প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] কাবুলের পতন, ঘানির দেশত্যাগ, প্রেসিডেন্ট প্রাসাদ নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে যোদ্ধারা

আসিফুজ্জামান পৃথিল: [২] ১৫ আগস্ট সন্ধ্যা পর্যন্ত আফগানিস্তানের ৩৪৫টি জেলা ছিলো তালিবান নিয়ন্ত্রণে, ঘানি সরকারের হাতে ছিলো ১২টি আর ৪১টিতে লড়াই চলছিলো। অথচ ৯ জুলাই এই সংখ্যা ছিলো যথাক্রমে ৯০, ১৪১ ও ১৬৭টি। রোববার কাবুলকে চারদিক দিয়ে ঘিরে ফেলে আফগান বাহিনী। তালিবান হাইকমাণ্ডের নির্দেশে যোদ্ধারা শহরের ৪ প্রবেশপথে অবস্থান নেয়। এরপর প্রেসিডেন্ট ভবনে তালিবান প্রতিনিধিদের সঙ্গে সরকারের আলোচনা শুরু হয়। বিবিসি

[৩] আফগান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছে, আশরাফ ঘানি ও ভাইস প্রেসিডেন্ট তাজিকিস্তানের উদ্দেশে দেশ ছেড়েছেন।

[৪] কাবুলে অবস্থিত রাশিয়ার দূতাবাস জানিয়েছে, তালিবান সরকার গঠন করলে, আমরা তা মেনে নিতে প্রস্তুত।

[৫] নিজ যোদ্ধাদের যে কোনো ধরনের সহিংসতা থেকে দূরে থাকতে নির্দেশ দিয়েছে তালিবান। তারা নারীদের নিরাপদ স্থানে চলে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে। যোদ্ধাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে, কেউ কাবুল ছাড়তে চাইলে যেনো বাধা না আসে।

[৬] এদিকে কাবুল থেকে নিজ নাগরিক ও কূটনীতিবীদদের সরিয়ে নিচ্ছে বিভিন্ন দেশ। যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের আশেপাশের এলাকায় একের পর এক হেলিকপ্টার নামতে ও উঠতে দেখা গেছে। এগুলোর প্রায় সবই ছিলো ভারী পরিবহনের জন্য পরিচিত চিনুক হেলিকপ্টার। স্পেন জানিয়েছে, আকাশ পথে নাগরিক সরিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে কাজ চলছে।

[৭] তালিবান মুখপাত্র সুহাইল সাহিন জানিয়েছেন, তারা কয়েকদিনের মধ্যেই শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তরের আশা করছেন। তাদের নেতা নির্দেশ দিয়েছেন, সাধারণ আফগানদের জানমালের যেনো কোনো ক্ষতি না হয়। কেউ শহর ছাড়তে চাইলে অবশ্যই তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে।

[৮] রোববার (১৫ আগস্ট) সকালেই জালালাবাদ ও মাজার-ই-শরিফ দখলে নেয় তালিবানরা। ফলে সব গুরুত্বপূর্ণ শহরই তাদের করায়ত্তে চলে গেছে।

[৯] এক ছবিতে দেখা গেছে, প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে তালিবান প্রতিনিধিকে আলিঙ্গন করছেন আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি। এরপরেই ছড়িয়ে পড়ে তিনি দেশ ছাড়ছেন। সম্পাদনা: মিনহাজুল আবেদীন, মোহাম্মদ রকিব।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত