প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] দেশ থেকে হত্যা-সন্ত্রাসের রাজনীতি চিরতরে নির্মূল করাই ২১ আগস্টের প্রত্যয়: তথ্যমন্ত্রী

সমীরণ রায়: [২] আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ আরো বলেন, ২০০৪ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার জ্ঞাতসারে তার পুত্র তারেক রহমানের প্রত্যক্ষ নির্দেশনায় আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করার উদ্দেশ্যে গ্রেনেড হামলা হয়েছে। এই হামলা পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু হত্যার ধারাবাহিকতা। ১৫ আগস্ট হত্যাকাণ্ডের সবচেয়ে বড় সুবিধাভোগী জিয়া পরিবারই তখন ক্ষমতায় ছিল। ক্ষমতা নিষ্কণ্টক করতে হাজার হাজার সেনাসদস্যকে হত্যা করে জিয়াউর রহমান। তিনিই এ দেশে হত্যার রাজনীতি শুরু করেন। খালেদা জিয়া তা অব্যাহত রাখেন।

[৩] তিনি বলেন, জিঘাংসার রাজনীতি উন্নয়ন-অগ্রগতির অন্যতম প্রধান অন্তরায়। প্রতিপক্ষকে হত্যা করে নির্মূল করতে হবে, এই রাজনীতি যারা করে, তারা রাজনৈতিক দুর্বৃত্ত। এই দুর্বৃত্তায়নের রাজনীতিটা করে বিএনপি ও জামায়াত।

[৪] মন্ত্রী বলেন, দেশে সত্যিকার অর্থে সুস্থধারার রাজনীতি প্রতিষ্ঠা করতে হলে যারা হত্যা-সন্ত্রাসের রাজনীতি, মানুষের ওপর পেট্রোলবোমা নিক্ষেপ ও মানুষকে জিম্মি করার রাজনীতি করে তাদের রাজনীতি বন্ধ হওয়া উচিত।

[৫] শনিবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উদ্যোগে ‘২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে ও আহতদের স্বাস্থ্যসেবা সুরক্ষা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

[৬] সভায় গ্রেনেড হামলায় রক্তাক্ত মানুষের কয়েকটি ছবি দেখান সংসদ সদস্য নাসিমা ফেরদৌসী।

[৭] বিএসএমএমইউ উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে এতে আরো বক্তব্য রাখেন ‘২১ আগস্ট বাংলাদেশ’ সংগঠনের সভাপতি অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, বিএসএমএমইউয়ের উপ-উপাচার্য ডা. ছায়েফ উদ্দিন আহমদ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হেদায়েতুল ইসলাম স্বপন প্রমুখ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত