প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাংলাদেশ ব্যাংকের বোর্ড সভায় সিদ্ধান্ত, পর্যটন খাতের জন্য আরো ৫০০ কোটি টাকার স্কিম গঠন

নিউজ ডেস্ক: পর্যটন খাতের কর্মচারীদের বেতন পরিশোধে আরো ৫০০ কোটি টাকার পুনঃ অর্থায়ন স্কিম গঠন করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এর আগে পর্যটন খাতের হোটেল-মোটেল ও থিম পার্কের কর্মচারীদের বেতন-ভাতা পরিশোধের জন্য ৮ শতাংশ সুদে ১ হাজার কোটি টাকার স্কিম গঠন করা হয়। সব মিলিয়ে এ খাতে ঋণ দেওয়ার জন্য দেড় হাজার কোটি টাকার পুনঃ অর্থায়ন স্কিম গঠন সম্পন্ন হলো। তবে মোট সুদের ৪ শতাংশ দেবে সরকার এবং বাকি ৪ শতাংশ গ্রাহকদের দিতে হবে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ৪১৭তম বোর্ড সভায় এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের পর্ষদ। গতকাল বোর্ড সভা শেষে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম।

এছাড়া, রাষ্ট্রায়ত্ত অগ্রণীসহ বেসরকারি আরো দুই ব্যাংককে তথ্য গোপনের জরিমানা মওকুফ নাকচ করে দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তিন গ্রাহকের ঋণ মানের তথ্য গোপন করায় জরিমানা করা হয়েছিল অগ্রণী ব্যাংককে। একই অপরাধে মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক এবং ওয়ান ব্যাংককেও জরিমানা করা হয়েছে।

করোনা মোকাবিলায় ইতিমধ্যে নেওয়া প্রণোদনা প্যাকেজগুলোর সফল বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে কঠোর নজরদারি বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। চলতি বছরের মুদ্রানীতিতেও বেশ কিছু নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে। এর মধ্যে রয়েছে কৃষি, সিএমএসএমই, বৃহত্ শিল্প, রপ্তানিমুখী শিল্প ও সেবা খাতের জন্য ইতিমধ্যে নেওয়া পুনঃ অর্থায়ন স্কিম বর্ধিতকরণের পাশাপাশি অধিকতর ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী, পরিবহন শ্রমিক, হোটেল ও রেস্টুরেন্ট কর্মচারী এবং বেসরকারি শিক্ষাখাতের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের জন্য বিশেষ পুনঃ অর্থায়ন স্কিম গঠন। নতুন উদ্যোক্তা ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতেও ঋণ দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে সরকারের পক্ষ থেকে।

বোর্ড সভা সূত্রে জানা গেছে, তাহেরা অ্যাপারেলস লিমিটেড, ইউনিক মেঘনাঘাট পাওয়ার লিমিটেড এবং রুপা শিপিং লাইনসের ঋণখেলাপির তথ্য গোপন করায় অগ্রণী ব্যাংককে জরিমানা করা হয়েছিল। অন্যদিকে, সিআইবি রিপোর্টে ঋণ তথ্য গোপন করার অভিযোগে মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেডের ওপর আরোপিত জরিমানাও মওকুফের করা হয়নি। এমটিবির গ্রাহক মামুন এন্টারপ্রাইজের ঋণ তথ্য গোপনের জন্য জরিমানা করা হয়। এদিকে প্রস্তাবিত ‘পিপলস ব্যাংক লিমিটেড’ এর অনুকূলে ইস্যুকৃত লেটার অব ইনটেন্টের শর্তাবলি পূরণের সময় বৃদ্ধির বিষয়ে আলোচনা হওয়ার কথা থাকলেও এ নিয়ে কোনো আলোচনা হয়নি বলে জানা গেছে। কোভিড-১৯ মহামারির কারণে সৃষ্ট আর্থিক সংকট মোকাবিলায় কৃষি খাতের জন্য দ্বিতীয় পর্যায়ে পুনঃ অর্থায়ন স্কিম গঠন করা হয়েছে। সূত্র: ইত্তেফাক

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত