প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] শতাব্দীর অন্যতম উন্নত প্রযুক্তির ইলেকট্রিক গাড়ি তৈরি হতে যাচ্ছে চট্টগ্রাম বঙ্গবন্ধু শিল্পনগরে

এম আর আমিন: [২] চট্টগ্রাম মিরসরাইয়ের বঙ্গবন্ধু শিল্পনগরে একবিংশ শতাব্দীর অন্যতম প্রযুক্তি ইলেকট্রিক গাড়ি তৈরি হতে যাচ্ছে। বাংলাদেশে পাঁচ সিটের এ ইলেকট্রিক গাড়ি ৭ লাখে মিলবে, গাড়ি থেকে ধোঁয়াও বেরোবে না পরিবেশ থাকবে দূষণমুক্ত।

[৩] বিদ্যুৎচালিত গাড়ি কেবলমাত্র এই কারণেই হতে চলেছে ভবিষ্যতের বাহন। এটা মাথায় রেখে বিশ্বজুড়ে বড় গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলো যখন আধুনিক প্রযুক্তির বৈদ্যুতিক গাড়ি উৎপাদনে বড় বিনিয়োগ শুরু করেছে, খানিকটা দেরিতে হলেও বাংলাদেশও এবার সেই পথেই হাঁটতে যাচ্ছে। সারা পৃথিবীতেই যখন দ্রুতগতিতে বাড়ছে বৈদ্যুতিক গাড়ির ব্যবহার, এবার স্বপ্ন নয় বাস্তবের পথেই বাংলাদেশ ।

[৪] স্কুল–কলেজের শিক্ষকসহ মূলত মধ্যবিত্ত ও উচ্চ মধ্যবিত্তকে টার্গেট করতে চায় গাড়ি উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানটি। গাড়ির দাম থাকবে ৭ থেকে ১৪ লাখ টাকার মধ্যে এবং কিস্তিতে থাকবে টাকা পরিশোধের সুযোগ। মহাসড়কে ব্যাটারিতে চার্জ দেওয়ার জন্য দেশে বিদ্যমান সিএনজি ও পেট্রলপাম্পের পাশে বসানো হবে চার্জিং ইউনিট তাছাড়া বাসায়ও ব্যাটারি চার্জ দেওয়া যাবে।

[৫] চট্টগ্রামে মিরসরাইয়ের বঙ্গবন্ধু শিল্পনগরে হচ্ছে দেশে বৈদ্যুতিক গাড়ি উৎপাদনের প্রথম কারখানাটি। ১০০ একর জায়গায় প্রতিষ্ঠিত সেই কারখানা থেকে তৈরি বৈদ্যুতিক গাড়ি বাজারে আসতে পারে আগামী ৮/১০ মাসের মধ্যেই। জাপানি ও কোরিয়ান গাড়ির নকশায় তৈরি হবে গাড়িগুলো। বৈদ্যুতিক গাড়ি তৈরির কারখানাটি তৈরি করছে বাংলাদেশ অটো ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড।

[৬] ২০১৮ সালে শুরু হওয়া কারখানাটির কাজ এখন প্রায় শেষের পথে। এতে বিনিয়োগ হচ্ছে প্রায় সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা। বাংলাদেশ অটো ইন্ডাস্ট্রিজের অংশীদার চীনা প্রতিষ্ঠান ডংফেং মোটর গ্রুপ লিমিটেড। এটি চীনের শীর্ষস্থানীয় গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের একটি। তাদের আবার জাপানের হোন্ডা, নিশান, ফ্রান্সের সিটরয়েনসহ জাপানি ও ইউরোপীয় কয়েকটি গাড়ি নির্মাতার সঙ্গে যৌথ উদ্যোগের কারখানা রয়েছে। চার চাকার বৈদ্যুতিক গাড়িই শুধু নয়, একই সঙ্গে মাইক্রোবাস, কাভার্ড ভ্যান ও মিনি ট্রাক তৈরির পরিকল্পনাও রয়েছে।

[৭] প্রাথমিকভাবে বছরে ৩৫ হাজার ব্যক্তিগত গাড়ি বা প্রাইভেট কার, ৫০ হাজার তিন চাকার যান এবং এক লাখ ইলেকট্রিক মোটরসাইকেল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করা হয়। বাংলাদেশে বৈদ্যুতিক গাড়ির জন্য নীতিমালা প্রণয়নের পাশাপাশি আমদানি করা গাড়ির জন্য চার্জিং নীতিমালা নিয়েও কাজ শুরু করেছে কর্তৃপক্ষ।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত