প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মরিচ্যা যৌথ চেকপোস্টে তল্লাশীকালে ৬টি স্বর্ণের বারসহ আটক-২

কায়সার হামিদ মানিক: [২] কক্সবাজারের রামু মরিচ্যা যৌথ চেকপোস্টে তল্লাশীকালে প্রায় ১ কেজি ওজনের ৬টি স্বর্ণের বার উদ্ধার করেছে। চোরাকারবারে জড়িত থাকার অপরাধে ২ জনকে আটক করেছে বিজিবি।

[৩] ১৯ আগস্ট সকাল ১১টার দিকে মরিচ্যা যৌথ চেকপোস্টের তল্লাশী জোরদার করে স্বর্ণের বারসহ ২ জনকে আটক করে বিজিবির রামু ব্যাটালিয়ন। ৩০ বিজিবি’র অধিনায়ক জানিয়েছেন, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, চোরাচালানী চক্র বিপুল পরিমান স্বর্ণালংকার নিয়ে অবৈধভাবে মিয়ানমার হতে বাংলাদেশে প্রবেশ করে উখিয়ার মরিচ্যা যৌথ চেকপোস্ট অতিক্রম করতে পারে।

[৪] এ সময় একটি সিএনজি তল্লাশীকালে সিএনজি চালক এবং যাত্রীর আচরণ সন্দেজনক হওয়ায় তাদেরকে সিএনজি হতে নামানো হয়। প্রাথমিকভাবে যাত্রী মোঃ নুরুল আবছার খোকন (৩২), পিতা- মোঃ হাছন, গ্রাম-ঘুনারপাড়া, পোস্ট-বালুখালী, থানা-নাইক্ষ্যংছড়ি, জেলা-বান্দরবান (স্থায়ী ঠিকানাঃ গ্রাম-আশুলিয়া, পোস্ট-আশুলিয়া, থানা-সাভার, জেলা-ঢাকা) এবং চালক মুহাম্মদ মাঈন উদ্দিন (৩৪), পিতা-কুতুব উদ্দিন, গ্রাম-জাহাজপুরা, পোস্ট-জাহাজপুরা, থানা-টেকনাফ, জেলা-কক্সবাজার এর নিকট হতে কিছু পাওয়া যায়নি।

[৫] পরবর্তীতে সিএনজিটি পুঙ্খানুপুঙ্খরূপে তল্লাশী করা হলে সিএনজির স্টিয়ারিং বক্সের ভেতরে অভিনব কৌশলে কালো টেপ দিয়ে মোড়ানো অবস্থায় আনুমানিক ৬০ লক্ষ টাকা মুল্যের ৯৯৬.৫০ গ্রাম ওজনের ছয়টি স্বর্ণের বার উদ্ধার করা হয়। এছাড়া ৪ লক্ষ টাকা মূল্যের ০১টি সিএনজি এবং ২ হাজার টাকা মূল্যের ০২ টি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়। ওই সময় স্বর্ণের বারগুলোর প্রকৃত মালিক টেকনাফের চৌধুরীপাড়া এলাকার প্রদুল পালের ছেলে রিপন পাল (৩৩) বলে জানায় এবং তার নিকট মালামালের বৈধ কাগজপত্র আছে।

[৬] পরবর্তীতে রিপন পালকে আটককৃত স্বর্ণের ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে সে মালিকানা প্রত্যাখ্যান করে। কর/ভ্যাট ফাঁকি দিয়ে অবৈধভাবে সীমান্ত দিয়ে বর্ণিত স্বর্ণ চোরাচালানী কাজে জড়িত থাকায় উক্ত চোরাকারবারীকে আটক করতঃ রামু থানায় সোপর্দ করা হবে এবং তার নিকট হতে উদ্ধারকৃত স্বর্ণালংকার কক্সবাজার ট্রেজারী অফিসে জমা করার কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে বিজিবি সূত্রে জানা গেছে।

সর্বাধিক পঠিত