প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ভেড়ামারায় ভাঙন রোধে জিও ব্যাগ ব্যবহার

ইসমাইল হোসেন: [২] কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় পদ্মা নদীর ভাঙন রোধে উপকূলে ফেলা হচ্ছে বালুভর্তি জিও ব্যাগ। পানি উন্নয়ন বোর্ডের উদ্যোগে গত মঙ্গলবার দুপুর থেকে শুরু হয়েছে জিও ব্যাগ ফেলার কাজ, যা আজ ও চলছে। এ কার্যক্রম ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কমাবে বলে আশা করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

[৩] উল্লেখ্য, হঠাৎ করেই পদ্মার পানি বৃদ্ধির ফলে ভেড়ামারা উপজেলার জুনিয়াদহ-বাহাদুরপুর ইউনিয়নের রায়টার নতুন হাট, ফয়জুল্লাহপুর ও বাহিরচর ইউনিয়নের মসলেমপুরসহ কিছু এলাকায় ভাঙন দেখা দেয়।

[৪] ভাঙন দেখা দিলে ভাঙনকবলিত এলাকা পর্যবেক্ষণ ও পরিদর্শন করেন কুষ্টিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আফছার উদ্দিন, ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দীনেশ সরকার, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী  আক্তারুজ্জামান মিঠুসহ কুষ্টিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলীরা।

[৫] ১সেপ্টেম্বর বুধবার সকালে গিয়ে দেখা যায়, ভাঙন রোধে জিও ব্যাগ ফেলার কাজ চলছে। এ সময় উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রেকসোনা খাতুন তিনি জানান, সপ্তাহ খানেক আগে পদ্মার পানি বৃদ্ধির ফলে প্রবল ভাঙন শুরু হয়। ভাঙন ভয়াবহ আকার ধারণ করার আগেই জিও ব্যাগ ফেলা হচ্ছে।

[৬] কুষ্টিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, নদী ভাঙনকবলিত রায়টা-ফয়জুল্লাহপুর এলাকায় অস্থায়ী জরুরি কাজ হিসাবে ৫৫ মিটার করে ১১০ মিটার এলাকায় জিও ব্যাগ ফেলা হচ্ছে। প্রায় সাড়ে ১২ হাজার জিও ব্যাগ এ দুটি জায়গায় ফেলা হবে। জিও ব্যাগ ড্যাম্পিং এ কাজে ব্যয় হচ্ছে প্রায় ৫০ লাখ টাকা।

[৭] এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দীনেশ সরকার বলেন, ‘ভাঙনকবলিত এলাকা একাধিকবার পরিদর্শন করা হয়েছে। ইতিমধ্যে দুটি ভাঙন এলাকায় জিও ব্যাগ ফেলার কাজ চলছে।

[৮] কুষ্টিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আফছার উদ্দিন বলেন, ‘উপজেলার পদ্মানদীর ভাঙনকবলিত এলাকায় নিয়মিত পরিদর্শন ও পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে দুটি জায়গায় জিও ব্যাগ ফেলা শুরু হয়েছে। এ ছাড়া আরও কিছু ভাঙনকবলিত এলাকা চিহ্নিত করা হয়েছে, সেখানেও জিও ব্যাগ ফেলা হবে। সম্পাদনা: সঞ্চয় বিশ্বাস

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত