প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ডেমরায় অপহরণের পর গৃবধধূূ খুনের ঘটনায় গ্রেপ্তার ১

মো.বশির উদ্দিন: [২] রাজধানীর ডেমরায় অলোচিত আঞ্জুমান আরা মিতু (২৮) নামে এক গৃহবধূ তার স্বামীর মাধ্যমে অপহরণের পর খুনের ঘটনায় জড়িত মো. কবির (৩৬) নামে আরও একজনকে গ্রেফতার করেছে ডেমরা থানা পুলিশ। এ সময় খুনের কাজে ব্যবহৃত তার সঙ্গে থাকা একটি হাইএস মাইক্রোবাসটি জব্দ করে পুলিশ। বুধবার বেলা ১১ টায় তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

[৩] মঙ্গলবার দিবাগত রাতে ঢাকার কদমদলী থানার পলাশপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি ওই হাইএস গাড়ীর চালক হলেও এ খুনের ঘটনায় সঙ্গে সরাসরি জড়িত বলে জানিয়েছেন ডেমরা থানার এসআই মো. ইকবাল। তিনি বরগুনার সদর থানার পাতাবাটা গ্রামের মো. ইদিস্র সরকারের ছেলে।

[৪] এ ঘটনায় মৃতের বাবা গত ২০ সেপ্টেম্বর রাতে মো. নুরুল অমিন হাওলাদার ডেমরা থানায় অভিযুক্ত ৪ জনসহ অজ্ঞাত ২/৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। অভিযুক্ত আসামিরা হলেন- মৃতের স্বামী ডেমরার পূর্ব হাজী নগর মহিলা মাদ্রাসা সংলগ্ন কালাম ভিলার ভাড়াটিয়া ও ঝালকাঠির সদর থানার বংকুড়ার গ্রামের মো. আব্দুস সালামের ছেলে মো. কামরুল হাওলাদার (৩৫),তার সহযোগী আপন ভাই ফোরকান (২২), একই বাড়ীর ভাড়াটিয়া শহিদুল (৩০) ও অজ্ঞাত ঠিকানার সহযোগী ইব্রাহিমসহ (৪৫) অজ্ঞাত ২/৩ জন। এদিকে মামলার পর ওই রাতেই পুলিশ মৃতের স্বামী কামরুল ও তার ভাই ফোরকানকে গ্রেফতার করে মঙ্গলবার আদালতে পাঠায়।

[৫] জানা যায়, এদিকে গত ১৬ সেপ্টেম্বর দুপুরে ডেমরার স্টাফ কোয়ার্টার বাসস্ট্যান্ড থেকে অপহরণ হন মিতু। ওই দিন মিতুর খোঁজ খবর না পেয়ে তার বাবা গত ১৭ সেপ্টেম্বর ডেমরা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। পরবর্তীতে গত ১৭ সেপ্টেম্বর সকালে মৃতের লাশ নারায়ণগঞ্জের সোরাগাঁও থানার তাজমহল রোড এলাকার রাস্তার পাশে জমি থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। এদিকে অপহণের পরপরই মাইক্রোবাসে মিতুকে কৌশলে হত্যা করা হয়।

[৬] বিষয়টি নিশ্চিত করে ডেমরা থানার ওসি খন্দকার নাসির উদ্দিন বলেন মিতু হত্যার বিষয়টি উক্ত গ্রেফতারকৃতরাও স্বীকার করেছেন আদালতে।

[৭] উল্লেখ্য: গত ১২ বছর আগে গ্রেফতার কামরুলের সঙ্গে মিতুর বিয়ে হয়। চাকুরীর সুবাদে তারা ডেমরার হাজীনগরে ভাড়ায় চলে আসেন গত ৭/৮ বছর আগে। পরবর্তীতে কামরুল গত ৩/৪ বছর ধরে ক্যামিকেলের ব্যবসা করে আসছেন। তিনি পড়াশোনা কম জানেন বলে ওই ব্যবসার হিসাব রাখতেন মিতু। এদিকে ব্যবসা শুরুর পরই কামরুল বিভিন্ন মেয়েদের সাথে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তুললে ওই সংসারে অশান্তি শুরু হয়। তখন কামরুল পথের কাটা মিতুকে তার রাস্তা থেকে সরাতে অপহরণের পর হত্যার পরিকল্পনা করেন।

সর্বশেষ