীকরণের ফলে সামুদ্রিক জলাশয়ে ইলিশ মাছের আহরণ মাত্রা বেড়েছে।

[১০] দেশের ইলিশ সম্পদ ধ্বংসের এবং উৎপাদন কমে যাওয়ার পিছনে যে কারণগুলো রয়েছে তার মধ্যে অন্যতম কারণটি হচ্ছে নির্বিচারে ক্ষতিকর জাল ও সরঞ্জাম দিয়ে জাটকা ও মা ইলিশ আহরণ। ইলিশের জন্য খ্যাত এক সময়ের পদ্মা, ধলেশ্বরী, গড়াই, চিত্রা, মধুমতি ইত্যাদি নদীতে বর্তমানে শুষ্ক মৌসুমে ইলিশ মাছ প্রায় পাওয়া যায় না বলা যেতে পারে।

[১১] এসব কারণের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো নির্বিচারে অবৈধ কারেন্ট জাল, বেহুন্দি জাল, বেড় জাল, চর ঘড়া জাল, মশারী জাল, পাইজাল ইত্যাদির ব্যবহার। যদি এই ক্ষতিকর অবৈধ জাল ও সরঞ্জাম নির্মূল না করা যায় তাহলে ইলিশের কাংখিত উৎপাদন বাধাগ্রস্ত হবে।

[১২] তাই প্রকল্পের অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য নির্ধারণ করা হয়েছে জাটকা ও মা ইলিশ সংরক্ষণের মাধ্যমে উৎপাদন বৃদ্ধি করা। এই উদ্দেশ্য অর্জনের জন্য ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাসহ নদী, মাছ বাজার, মাছ ঘাট, হাট, আড়ৎ ইত্যাদিতে অভিযান পরিচালনা করা অপরিহার্য।

[১৩] ইলিশ ও জাটকাসহ অন্যান্য ছোট মাছ, পোনা মাছ নির্বিচারে ধ্বংসের অপতৎপরতায় কেবল ইলিশ সম্পদ বিনষ্ট হচ্ছে তা নয়, উপকূলীয় ইকোসিস্টেম প্রতিকূল অবস্থায় পড়েছে এবং ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। ইলিশ জেলেদের এক বিরাট অংশ বেকার হয়ে পড়ছে, তাদের পরিবার পরিচালনা কঠিন হচ্ছে। ইলিশ সম্পদ কমার কারণে এর আহরণ কমে যাওয়ায় জীবন ধারণ করাই কঠিন হয়ে পড়ছে।

[১৪] মৎস্যজীবী সম্প্রদায়ের আবাসস্থল দূরে ও দূর্গম হওয়ায় সরকারের সেবামূলক কার্যক্রম এবং সম্প্রসারণ কর্মকান্ডে তাদের অংশগ্রহণ খুবই সীমিত। এছাড়াও এ অঞ্চলের জনসাধারণকে প্রায় প্রতিবছর প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলা করতে হয় অনেক জীবন ও সম্পদের বিনিময়ে।

[১৫] প্রাকৃতিক ঝুঁকি হ্রাসকরণ এবং জীবনের নিরাপত্তা বিধান তথা আর্থ সামাজিক অবস্থার উন্নয়নে তাদের যৌথ উদ্যোগ বা প্রচেষ্টা খুবই দরকার। এভাবে ইলিশ সম্পদ স্থায়িত্বশীল হবে এবং উপকূলীয় মৎস্যজীবী সম্প্রদায়ের অধিক ক্ষমতায়ন ঘটবে। জাতীয় মাছ ইলিশ উৎপাদনের পরিমাণ ও প্রাপ্যতা বাড়ানোর পাশাপাশি স্থায়িত্বশীল আহরণ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে দেশের ইলিশসমৃদ্ধ ২৯ জেলার ১৩৪টি উপকূলীয় উপজেলায় ‘ইলিশ সম্পদ উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা’ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

[১৬] সমাজে জেলেদের স্থান দারিদ্র্যস্তরের অনেক নীচে। প্রতিদিন তিনবেলা খাবার জোগাড় করা তাদের জন্য কষ্টসাধ্য। আর যখন জাটকা ও মা ইলিশ রক্ষার সময় মাছ ধরা বন্ধ রাখা হয় তখন তাদের কষ্ট চরম শিখরে পৌঁছে। এই দারিদ্র্য নিরসনে প্রকল্পটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

[১৭] প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে উপকূলীয় এলাকার ৩০ হাজার জেলে পরিবার স্বাবলম্বী হবে এবং জীবিকা নির্বাহের জন্য বিকল্প অয়ের পথ খুঁজে পাবে যা তাদের দারিদ্র্য কমাবে। সেই সঙ্গে জেলেসহ অন্যান্য পেশাজীবী জনসাধারণের প্রায় ৪ লাখ সুফলভোগী ইলিশ ও জাটকা রক্ষা কার্যক্রমের সুফল সম্পর্কে সচেতন হবে।

[১৮] অর্থাৎ প্রকল্প হতে দরিদ্র জেলেরা প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ উভয় প্রকারে উপকৃত হবে। ফলে প্রকল্পটি ইলিশের উৎপাদন বাড়ানোর মাধ্যমে আমিষের চাহিদা পূরণে সহায়তা করবে।

[১৯] প্রকল্পের সুনির্দিষ্ট উদ্দেশ্য সম্পর্কে প্রকল্প পরিচালক মো. জিয়া হায়দার চৌধুরী বলেন, মা ইলিশ ও জাটকা সংরক্ষণে মৎস্য সংরক্ষণ আইন বাস্তবায়ন এবং অভয়াশ্রম ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধিকরণ; দক্ষতা বৃদ্ধিপূর্বক জাটকা ও মা ইলিশ আহরণকারী ৩০ হাজার জেলে পরিবারের জন্য বিকল্প কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি এবং জেলেদের ১০ হাজার বৈধ জাল বিতরণ ও ব্যাপক প্রচার-প্রচারণার মাধ্যমে মা ইলিশ ও জাটকা সংরক্ষণে জনসচেতনতা সৃষ্টি।

[২০] প্রকল্পের লক্ষ্য তুলে ধরে তিনি বলেন, মোট ১০ হাজার জেলে পরিবারকে বৈধ জাল সরবরাহ এবং ৩০ হাজার ইলিশ ও জাটকা জেলে পরিবারকে তাদের চাহিদা অনুযায়ী বিকল্প কর্মসংস্থানের উপকরণ বিতরণ ও প্রশিক্ষণ দেওয়ার মাধ্যমে দক্ষতা উন্নয়নের মাধ্যমে দারিদ্র্য কমানো হবে।

[২১] দেশের ২৯ জেলার ১৩৪ উপজেলায় প্রকল্পের এলাকা বিস্তার লাভ করায় পদ্মাসহ অন্যান্য নদীতে ইলিশের পরিমাণ বাড়বে। জেলে, মৎস্যজীবী, বিক্রেতা, আড়তদার, মাছ পরিবহনকারী অর্থাৎ ইলিশ আহরণ ও বাজারজাতকরণে সম্পৃক্ত সবাই প্রকল্পের সুবিধাভোগী হবে।

[২২] প্রকল্পের ফলাফল প্রসঙ্গে তিনি জানান, মা ইলিশ ও জাটকা সংরক্ষণে মৎস্য সংরক্ষণ আইন বাস্তবায়ন এবং ইলিশ জেলেদের বিকল্প কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টির মাধ্যমে ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে এবং পদ্মা নদীসহ অন্যান্য নদীতেও ইলিশের প্রাপ্যতা বাড়বে।

[২৩] জাটকা আহরণকারী জেলে পরিবারের জন্য বিকল্প কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা হবে। জাটকা ও ইলিশ জেলেদের মাঝে গণসচেতনতা সৃষ্টি হবে। ইলিশ অভয়াশ্রম ব্যবস্থাপনায় সমাজভিত্তিক ব্যবস্থাপনা বিষয়ক কারিগরি জ্ঞান সম্পন্ন দক্ষ জনবল গড়ে উঠবে এবং দেশে মাছের ক্রমবর্ধমান চাহিদা পূরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে এবং জাটকা ও ইলিশ জেলেদের জীবনমান উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে পারবে।

[২৪] মা ইলিশ ও জাটকা সংরক্ষণে প্রয়োজন এক হাজার ৭২টি জনসচেতনতা সভা ও ৬০টি কর্মশালা আয়োজন; জাটকা ও মা ইলিশ সংরক্ষণে ১৬ হাজার ৬১৬টি অভিযান বা মোবাইল কোর্ট পরিচালনা; মা ইলিশ সংরক্ষণে ১ হাজার ২৭৮টি সম্মিলিত বিশেষ অভিযান পরিচালনা; প্রকল্প মেয়াদে ৬টি জেলার ২৩টি উপজেলার ১৫৪ টি ইউনিয়ন সংলগ্ন ছয়টি ইলিশ অভয়াশ্রম পরিচালনা; ৩০ হাজার জাটকা জেলে পরিবারের বিকল্প কর্মসংস্থান সৃষ্টি; জেলে পরিবারের বিকল্প কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে ১৮ হাজার জন জেলেকে প্রশিক্ষণ দেওয়া; প্রকল্প মেয়াদে প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন এলাকার ৪ লাখ জেলেসহ অন্যান্য পেশাজীবী জনসাধারণের মাঝে জাটকা সংরক্ষণের গুরত্ব ও প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি। সম্পাদনা : ভিকটর রোজারিও

 

সর্বশেষ