প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অনুমোদন ৪ হাজার ৬০০ টন, ভারতে রপ্তানি হলো চার ভাগের এক ভাগ ইলিশ

নিউজ ডেস্ক: ভারতে ইলিশ রফতানিতে সরকারের বিশেষ অনুমোদন পেয়েছিল দেশের ১১৫টি প্রতিষ্ঠান। এ প্রতিষ্ঠানগুলোকে সর্বোচ্চ ৪ হাজার ৬০০ টন ইলিশ রফতানির অনুমতি দেয়া হয়। প্রতি কেজি ইলিশের দাম ধরা হয়েছিল ১০ ডলার। গতকাল শেষ হয়েছে মাছ রফতানির সময়। এর মধ্যে ৫১টি প্রতিষ্ঠান ইলিশ রফতানি করেছে মাত্র ১ হাজার ১০৮ টন। শেষ দিন ১৫০ টন মাছ গেছে ভারতে। রফতানিকারক প্রতিষ্ঠানগুলো বলছে, সাগর থেকে মাছ কম ধরা পড়ছে। আবার দেশের বাজারে দাম বেশি হলেও রফতানি মূল্য কম। এছাড়া আজ থেকে ২২ দিনের জন্য ইলিশ ধরায় নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হচ্ছে। তাই এ সময়ে আর ইলিশ রফতানি করা যাবে না। যে কারণে এবার ভারতে ইলিশ রফতানিতে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা সম্ভব হয়নি। বণিক বার্তা

গত ২২ সেপ্টেম্বর বেনাপোল দিয়ে প্রথম চালানে চারটি ট্রাকে ২৩ টন ইলিশ ভারতে রফতানি হয়েছিল। ইলিশ রফতানিকারক ঢাকার ইউনিয়ন ভেনচারসহ দুটি প্রতিষ্ঠান। আমদানিকারক ভারতের সিদ্ধেশ্বরী ইন্ডিয়া। পণ্য চালানটি বন্দর থেকে ছাড় করাতে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দাখিল করে সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট বিশ্বাস এন্টারপ্রাইজ।

বেনাপোল মৎস্য পরিদর্শন ও মান নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান বলেন, হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় অনুষ্ঠান দুর্গা পূজা উপলক্ষে সরকার ২০ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশের ১১৫ জন রফতানিকারকের প্রত্যেককে ৪০ টন করে ৪ হাজার ৬০০ টন ইলিশ রফতানির অনুমতি দেয়। গতকাল ছিল ইলিশ রফতানির শেষ দিন। এ সময় রফতানি হয়েছে ১ হাজার ১০৮ টন। যার রফতানি মূল্য ১ কোটি ১১ লাখ ২২ হাজার ৮০০ ডলার।

রফতানিকারক নুরুল আমিন বিশ্বাস জানান, দেশে ইলিশের উৎপাদন ঘাটতি থাকায় ২০১২ সাল থেকে ইলিশ রফতানি বন্ধ করেছিল সরকার। পরবর্তী সময়ে বন্ধুত্ব ও সৌহার্দ্যের সম্পর্কের সূত্র ধরে সরকার ২০১৯ সাল থেকে প্রতি বছর পূজার আগে ভারতে ইলিশ রফতানির অনুমতি দিয়ে আসছে। তবে এবার অনুমোদনের চার ভাগের এক ভাগ রফতানি করা গেছে। কেননা সাগরে ইলিশ ধরা পড়ছে কম, আবার রফতানি মূল্যও কম। ইলিশ মাছ ধরায় নিষেধাজ্ঞা শুরু হওয়ায় আপাতত রফতানি বন্ধ থাকছে। নিষেধাজ্ঞার সময় শেষ হলে আবারো সরকারের কাছে রফতানির অনুমোদন চেয়ে আবেদন করা হবে। অনুমতি পেলে বাকি ইলিশ ভারতে রফতানি করব।
তিনি আরো জানান, বর্তমানে কেজি প্রতি ইলিশের রফতানি মূল্য ১০ মার্কিন ডলার, যা বাংলাদেশী মুদ্রায় মাত্র ৮৫০ টাকা। অথচ দেশের বাজারেই ইলিশ এর চেয়ে অনেক বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। এর পরও অনেক ব্যবসায়ী ভারতে ইলিশ মাছ রফতানি করেছেন।

বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার আজিজুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে আটটি চালানে ভারতে ইলিশ রফতানি হয়েছে। এসব ইলিশের চালান দ্রুত ছেড়ে দেয়ার কাস্টমসের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেয়া ছিল।

সর্বাধিক পঠিত