প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] প্রচণ্ড তাপদাহে অতিষ্ঠ শেরপুরবাসী

তপু সরকার: [২] বুধবার বেলা তিনটায় শেরপুরে তাপমাত্রা ছিল ৩১ ডিগ্রি সেলসিয়াস জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে এই ঋতুতে প্রচণ্ড তাপদাহ ও গরমে জেলা সদরে একদিকে বাড়ছে করোনায় সংক্রমণ, মৃত্যু অন্যদিকে তাপমাত্রা বৃদ্ধিও কারণে অতিষ্ঠ সকল মানুষ। এছাড়াও চারিদিকে দেখা দিয়েছে রোগ বালাই।

[৩] এদিকে লকডাউন ও তীব্র গরমের কারণে বিপাকে পড়েছে খেটে খাওয়া মানুষগুলো।

[৪] ভুক্তভোগীরা জানান, দিনের বেলা তীব্র গরমের কারনে কষ্ট করলেও রাতের বেলা একটু শান্তি ঘুমাতে পারিনা।

[৫] এরমধ্যে জেলায় বেড়েছে লোডশেডিং এর সমস্যা। এ বিষয়ে জানতে জেলা বিদ্যুৎ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলীর সাথে কথা হলে তিনি জানান , আমাদের এখানে এখনো অনেক স্থানে পুরাতন ট্রান্সফরমার এবং লোডের তুলনায় গ্রাহক বেশি, এছাড়াও এখন লোকজন কম, করোনায় ৩ জনের মৃত্য হয়েছে এবং ঈদের পর লকডাউন দেওয়ায় এখনো তপু সরকার কর্মচারী-কর্মকর্তারা অফিসে আসতে পারছে না ।

[৬] দুপুরে জেলার কামারিয়া ইউনিয়নের খুনুয়া এলাকায় ব্রক্ষপুত্র নদীর পারে ছোট ছোট ছেলেদের গোছল এবং লুঙ্গি ফুলিয়ে নদীতে প্রচন্ড তাপদাহে ঠান্ডা অনুভব করছে ।

[৭] সদর উপজেলার বলায়েরচর ইউনিয়নের মুদি দোকানী মাসুদ মিয়া বলেন, প্রচণ্ড গরমের কারনে আমরা ঠিকমতো দোকানে বসে থাকতে পারছি না। এদিকে আবার লকডাউন চলছে পরিবার-পরিজন নিয়ে কষ্ট করছি। ভিমগন্জ আতিউর রহমান মডেল কলেজের ২য় বর্ষের ছাত্র নাঈম হাছান সকাল ৯ পর থেকে তীব্র রোদে আমরা বাসায় বসে থাকতে পারছি না ।

[৮] আর এই কারণে ছোট ছোট বাচ্চাদের ডায়রিয়া ,পাতলা পায়না ও পানি শুণ্যতায় রোগির সংখ্যাও বাড়ছে ।

[৯] এ বিষয়ে জেলা হাসপাতালে আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আর এম ও) ডা.মোবারক হোসেনের কথা হলে তিনি বলেন রোদের তাপ খুবই তীব্র। এজন্য সকলকে বিশুদ্ধ পানি পান করতে হবে। তিনি রাস্তার পাশে বিক্রি করা শরবত না পান করার পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, গরমের কারনে জ্বর বা অন্য কোনো রোগের লক্ষণ দেখা দিয়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

সর্বাধিক পঠিত