প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মাসুদ রানা: আফগানদের চমৎকার ইংরেজি-বলা প্রসঙ্গে

মাসুদ রানা: কিছুদিন আগে আমি পাঁচ-সদস্যের একটি আফগান পরিবারকে তাদের ব্রিটিশ পাসপৌর্ট প্রাপ্তির এ্যাপ্লিকেইশনে স্বাক্ষর করে সহায়তা করেছি। শিক্ষক হিসেবে আমি বেশ কটি আফগান পরিবারকে চিনি অনেক দিন ধরে। আমার কাছে এদের চেহারা, পোশাক, কথাবার্তা, আচরণ সবকিছুইতে অনেক এশীয় জাতির লোকদের চেয়ে উল্লেখযোগ্যভাবে উন্নততর বলে মনে হয়েছে। আমি মনে করতাম, যে-আফগান পরিবারগুলোকে আমি দেখেছি, তারা হয়তো আফগানিস্তানের উচ্চ সাংস্কৃতিক ক্যাটেগোরি থেকে এসে থাকবে। কিন্তু গত বেশ কিছুদিন ধরে বিশ্বের বিভিন্ন সংবাদ-মাধ্যমে যে-সকল আফগান নর-নারীর স্বাক্ষাতকার দেখেছি ও শুনেছি এবং এগুলোতে তাদের যে-ইংরেজি উচ্চারণ ও ইণ্টোনেইশন, টু-দ্যা পয়েণ্ট কথা বলা ও আর্গ্যুমেণ্ট লক্ষ করেছি, তাতে আমি সত্যিই বিস্মিত। সন্দেহ নেই যে, ভারতীয় উপমহাদেশের ইংরেজি-শিক্ষিত লোকদের চেয়ে অনেক-অনেক উচ্চমানের।

আফগানদের এ-উচ্চমানের একটি প্রাচীন ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট আছে, যা খ্রিষ্টপূর্ব-কালের দিগ্বিজয়ী বীর আলেক্সজাÐারের আসা ও মিশে যাওয়ার পূর্বকাল পর্যন্ত বিস্তৃত। যাহোক, গত চল্লিশ বছরে প্রথম সোভিয়েত এবং গত বিশ বছরে এ্যামেরিকা-ব্রিটেইইনের উপস্থিতি ও তাদের সাথে সংশ্লিষ্টতা, মিথষ্ক্রিয়া করার মধ্য দিয়ে আফগানদের একটি বিশাল নাগরিক অংশ ইংরেজিভাষাটা দারুণ রপ্ত করেছে।

ইংরেজি-ভাষী এ্যামেরিকান-ব্রিটিশদের সাথে সামরিক, প্রশাসনিক, অর্থনৈতিক, বাণিজ্যিক, শৈক্ষিক, সাংস্কৃতিক ও বিভিন্ন পারিষেবিক ক্ষেত্রে কাজ করার মধ্য দিয়ে নাগরিক-আফগানগণ যা আয়ত্ত করেছে, তা সামগ্রিকভাবে সমগ্র আফগান জনগণের অভিজ্ঞতা, দক্ষতা ও প্রত্যাশা বাড়িয়ে দিয়েছে। আমার, ধারণা বর্তমান যুদ্ধ-পরবর্তী কালে আফগানিস্তানে জাতিগঠন প্রক্রিয়া সফলভাবে সম্পন্ন হওয়ার পর শান্তি প্রতিষ্ঠা হলে তারা এশীয় অনেক জাতির চেয়ে একটি উন্নতর সমাজ ও জীবন লাভ করবে।

বর্তমানে অতি অনিশ্চত ও তরল হলেও, দৃশ্যমান রাজনৈতিক চালচিত্র থেকে মনে হচ্ছে, সকল নৃগোষ্ঠীকে সংযুক্ত করে একটি ইনক্লুসিভ রাষ্ট্র-কাঠামো গঠনের বিষয়টি বিশ্বব্যাপী ও সমগ্র আফগানিস্তান জুড়ে একটি অপরিহার্য্য বিষয় হিসেবে আবির্ভুত হয়েছে। আমার ধারণা, বর্তমান সঙ্কট মোকাবিলা করে আফগানরা যদি একটি অভিন্ন জাতিগত আত্মপরিচয় নিয়ে উঠে দাঁড়াতে পারে, তারা ভারতীয় উপমহাদেশের সব ক’টি দেশের চেয়ে একটি উন্নততর অবস্থানে উন্নীত হবে। ২৩/০৮/২০২১। লণ্ডন, ইংল্যাণ্ড

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত