প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ৫০ বছর ধরে প্রতিমা তৈরি করেন ভারত পাল

আরিফুল ইসলাম: [২] ছোট সময় থেকে হাতেখড়ি বাবার হাতে, নিখুঁতভাবে মনের মাধুরী মিশিয়ে তৈরি করেন প্রতিমা। তার হাতের কারুকাজ যেনো মুগ্ধতা সৃষ্টি করে। প্রতিমা তৈরি যেনো মিশে আছে তার মনে প্রাণে। শিল্পীর ছোঁয়ায় তৈরি করছেন দূর্গা দেবীকে।

[৩] বলছিলাম টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার সদর ইউনিয়নের রাশড়া গ্রামের ভারত পালের কথা। ছোট সময় থেকেই প্রতিমা তৈরি তার ধ্যান-জ্ঞান। বয়স যখন ১০ বছর তখন থেকে বাবার সাথে হাতেখড়ি হয় প্রতিমা তৈরির। মনকে উজাড় করে দিয়ে তৈরি করেন প্রতিমা। তার হাতের কারুকাজ প্রতিমা তৈরিতেই ফুটে আসে। ৫০ বছর ধরে জেলার বিভিন্ন এলাকায় তৈরি করছেন প্রতিমা।

[৪] আর কদিন বাদেই আসছেন দেবী দুর্গা। তাই শিল্পীর নিপুণ হাতে চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ। নিখুঁতভাবে মনের মাধুরী মিশিয়ে ফুটিয়ে তুলছেন দূর্গা দেবীকে। পাশাপাশি চলছে লক্ষ্মী, স্বরস্বতী, গণেশ ও কার্তিকের প্রতিমা তৈরির কাজ। প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনি। আগামী মাসের (১১ অক্টোবর) ৬ষষ্ঠী পূজার মধ্যে দিয়ে শুরু হবে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসব।

[৫] সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, কোনো মন্ডপে করছেন কাঠামো তৈরি আবার কোথায় করা হচ্ছে মাটির কাজ। প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনি। দেড় মাস আগে থেকেই শুরু করে দেন প্রতিমা তৈরির কাজ। তিনি রাত-দিন পরিশ্রম করে নিপুণ হাতে তৈরি করছেন দেবী দুর্গাকে। ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন প্রতিমা তৈরিতে যেন দম ফেলার ফুসরত নেই তার ।

[৬] প্রতিমা শিল্পী ভারত পাল জানান, ছোট সময় থেকে বাবার কাছে প্রতিমা তৈরির কাজ শিখি। প্রতিমা তৈরি আমার আত্মার সাথে মিশে আছে। আমার বয়স যখন ১০ বছর তখন থেকেই প্রতিমা তৈরির কাজে লেগে পড়ি। মনের আবেগ আর ভালোবাসা দিয়েই প্রতিমা তৈরি করি। প্রতিমা তৈরিই আমার ধ্যান-জ্ঞান। প্রতিমা তৈরি কাজে নিয়োজিত রয়েছি প্রায় ৫০ বছর ধরে। এবছর প্রায় ১৪টি প্রতিমা তৈরির কাজ চলছে। কোনো মন্ডপে চলছে কাঠামোর কাজ আর কোনো মন্ডপে চলছে মাটির কাজ। আমার ছোট দুই ভাইও প্রতিমা তৈরির কাজের সাথে জড়িত রয়েছে। এবছর প্রতিমা তৈরির সরঞ্জামের দামটাও বেশি।

[৭] উপজেলার রাশড়া গ্রামের যাদব পাল জানান, ভারত ছোট সময় থেকে প্রতিমার তৈরির কাজ করছে। প্রায় ৫০ বছর ধরে প্রতিমা তৈরি করছে। বাসাইল ছাড়াও পার্শ্ববর্তী উপজেলা সখীপুরে প্রতিমা তৈরিতে ভারতের সুনাম রয়েছে। শোনেছি এবছর ১৪টি প্রতিমার তৈরির কাজ করতেছে।

[৮] উপজেলার কাঞ্চনপুর ইউনিয়নের জিকাতলী পাড়া গ্রামের শীতল চক্রবর্তী জানান, ছোট সময় থেকে দেখছি কাকা প্রতিমা তৈরি করছে। আমি মাঝে মাঝে কাকার প্রতিমা তৈরি দেখতে যেতাম। যতই দেখতাম আর কাকার দিকে মুগ্ধ হয়ে তাকিয়ে থাকতাম। কি অসাধারণ নিখুঁত হাতের কারুকাজ।

[৯] বাসাইল উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ সুনীল রায় স্বপন বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও মৃত্যু বাড়ার কারণে আমরা বড় দুশ্চিন্তায় ছিলাম। ঈশ্বরের কৃপায় করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যু কমায় পূজার আয়োজন ও প্রতিমা তৈরির কাজ চলছে। প্রতিমা শিল্পীরা ব্যস্ত হয়ে পরেছেন প্রতিমা তৈরিতে। রাত-দিন প্রতিমার কারিগররা পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। গত বছর ৪২টি মন্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হয়। এবছর প্রায় ৫৬ টি মন্ডপে পূজা উদযাপন করা হবে। সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক স্বাস্থ্যবিধি মেনে পূজা মন্ডপ গুলোতে শারদীয় দুর্গা উৎসব অনুষ্ঠিত হবে। শারদীয় দুর্গা উৎসব শান্তিপূর্ণভাবে উদযাপনের জন্য উপজেলা প্রশাসন ও বাসাইল থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাসহ সকলের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেছেন। সম্পাদনা: সঞ্চয় বিশ্বাস