প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১]পদ্মফুলে ভরে উঠেছে নীলফামারীর সিংদই বিল

নীলফামারী প্রতিনিধি: [২] করোনায় চারদিকে শুধুই দুঃসংবাদ। এর মাঝে নীলফামারী জেলা সদরের একটি বিলে ফুটেছে হাজারো পদ্মফুল। বিলভর্তি পদ্মফুল দেখতে ভোরে ও বিকেলে ছুটে যাচ্ছেন স্থানীয়রা।

[৩] পদ্ম পাতার ফাঁকে সূর্যের সোনালি আভা পানিতে প্রতিফলিত হয়ে সৌন্দর্য বাড়িয়েছে কয়েকগুণ। নীলফামারী শহর থেকে ৬ কিলোমিটার দূরে ইটাখোলা ইউনিয়নের সিংদই গ্রামে। দিগন্ত বিস্তৃত জলরাশির স্নিগ্ধতা দর্শনার্থীদের মনে আনন্দের দোলা দিয়ে যায়। প্রাকৃতিকভাবে বেড়ে ওঠা লাল ও সাদা পদ্মফুল বিলের সৌন্দর্যকে বাড়িয়ে দিয়েছে। এ বিলে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ পাওয়া যায়। ডিঙ্গি নৌকায় ভেসে জলের ছন্দতালে পদ্মফুল স্পর্শ করার টানে প্রতিদিনই দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে আসছেন প্রকৃতিপ্রেমীরা।

[৪] ডিঙ্গি নৌকায় বিলে ঢুকলে মনে হবে যেন অভ্যর্থনা জানাচ্ছে পদ্মরা। নৌকায় করে পদ্মবিল ঘুরতে সময় লাগবে দুই থেকে তিন ঘণ্টা। যাতায়াত ব্যবস্থাও ভাল। মন ভোলানো দৃশ্য দেখলে মুগ্ধ হবেন যে কেউ। আবার অনেকে পরিবার-পরিজন নিয়ে পদ্মফুল দেখা আর একটু নির্মল বাতাস নিতে ছুটে আসছেন।

[৫] সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, সিংদই বিলের পাশ দিয়ে বয়ে গেছে তিস্তা সেচ ক্যানেল। বিলের স্বচ্ছ পানিতে হাত ভিজিয়ে সুখের অনুভূতি নিচ্ছেন হাজারো প্রকৃতিপ্রেমী। পরিবারের ছোট সদস্যদের জলজ উদ্ভিদ সম্পর্কে ধারণা দিচ্ছেন। কেউবা ছবি তোলায় ব্যস্ত।

[৬] পদ্ম বিলের সার্বিক দায়িত্বে থাকা তানজিম ওয়াসতি বলেন, পদ্ম ফুল রক্ষার জন্য আমরা জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত আবেদন করেছি।

[৭] ইটাখোলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাফিজুর রশিদ মঞ্জু বলেন, বিলের সৌন্দর্য সংরক্ষণের বিষয়ে আমরা মনোযোগ দেব। আমরা চাইব এই পদ্মবিল যেন নষ্ট না হয় সেই ব্যবস্থা করতে।

[৮] নীলফামারী জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী জানান, সিংদই পদ্মবিলটি সংরক্ষণ করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সম্পাদনা: জেরিন আহমেদ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত