প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ২০১৮ সালের নির্বাচনে নেতা ‘হায়ার’ করার সিদ্ধান্ত ভুল ছিলো: বিএনপি

শিমুল মাহমুদ: [২] রাজনৈতিক কর্মকৌশল ঠিক করতে গতকাল দ্বিতীয় দিনের মতো রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেছে বিএনপি। দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার গুলশান অফিসে বুধবার বিকেল ৪ টা থেকে শুরু হওয়া এ বৈঠক শেষ হয় রাত ১১ টায়। দীর্ঘ ৭ ঘন্টা এ বৈঠকে ভার্চুয়ালি যোগ দিয়ে সভাপতিত্ব করেন ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। বৈঠকে অংশ নেওয়া ১২২ জন সম্পাদক ও সহ সম্পাদককের মধ্যে ৬০ জন বক্তব্য রাখেন।

[৩] বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, বিএনপির বিশেষ সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন বলেছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ২০১৮ সালে নেতৃত্ব ‘হায়ার’ করা হয়েছিল। এটা সঠিক সিদ্ধান্ত ছিল না। আমাদের দলের প্রাণ বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান। তারা জাতীয়তাবাদী শক্তির প্রতীক। তাদের সামনে রেখেই আমাদের চলতে হবে। সরকারে গেলে কে প্রধানমন্ত্রী হবেন এ প্রশ্ন কেন আসবে? বিডিপ্রতিদিন

[৪] নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির এক সাংগঠনিক সম্পাদক বলেন, বৈঠকে সব নেতাই ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানকে খুশি করতে বক্তব্য দিয়েছেন। ‘আমি বলেছি, ক্লোজড-ডোর মিটিংয়ে আমাদের অনেক নেতা বড় বড় অনেক কথা বলেছেন। দলের কেন্দ্রীয় নেতারা প্রত্যেকে যদি ২০ জন নেতাকর্মী নিয়েও মাঠে নামেন তাহলে এ সরকারের পতন অনিবার্য। আমাদের ঐক্যবদ্ধভাবে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। এর বিকল্প নেই।’

[৫] বিএনপির সহ সম্পাদক শাহাবুদ্দিন সাবু বলেছেন, ‘আন্দোলন শুরু করার আগে যেসব নেতারা দেশের বাইরে চিকিৎসা নেন, তাদের আগেই চিকিৎসা নিতে হবে। আন্দোলন চলাকালে সব নেতার পাসপোর্ট স্থায়ী কমিটির নেতাদের কাছে জমা দিতে হবে। পরিকল্পিতভাবে আন্দোলন শুরু করতে হবে, কোনো অবস্থায় ব্যর্থ হওয়া যাবে না।’

[৬] যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, নব্বইয়ের আন্দোলনে ছাত্রদল নেতা কর্মীদের মধ্যে এমন কোন পরিকল্পনা ছিল না যে, এমপি হব, মন্ত্রী হব। প্রতিজ্ঞা ছিল স্বৈরাচারকে হটাতে হবে। এজন্যই আন্দোলনে সফল হয়েছিল। এখন যুদ্ধে জয় হওয়ার আগেই যদি গণিমতের মাল ভাগাভাগি করি, তাহলে তো ভাগাভাগির মধ্যেই থাকবো, আন্দোলন হবে কিভাবে বা সংগঠনই হবে কিভাবে।

[৭] বৈঠক শেষে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আজকে মূলত আলোচনা হয়েছে বর্তমান রাজনৈতিক এবং সাংগঠনিক বিষয় নিয়ে। আমাদের আরো দু-একটি সভা হতে পারে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি। আগামী শনিবার বৈঠকে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। ওই বৈঠকে আমরা নির্বাহী কমিটির সদস্য যারা আছেন এবং অন্যান্য পর্যায়ে আমরা আরও বৈঠক করব।

[৮] তিনি বলেন, আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে নিয়ে গণমাধ্যমে যে মিথ্যা ভিত্তিহীন বানোয়াট অপপ্রচার চালানো হয়েছে সেটার তীব্র নিন্দা জানানো হয়েছে। বৈঠকে অন্যদের মধ্যে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, নজরুল ইসলাম খান, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, বেগম সেলিমা রহমান, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল,হাবিব উন নবী খান সোহেল,মাহবুবউদ্দিন খোকন, খায়রুল কবির খোকন, মজিবুর রহমান,সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, শামা ওবায়েদ, রুহুল কুদ্দুস তালুকদার, বিলকিস জাহান শিরিন, দুলু,অর্থ ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক সালাউদ্দিন আহমেদ, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, তথ্য বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপু,সহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক রুমিন ফারহানা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সর্বাধিক পঠিত