প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] লক্ষ্মীপুরে প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা

জহিরুল ইসলাম: [২] লক্ষ্মীপুরে প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। সেই সঙ্গে দীর্ঘ হচ্ছে মৃত্যুর সারি। ১০০ শয্যার লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল এখন করোনা রোগীর হাসপাতালে পরিণত হয়েছে। করোনা আক্রান্ত রোগী বেড়ে যাওয়ায় চিকিৎসাসেবা দিতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে চিকিৎসকদের। তবে চিকিৎসাসেবা ও করোনা রোগীদের অক্সিজেন সরবরাহ স্বাভাবিক রয়েছে বলে হাসপাতাল সূত্র নিশ্চিত করেছে।

[৩] সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্র জানায়, শুরু থেকে এ পর্যন্ত জেলায় ৪ হাজার ৮৬৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এরমধ্যে সদর উপজেলায় ২৯৩৮ জন, রায়পুরে ৫১৫ জন, রামগঞ্জে ৭১৩ জন, কমলনগরে ৩৮৩ জন ও রামগতিতে ৩১৯ জন। সুস্থ হয়েছেন ৩ হাজার ৫৭৭ জন। বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৩৫ জন। এর মধ্যে তিনজন সদর হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন রয়েছে। হোম আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ১১৮৭ জন। জেলার পাঁচটি উপজেলায় এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৬৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।

[৪] প্রতিদিনই লক্ষ্মীপুরে বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা। গত ২৪ ঘন্টার নতুন করে ২০৮টি নমুনা পরীক্ষায় জেলায় ৭০ জনের শরীরে ভাইরাসটির উপস্থিতি পাওয়া গেছে। তার মধ্যে সদর উপজেলায় ২৬ জন, রায়পুর উপজেলায় ২৪ জন, কমলনগর উপজেলায় ১১ জন ও রামগতি উপজেলায় ৯ জন। মঙ্গলবার দুপুরে সিভিল সার্জন ডা. আবদুল গফফার এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

[৫] এদিকে অন্যান্য উপজেলার তুলনায় করোনা পরীক্ষা, আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বিবেচনায় লক্ষ্মীপুর সদর অনেক এগিয়ে। এই উপজেলায় প্রতিদিন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা রোগী ও মৃত্যুর সংখ্যা। অন্যান্য উপজেলায় কিছুটা নিয়ন্ত্রণে থাকলেও সদরের অবস্থা নাজুক হয়ে উঠছে। এ নিয়ে সদর উপজেলার সর্বত্র আতঙ্ক বিরাজ করলেও সাধারণ মানুষের মাঝে রয়েছে উদাসীনতা। বর্তমানে এই উপজেলায় ‘ভয়ংকর’ হয়ে উঠেছে করোনা পরিস্থিতি।

[৬] এছাড়া ঈদের পর লক্ষ্মীপুরের প্রতিটি গ্রামে ছড়িয়ে পড়েছে করোনা উপসর্গের রোগী। আর এসব উপসর্গ নিয়ে স্থানীয় চিকিৎসকদের কাছ থেকে ওষুধ কিনে নিজের মতো করে চিকিৎসা নেয়ায় ঝুঁকি বাড়ছে সাধারণ মানুষের। দিন দিন রোগ পুষে রেখে একপর্যায়ে আশঙ্কাজনক অবস্থার সৃষ্টি হলে তখন তারা ছুটে যাচ্ছেন হাসপাতালে। তখন চিকিৎসকদের আর কিছুই করার থাকে না। তাই বিশেষজ্ঞদের অভিমত করোনা উপসর্গ দেখা দিলে চিকিৎসা কেন্দ্রে গিয়ে চিকিৎসকদের পরামর্শ ও করোনা পরীক্ষা করে করোনার বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।

[৭] খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, লক্ষ্মীপুরে করোনা রোগীদের সেবায় ১০০ শয্যা বিশিষ্ট সদর হাসপাতালে তিনটি আইসিইউ বেড, পাঁচটি হাই ফ্লো ন্যাজল ক্যানুলা রয়েছে। এছাড়া ২০টি অক্সিজেন কনসেনট্রেটরের মধ্যে সদর হাসপাতালে সাতটি, রামগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দুটি, কমলনগরে দুটি, রায়পুরে দুটি, রামগতিতে দুটি ও সিভিল সার্জনের অফিস স্টোরে পাঁচটি রয়েছে।

[৮] লক্ষ্মীপুর সিভিল সার্জন ডা. আবদুল গফফার বলেন, আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিনই বাড়ছে। এ জেলার জন্য এটি বিপজ্জনক। করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দিন দিন বাড়তে থাকায় উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি আরো বলেন, অবস্থা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সরকার ইতিমধ্যেই যথাযথ ব্যবস্থা নিচ্ছে। স্থানীয়দের মধ্যে সামাজিক সচেতনতা কম, এতে করে সংক্রমণ আরো বাড়তে পারে। সরকারি ব্যবস্থার সাথে সাথে নিজস্ব উদ্যোগে সবাইকে সচেতন হতে হবে। পাশাপাশি সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।

 

সর্বাধিক পঠিত