প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সেরা পাঁচ টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটারের তালিকা দিলেন ম্যাক্সওয়েল

স্পোর্টস ডেস্ক :[২] সামনেই শুরু হচ্ছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। এ নিয়ে দলগুলোর মধ্যে সাজ সাজ রব। কে হবে এবারের বিশ্বসেরা দল। সে নিয়ে অনেক আলোচনার মাঝে নিজের পছন্দের সেরা পাঁচ টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটারের তালিকা দিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার অলরাউন্ডার গ্লেন ম্যাক্সওয়েল।

[৩]ম্যাক্সওয়েল নিজের সেরা পাঁচজনের তালিকা করতে গিয়ে বেছে নিয়েছেন অভিনব এক পদ্ধতি। এমনভাবে দলটাকে গড়ার চেষ্টা করেছেন, যেনো পৃথিবীর যেকোনো পাঁচ সদস্যের দলকে হারানো যায়। দলে রেখেছেন একজন স্পিনার, দুইজন অলরাউন্ডার, একজন গতিতারকা ও একজন সেরা উইকেটকিপারকে।

[৪]১. রশিদ খান: (স্পিনার): একজন স্পিনার হিসেবে রশিদ খানকে বেছে নিয়েছেন ম্যাক্সওয়েল। ২৩ বছর বয়সি রশিদকে রাখাটাই বরং স্বাভাবিক; খেলেন পৃথিবীর বিভিন্ন ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে। ২৩ বছর বয়সেই ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম ফরম্যাটটাতে খেলে ফেলেছেন ২৮১টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ; উইকেট লাভ করেছেন ৩৮৮টি। সেরা বোলিং ফিগার ৩ রানে ৫ উইকেট। ব্যাটিংটাও খারাপ করেন না আফগান তারকা। নামের পাশে ১৪৫ স্ট্রাইক রেটে ১২৮৮ রান সেটাই বলে। জাতীয় দলের হয়ে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ৫১ ম্যাচে রশিদের উইকেটসংখ্যা ৯৫টি। ব্যাটসম্যানদের তার বল বুঝতে কতটা অসুবিধা হয়, সেটা তার পরিসংখ্যান দেখলেও কিছুটা বোঝা যায়।

[৫]২. আন্দ্রে রাসেল (অলরাউন্ডার): নিজের দিনে ক্যারিবিয়ান তারকা কতটা ভয়ংকর সেটা বোধহয় আলাদা করে না বললেও হয়। পরিসংখ্যান দিয়ে সত্যিকারের রাসেলকে কখনোই বোঝা যাবে না। যারা তার খেলা দেখেছেন বিভিন্ন সময়ে, তারা একটা জায়গায় নিশ্চিতভাবেই একমত পোষণ করবেন, ‘রাসেলই বর্তমান সময়ের সবচেয়ে ভয়ংকর ব্যাটসম্যান।‘ ইনজুরির কারণে রাসেলের ফর্মটা ওঠানামা করলেও, ক্যারিবিয়ান তারকা যে যেকোনো ব্যাটসম্যানের জন্যই আতঙ্কের, তা বোঝাই যায়। খেলেছেন ৩৮২টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ; ৬৪০৫ রানের পাশাপাশি নিয়েছেন ৩৪০টি উইকেট। রাসেলকে নেয়ার পেছনে অজি তারকার যুক্তি হলো, “রাসেল এমন একজন, যার পক্ষে যে কোনো কিছুই করে ফেলা সম্ভব“

[৬]৩. বেন স্টোকস (অলরাউন্ডার): মানসিক অবসাদজনিত কারণে নিজেকে সরিয়ে রেখেছেন ইংল্যান্ড দল থেকে। এমনকি ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপ দলেও নেই স্টোকস। কবে ফিরবেন তা জানা না গেলেও, অজি তারকার সেরা পাঁচে নিজেকে দেখে নিশ্চয়ই বেশ খুশি হবেন। কোনো সন্দেহ নেই স্টোকস যে ইংল্যান্ড দলের সেরা খেলোয়াড়দের একজন; একা হাতে জিতিয়েছেন অনেক ম্যাচ, বিশ্বকাপ জয়েও রেখেছেন অবদান। এমন একজনকে তো যে কেউই পেতে চাইবে। ৩০ বছর বয়সি স্টোকস টি-টোয়েন্টি খেলেছেন ১৪৮টি; ২ শতকে ২৮৬৫ রানের পাশাপাশি নিয়েছেন ৮৬টি উইকেট।

[৭]৪. অ্যাডাম গিলক্রিস্ট (উইকেটরক্ষক): ছিলেন তার সময়ের অন্যতম সেরা উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান, জিতেছেন বিশ্বকাপ। আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলতে পছন্দ করতেন গিলক্রিস্ট। ম্যাক্সওয়েল নিজেও বোলারদের উপর চড়াও হতে পছন্দ করেন বলেই হয়তো গিলক্রিস্টকে তার ভীষণ পছন্দ, “আমার দেখা অন্যতম সেরা খেলোয়াড়”। গিলক্রিস্টের ক্যারিয়ার যখন শেষের দিকে, তখন টি-টোয়েন্টির আবির্ভাব। তবুও খেলেছেন ১০২টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ; ৩ শতকে ২৬২২ রানের পাশাপাশি নিয়েছেন ১টি উইকেটও। বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি দৃষ্টিনন্দন উইকেটকিপিংয়ের জন্যই সেরা পাঁচে গিলক্রিস্ট।

[৮]৫. শন টেইট (পেসার): নিজেদের সময়ে দুজনেই ছিলেন ব্যাটসম্যানদের জন্য আতঙ্কের। কিন্তু, ম্যাক্সওয়েলের দলে সুযোগ হয়েছে টেইটের

[৯]পাঁচজনের তালিকায় এই নামটা বেশ বিস্ময় জাগিয়েছে। ইনজুরির কারণে ক্যারিয়ার বেশীরভাগ সময় থেকেছেন মাঠের বাইরে। কিন্তু, ম্যাক্সওয়েলের মতে টেইট এমন একজন বোলার, যাকে সামনে দেখলে ব্যাটসম্যানদের হাঁটু কাঁপতে বাধ্য, আমি তার বিপরীতে খেলেছি বলেই জানি সে কতটা জোড়ে বল করতে সক্ষম। এমনকি তার ক্যারিয়ারের শেষের দিকেও সে রকেট গতিতে বল করতো। সে যে কোনো ব্যাটসম্যানের জন্যই আতঙ্কের। টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে ৫ উইকেট পেয়েছেন একবারই, ১৭১ ম্যাচে নিয়েছেন ২১৮ টি উইকেট। – ক্রিকবাজ/ ক্রিকইনফো- সম্পাদনা: রাহুল রাজ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত