প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] আগামী জুনেই আখাউড়া-আগরতলা রেল চলাচল শুরু

মাছুম বিল্লাহ : [২] বাংলাদেশ ও ভারত সরকার আগামী জুনের মধ্যেই আখাউড়া-আগরতলা রেল যোগাযোগ শুরু করবে। এ জন্য সব রকম প্রস্তুতি শুরু করেছেন দু’দেশের রেল মন্ত্রনালয়। ভারতের কেন্দ্রীয় উত্তর-পূর্ব উন্নয়ন (ডোনার) প্রতিমন্ত্রী বি এল ভার্মা এ তথ্য জানিয়েছেন।

[৩] মঙ্গলবার ভারতের হিন্দু দৈনিক জাগরণ এ খবর দিয়েছে। পত্রিকাটি লিখেছে, আখাউড়া-আগরতলা রেল প্রকল্পটি পরিদর্শন করে প্রতিমন্ত্রী সোমবার বলেছেন, কাজের গতি আরও বাড়াতে হবে। আগামী জুনের মধ্যেই এটি শেষ করতে হবে। কারণ জুন থেকেই দু’দেশের মধ্যে রেল চলাচল শুরু হবে।

[৪] এ বিষয়টি নিয়ে প্রতিমন্ত্রী ভার্মা রেলের প্রকৌশলী ও কর্মকর্তাদের বলেছেন, আখাউড়া-আগরতলা রেলওয়ে প্রকল্পের জাতীয় ও আন্তর্জাতিক গুরুত্ব রয়েছে। কারণ আগামীতে ট্রান্স এশিয়ান রেল নেটওয়ার্কে যুক্ত হবে ভারত ও বাংলাদেশ। এই দু’দেশ ছাড়াও চীন, ভুটান, নেপাল ও মিয়ানমার এই নেটওয়ার্কে যুক্ত হবে।

[৫] ২০১০ সালের ১২ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং আখাউড়া-আগরতলা রেলপথ স্থাপনের চুক্তি স্বাক্ষর করেন। প্রায় এক হাজার কোটির এই প্রকল্পের অর্থের যোগান দিচ্ছে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চল পরিষদ। বাংলাদেশের মধ্যে যে পথটা রয়েছে তার জন্য অর্থ দিচ্ছে ভারত সরকার।

[৬] এই প্রকল্পে ভারতের সাইডে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ইরকনের চিফ জেনারেল ম্যানেজার (ওয়ার্কস) বিনোদ কুমার গুপ্ত জানান, এই রেলপথ চালু হলে আগরতলা ও কলকাতার মধ্যে বাংলাদেশের মাধ্যমে যাত্রার সময় এক তৃতীয়াংশ হ্রাস পাবে। বর্তমানে শিলিগুরি (পশ্চিমবঙ্গ) হয়ে পার্বত্য উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলির মধ্যে দিয়ে পৌঁছতে ১৬১৩ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করতে হয়। সময় লাগে প্রায় ৫৫ ঘন্টা। আগরতলা-আখাউড়া রেল যোগাযোগ চালু হলে ৫১৪ কিলোমিটার রাস্তা কমে যাবে। আর সরাসরি যোগাযোগের ফলে সময় বাঁচবে অন্তত ১৫ ঘন্টা। এই রেললাইন অভয় দেশে পণ্য পরিবহন সহজতর করবে এবং উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলিকে ব্যাপকভাবে উপকৃত হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত