প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মাহবুব কবির মিলন: আমরা আসলে ভুলে যাই যে, আমরা সবাই একদিন হারিয়ে যাবো

মাহবুব কবির মিলন: অনেকদিন আগের কথা। অফিস থেকে নেমে বিল্ডিং এর পোর্চের নিচে একাকী এক ভদ্রলোককে দেখলাম হাতে একটি কাগজ নিয়ে গভীর মনযোগ দিয়ে দেখছেন। কয় কদম হেঁটে যাবার পর হঠাত মনে হলো, তাকে চেনাচেনা মনে হচ্ছে। ঘুরে দাঁড়িয়ে ভালো করে দেখলাম। হ্যাঁ, মনে হচ্ছে তিনিই। কাছে গিয়ে সালাম দিয়ে বললাম, আপনি কিস্যার? তিনি হেসে মাথা নাড়ালেন। স্যার এখানে আপনি একা। আমি কি সাহায্য করতে পারি আপনাকে? তিনি কাগজ বাড়িয়ে ধরলেন। দেখুন তো এই অফিসটা কোথায়?চেনা অফিস। হাত দিয়ে দেখিয়ে দিলাম, কয়েক বিল্ডিং পরেই স্যার। তিনি হেসে ধন্যবাদ দিয়ে বের হয়ে গেলেন রাস্তায়। হয়তো গাড়ি বাইরে ছিলো। সালাম দিয়ে তার গমন পথের দিকে তাকিয়ে রইলাম। কতো ক্ষমতা, কতো উঁচু পদ মর্যাদা ছিলো এক সময় তার। এখন একা অফিস খুঁজছেন। অনেকদিন আগে এক সরকারি এক জমজমাট উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সবাই ব্যস্ত বর্তমানকে নিয়ে। অতীত একা এসে সামনের সোফায় বসলেন। অনুষ্ঠান শেষে খাবার আয়োজনে সবাই দলবেধে বর্তমানদের নিয়ে অন্য ফ্লোরে চলে গেলেন।

আমি ব্যস্ত অতীতের দিকে তাকিয়ে। তিনি একা গেলেন, লিফটের বাটন চাপলেন। একা ঢুকলেন এবং অদৃশ্য হয়ে গেলেন। বাকিটুকু আমার ড্রাইভারের কাছে শুনলাম। তিনি নিচে নেমে একাই গাড়ি খুঁজে নিয়ে চলে গেছেন। আমরা আসলে ভুলে যাই যে, আমরা সবাই একদিন হারিয়ে যাব। আর এই হারিয়ে যাবার আগে কিছু ভালো কাজ করে যাই, যাতে মানুষ চিরজীবন মনে রাখে। এক মহোদয়ের কথা শুনলাম। যিনি অবসরে গিয়ে নিজের অফিস বিল্ডিং এ আর যেতে পারেন না। আমি নিজেই তাকে ভরা মিটিং এ দেখেছি, দেশের কল্যাণ, মানুষের স্বার্থ জলাঞ্জলি দিয়ে অনিয়ম আর অন্যায়ের পক্ষে অনবরত সাপোর্ট দিয়ে গেছেন। মানুষের ভয়াবহ এক ক্ষতির দায়ভার তাকে নিতেই হবে, ইহকালে না হলেও পরকালে এবং কবরে। ফেসবুক থেকে 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত