প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ফরিদপুরে ভাঙন ঝুঁকিতে বিদ্যালয় বিলীনের আশঙ্কা

হারুন-অর-রশীদ: [২] ফরিদপুরের চরভদ্রাসনে পদ্মা নদীর ভাঙন ঝুঁকিতে পড়েছে একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। আর ৩০ মিটার ভাঙলেই বিদ্যালয়টি নদী ভাঙনে বিলীন হয়ে যাবে। ভাঙন ঝুঁকিতে পড়ায় ওই বিদ্যালয়ের ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কিত বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও এলাকাবাসী।

[৩] চরভদ্রাসন উপজেলার চর হরিরামপুর ইউনিয়নের ছবুল্লা শিকদারের ডাঙ্গী গ্রামে এ ভাঙন শুরু হয়েছে। গত আগস্টের মাঝামাঝিতে ভাঙন দেখা দিলেও রোববার (১৯ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ভাঙনের তীব্রতা আরো বেড়ে যায়। এক বিকেলেই পদ্মা নদীতে বিলীন হয়ে যায় অন্তত ১৫ শতাংশ ফসলি জমি। ভাঙনের ফলে ঝুঁকিতে পড়ে যায় ছবুল্লা শিকদারের ডাঙ্গী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি।

[৪] স্থানীয়রা জানান, ১৯৭০ সালে স্থাপিত বিদ্যালয়টি ১৯৯৭ সালে ভাঙনের মুখে পড়ে। তখন ওই জায়গা থেকে অন্তত তিন কিলোমিটার দূরে এসে বর্তমান জায়গায় ২০ শতাংশ জমির ওপর দুটি টিনের ঘরে স্কুলটির কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। বিদ্যালয়ের সেই দুটি ঘরও ভাঙনের ঝুঁকির মধ্যে থাকায় চরাঞ্চলের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকরা রয়েছেন শঙ্কায়।

[৫] ওই বিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী জানায়, স্কুলটি বাড়ির পাঁশে হওয়ায় তাদের পড়াশোনা ভালোই চলত। নদী ভাঙনে বিলীন হয়ে গেলে দূরের কোনো স্কুলে গিয়ে তাদের পড়াশোনা কতটুকু হবে সেই ভবিষ্যৎ নিয়ে তারা শঙ্কিত।

[৬] ছবুল্লা শিকদারের ডাঙ্গী গ্রামের বাসিন্দা এক শিক্ষার্থীর বাবা রাসেল (৩২) বলেন, আমার ছেলে এই স্কুলে লেখাপড়া করে। স্কুলটি ভাইঙ্গা গেলে ওর পড়ালেখা বন্ধ হইয়া যাবে।

[৭] বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ বলেন, গত আগস্ট মাস থেকে ওই এলাকায় ভাঙন দেখা দেয়। তবে রোববার (১৯ সেপ্টেম্বর) ভাঙন ছিল সবচেয়ে ভয়াবহ। এখনই এ ভাঙন রোধ করা না গেলে ১৫০ জন শিক্ষার্থী ও চারজন শিক্ষক নিয়ে আমরা এক অনিশ্চয়তার মুখে পড়ে যাব। দীর্ঘদিন ধরেই ভাঙন ঝুঁকিতে রয়েছে বিদ্যালয়টি। ভাঙনরোধে ফেলা জিও ব্যাগের প্রায় সবই গত শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। স্থায়ী কোনো ব্যবস্থা না নিলে বিদ্যালয়টি রক্ষা করা সম্ভব নাও হতে পারে বলে জানান এই শিক্ষক।

[৮] ওই এলাকার বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত আগস্টে ওই এলাকায় ভাঙ্গন দেখা দিলে বালু ভর্তি অন্তত পাঁচ সহস্রাধিক জিও ব্যাগ স্থাপন করা হয়। কিন্তু রবিবারের (১৯ সেপ্টেম্বর) ভাঙ্গনে ওই বালির বস্তাগুলি সব বিলিন হয়ে এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

[৯] এলাকাবাসী আরও জানায়, ইতোমধ্যে ওই স্কুলের কাছে পদ্মা নদীর পাড়ে পাঁচ মিটার বড় একটি ফাটল ধরেছে। ওই মাটিও ধসে পড়বে বলে আশঙ্কা করছেন তারা।

[১০] উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল মো. বাহাউদ্দিন বলেন, গত আগস্টে ভাঙন ঠেকাতে পানি উন্নয়ন বোর্ড বালু ভর্তি বস্তা ফেলেছিলো। আবার ভাঙন শুরু হয়েছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার মাধ্যমে পানি উন্নয়ন বোর্ডকে জানানো হয়েছে।

[১১] ফরিদপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী পার্থ প্রতীম সাহা বলেন, নদী ভাঙনের ঘটনা শুনে তিনি শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) দুপুর ১২টার দিকে চরভদ্রাসনের নদীভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন। ইতোমধ্যে ছবুল্লা শিকদারের ডাঙ্গীতে ভাঙন রোধে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণের বিষয়ে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। সম্পাদনা: হ্যাপি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত