প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] আফগানিস্তানের ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্র ছিলো পুরোপুরি অজ্ঞ: ইমরান খান

আসিফুজ্জামান পৃথিল: [২] সিএনএনকে দেয়া সাক্ষাৎকারে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আফগানিস্তানের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য কখনো অনুধাবন করেনি যুক্তরাষ্ট্র। তারা অস্ত্র দেখলেই যে কোনো জাতিগত গোষ্ঠীকে সন্ত্রাসী ভেবেছে। তিনি বলেন, পশ্চিমারা হাক্কানিদের সব সময় নেটওয়ার্ক বলে চিহ্নিত করেছে। অথচ তারা একটি ট্রাইব-গোষ্ঠী। এসব ব্যাপার দূরত্ব আরো বাড়িয়েছে।

[৩] ইমরান খান মনে করেন, আফগানিস্তানকে জরুরি ভিত্তিতে সহায়তা প্রদান খুবই জরুরি। তার মতে, এমনটা না করা হলে সেখানে যে বিশৃঙ্খলা দেখা দেবে, তা আফগানিস্থানকে আবারো নেতিবাচক পথে নিয়ে যাবে। তার মতে আফগানিস্তান এমন এক দেশ যারা কারো প্রেস্কিপশনে চলে না। এর চেয়ে বরং তাদের সঠিক পথে রাখার জন্য সব কিছু করা প্রয়োজন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের।

[৪] ইমরান জানান, তিনি বারবার মার্কিনি কর্মকর্তাদের বুঝিয়েছেন, আফগানিস্তানে সামরিক বল প্রয়োগের মাধ্যমে কিছুই অর্জন সম্ভব নয়। সর্বোচ্চ সেনা উপস্থিতিকালেই তা প্রত্যাহারের সঠিক সময়। সৈন্য কম থাকলেই কৌশল খাটবে না।

[৫] ‘আমাদের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো বলেছিলো, তালিবান পুরো আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নিতে পারবে না। তারা আফগান সামরিক বাহিনীকে পদানত করার চেষ্টা করলে শুরু হবে গৃহযুদ্ধ। এটা ভীতিকর ছিলো কারণ এজন্য আমাদেরই সবচেয়ে বেশি ভুগতে হতো’।

[৬] ইমরান খান সোভিয়েত বাহিনীর চলে যাওয়ার উদাহরণ টেনে বলেন, তিনি ভেবেছিলেন মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের পরেও রক্তের হোলি হবে।

[৭] জো বাইডেন ক্ষমতায় আসার পর নিজেদের মিত্র দেশের প্রধানমন্ত্রীকে ফোন করেননি জানিয়ে ইমরান খান বলেন, ‘আমার মনে হয় জো বাইডেন খুব ব্যস্ত থাকায় আমাকে ফোন করেনি। তবে আমাদের সম্পর্ক কোনো ফোন কলের ভিত্তিতে হওয়া উচিৎ নয়। এই সম্পর্ক হতে হবে বহুমাত্রিক। সম্পাদনা: মিনহাজুল আবেদীন।

সর্বাধিক পঠিত