প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সাগরে ঘুর্ণিঝড় ‘গুলাব’ : সমুদ্রবন্দরে দু’নম্বর দূরবর্তী সর্তকতা সংকেত

জেরিন আহমেদ: [২] বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত ঘুর্ণিঝড় ‘গুলাব’ দেশের উপকূলের সাড়ে ৫ শ’ থেকে ৬শ’ কিলোমিটারের মধ্যে অবস্থান করছে। এটি আরও পশ্চিম দিকে আগ্রসর হয়ে ভারতের উড়িষ্যার উপকূলের দিকে ধাবিত হচ্ছে। চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা এবং পায়রা সমুদ্র বন্দর সমূহকে দু’নম্বর দূরবর্তী সর্তক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

[৩] আবহাওয়াবিধ মো. খন্দকার হাফিজুর রহমান জানিয়েছেন, এটি বাংলাদেশের উপকূলে তেমন প্রভাব অথবা আঘাত আনার সম্ভাবনা নেই। কিন্তু এর প্রভাবে উপকূলে দমকা হাওয়াসহ চট্টগ্রাম, বরিশাল ও খুলনা বিভাগের কোথাও কোথাও বৃষ্টি হতে পারে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের নিকটে সাগর খুবই উত্তাল রয়েছে। সূত্র: বাসস

[৪] আবহাওয়ার সতর্ক বার্তায় বলা হয়, উত্তরপশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও আশপাশের পশ্চিমমধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’ আরও পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে আজ শনিবার সকালে একই এলাকায় (১৮ ধশমিক ৪০ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮৭ দশমিক ২০ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ) অবস্থান করছিল এবং এটি চট্টগ্রম সমুদ্রবন্দর থেকে ৬৬৫ কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৬৩০ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে, মংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৫২৫ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং পায়রা সমুদ্ব বন্দর থেকে ৫৩০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছিল। এটি আরও পশ্চিম-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে।

[৫] ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘন্টায় ৬২ কিলোমিটার যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের নিকটে সাগর খুবই উত্তাল রয়েছে।

[৬] উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলার সমূহকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে। সেইসাথে তাদেরকে গভীর সাগরে বিচরণ না করতে বলা হয়েছে।