প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] খুলনা বিধবা দলবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেফতার ৪

শরীফা খাতুন : [২] পাইকগাছা উপজেলায় এক বিধবাকে (৩৫) গণধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত চারজনকেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পুলিশের তড়িৎ পদক্ষেপে সকল আসামি গ্রেফতার হওয়ায় জনমনে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

[৩] পাইকগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কমকতা (ওসি) মো. এজাজ শফী জানান, গত ২৮ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাত ২ টার দিকে উপজেলার কালুয়া (দক্ষিণপাড়া) গ্রামের মৃত নিরোধ ঢালীর স্ত্রীকে মারপিট ও ভয়ভীতি দেখিয়ে তারই বাড়িতে গণধর্ষণ করে।৩ জন বিধবা ওই নারীকে ধর্ষণ করে।

[৪] এসময় তারা বাড়ি থেকে মোবাইল ফোন, নগদ অর্থসহ ১ লাখ ৪৮ হাজার টাকার মালামাল নিয়ে যায়। পরদিন ভিকটিম অজ্ঞাত চারজনকে আসামি করে পাইকগাছা থানায় মামলা করেন, মামলা নং ২৬। পুলিশ তাকে উন্নত চিকিৎসা ও পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। পরীক্ষায় গণধর্ষণের প্রমান পাওয়া গেছে।

[৫] জেলা পুলিশ সুপার মো. মাহবুব হাসান এর নির্দেশনা ও বিশেষ ছক এবং সার্কেল এএসপি সাইফুল ইসলামের তত্বাবধায়নে পাইকগাছা থানার ওসি মো. এজাজ শফী ঘটনার গুরুত্ব বিবেচনায় নিজেই মামলাটির দায়িত্ব নেন। থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ও এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মো. জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে এসআই তাকবীর হোসাইন, এসআই অভিজিত বিশ্বাস, এসআই সুকান্ত কর্মকার, কং মাইনুল ও কং তৌফিককে নিয়ে একটি টিম গঠন করা হয়। আধুনিক প্রযুক্তি ও কৌশলের সহায়তায় মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে বুধবার সকাল ১০টা পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে শেখ জিয়াদ আলীর ছেলে শেখ অহিদুল ইসলাম ওরফে অহিদ (২৮) ও মৃত ইউসুফ ঢালীর ছেলে ফেরদৌস ঢালী (৫১) এবং পার্শ্ববর্তী কয়রা উপজেলায় অভিযান চালিয়ে মৃত অহিদ আলীর ছেলে রাকিবুল ইসলাম ওরফে ওরাকা (২৮), শেখ খলিলুর রহমানের ছেলে শেখ মোনায়েম হোসেনকে (২৪) গ্রেফতার করা হয়।

[৬] ওসি এজাজ শফী আরো জানান, গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে পাইকগাছা থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। তারা আন্ত:জেলা ডাকাত দলের সদস্য। পুলিশের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে তারা গণধর্ষণ ও ডাকাতির কথা স্বীকার করেছে। শেখ অহিদুল ইসলামের স্বীকারোক্তিতে কয়রায় ভাগবা খাল থেকে ভোরে রূপসী ঢালীর লুন্ঠিত মোবাইল ফোনটি উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার তারা পাইকগাছার বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট পলাশ কুমার আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীর দেওয়ার জন্য পাঠানো হয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের সহযোগীদের ধরতে পুলিশের অভিযান চলছে।

[৭] এদিকে, সাধারণ মানুষের মাঝে গণধর্ষণের ঘটনায় আতংকের সৃষ্টি হয়েছিল। আসামিদের গ্রেফতারের পর এলাকায় স্বস্তি ফিরে এসেছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত