প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] জেএমবির শীর্ষ নেতা এমদাদুল হক ওরফে উজ্জল মাস্টার ৩ দিনের রিমান্ডে

খালিদ আহমেদ: [২] পুলিশের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত আজ শুক্রবার এ আদেশ দেন।

[৩] আদালত সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, রাজধানীর মোহাম্মদপুরের বছিলা থেকে গ্রেপ্তার নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জেএমবির নেতা এমদাদুল হক ওরফে উজ্জ্বল মাস্টারকে মোহাম্মদপুর থানায় করা সন্ত্রাসবিরোধী আইনের মামলায় আদালতে হাজির করে ১০ দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার আবেদন করে পুলিশ। আদালত উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনে তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

[৪] পুলিশ জানায়, জঙ্গি নেতা এমদাদুলের বিরুদ্ধে মোহাম্মদপুর থানায় মোট তিনটি মামলা হয়েছে। একটি অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইনে, আরেকটি বিস্ফোরক নিয়ন্ত্রণ আইন এবং অপরটি সন্ত্রাসবিরোধী আইনে।

[৫] আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা বলছেন, জেএমবির পুরোনো ধারার সদস্যদের একটা অংশ নতুন করে সংগঠিত হচ্ছে। শায়খ আবদুর রহমান ও বাংলা ভাইয়ের একসময়কার ঘনিষ্ঠ সহযোগী এমদাদুল হক ওরফে উজ্জ্বল মাস্টারের নেতৃত্বে এ অংশ বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলে সংগঠিত হচ্ছিল। এ জঙ্গিরা সংগঠনের তহবিল সংগ্রহের জন্য ডাকাতির পরিকল্পনাও করছিল। এমনই এক ডাকাতির প্রস্তুতিকালে গত শুক্রবার ভোরে ময়মনসিংহের খাগডহর এলাকা থেকে চার জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার রাজধানীর বছিলা এলাকার একটি বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয় এমদাদুলকে।

[৬] র‌্যাব সূত্র জানায়, এমদাদুল হক জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) প্রতিষ্ঠাতাকালীন সদস্য। তার সঙ্গে জেএমবির প্রতিষ্ঠাকালীন শীর্ষ নেতা শায়খ আবদুর রহমান ও সিদ্দিকুল ইসলাম ওরফে বাংলা ভাইয়ের সখ্য ছিল। সেই সময় এমদাদুল ময়মনসিংহ এলাকার জেএমবির আঞ্চলিক নেতা ছিলেন।

[৭] তবে সালাহউদ্দিন ওরফে সালেহিনের নেতৃত্বে জেএমবির বর্তমান নেতৃত্বের সঙ্গে তার বনিবনা কম হচ্ছিল। এ কারণে পুরোনো ধারায় জেএমবি সংগঠিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ৫০ জঙ্গিকে এক করার উদ্দেশ্যে কার্যক্রম শুরু করেন। এর মধ্যে ১১ জনের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন। তার মধ্যে পাঁচজন এরই মধ্যে র‌্যাবের হাতে ধরা পড়েছেন। সম্পাদনা : ভিকটর রোজারিও

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত