প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বিশ্বকাপের কোনো সদস্য না থাকায় বাংলাদেশ সিরিজ নিউজিল্যান্ডের জন্য লক্ষ্যহীন মঞ্চ, বললেন হামিশ

স্পোর্টস ডেস্ক: [২] ২০১০ সালে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে বাংলাদেশে এসে নাস্তানাবুদ হয়েছিল নিউজিল্যান্ড। এক ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়ার পরও সেবার ৪-০ তে হোয়াটওয়াশ হয়েছিল তারা। সেই সিরিজেই অভিষেক হয় পেসার হামিশ বেনেটের। এক দশকের বেশি সময় পর আরেকটি বাংলাদেশ সফরে এসেছেন ৩৪ পেরুনো এই পেসার।

[৩] বিশ্বকাপ স্কোয়াডের কোন সদস্য না থাকায় এই সিরিজ কিউই ক্রিকেটারদের জন্য অনেকটা লক্ষ্যহীন মঞ্চ। তবে হামিশ মনে করেন, এই দেশের কঠিন কন্ডিশনে জেতার চ্যালেঞ্জ থেকে খুঁজতে পারেন প্রেরণা।

[৪] মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) দুপুরে বাংলাদেশে এসেই হোটেলে কোয়ারেন্টিনে চলে গেছে নিউজিল্যান্ড দল। এর আগে গত শুক্রবার বাংলাদেশে আলাদাভাবে আসেন কিউই আরও দুই ক্রিকেটার কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম আর ফিন অ্যালেন। মঙ্গলবারই জানা যায় ফিন অ্যালেন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তবে হামিশ জানিয়েছেন, অ্যালেনের অবস্থা এখন অনেকটা ভালোর দিকে। এদিকে দলের বাকি সবার কোভিড-১৯ রিপোর্ট নেগেটিভ আসায় আপাতত স্বস্তিতে তারা।

[৫] কিন্তু এই স্বস্তি হয়ত দূর হয়ে যাবে সিরিজ শুরু হয়ে গেলে। বাংলাদেশে মন্থর ও টার্নিং উইকেটে বড় পরীক্ষা দিতে হবে তাদের। কিন্তু এই সিরিজ খেলতে নিউজিল্যান্ডের এই দলের ক্রিকেটারদের অনুপ্রেরণা আসলে কি? কেউই বিশ্বকাপ দলে নেই। বিশ্বকাপের প্রস্তুতি বা দলে সুযোগ পাওয়ার ব্যাপারও নেই।

[৬] বুধবার (২৫ জুলাই) সকালে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে হামিশ জানান, উপমহাদেশে ভালো করার চ্যালেঞ্জটা নিয়ে দেখাতে পারেন তারা, এই বয়েসে আমি নিউজিল্যান্ডের হয়ে খেলতে চাইব। বিশ্বকাপ দলে থাকতে না পারাটা হতাশার। আমি নিশ্চিত সব খেলোয়াড়ই এটা যায়। কাজেই আমিই একমাত্র না যে হতাশ। কিন্তু এটা একটা সুযোগ উপমহাদেশে নিজের সামর্থ্য প্রমাণের। নিজের কাজটা করে রাখতে পারি। যদি মূল দলে কোন চোট বা অন্য কোন সমস্যা হয়, তখন সুযোগ মিলতে পারে। সেরকম হলে নামটা উপরের দিকে থাকবে ডাক পাওয়ার জন্য।

[৭] মূল ক্রিকেটারদের মতো মূল কোচিং স্টাফদেরও বাংলাদেশে পাঠায়নি নিউজিল্যান্ড। প্রধান কোচ গ্যারি স্টেড, সহকারি কোচ শেন জার্গেনসন আসেননি। বাংলাদেশ সফরে দায়িত্ব পালন করবেন গ্লেন পকন্যাল, গ্রায়েম অ্যাল্ডরিজ, থিলান সামারাবিরারা।

[৮] এর আগে মূল স্কোয়াড নিয়ে এসেও বাংলাদেশের কন্ডিশনে হারতে হয়েছিল। হামিশ মনে করেন সেই হারটাই এবার হতে পারে মূল অনুপ্রেরণার জায়গা, এটা একটা ভিন্ন দল ভিন্ন কোচিং স্টাফ এসেছে। আমরা দল হিসেবে দেশের জন্য খেলতে চাই। বাংলাদেশে আমি আগেও এসেছি, সেবার আমরা ৪-০ ব্যবধানে হেরেছিলাম। আমাদের এখানে খুব বেশি সফলতা নেই। এটাই আমাদের জন্য বিশাল অনুপ্রেরণার জায়গায়। যদি ভালো করতে পারি তাহলে নিউজিল্যান্ড ফিরে বলতে পারব বাংলাদেশে আমরা একটা সিরিজ জিতে এসেছি। আপনি দেখেন অস্ট্রেলিয়া বা অন্য বড় দলের বাংলাদেশে কেমন সংগ্রাম করতে হয়েছে।

সর্বাধিক পঠিত