প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] আট সপ্তাহের ব্যবধানে দুই ডোজ টিকা নিলে সবচেয়ে ভালো অ্যান্টিবডি তৈরি হয়: গবেষণা

লিহান লিমা: [২] করোনার টিকার দুই ডোজের সময়ের ব্যবধান কতটা হওয়া উচিত এটি নিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে গবেষণা হচ্ছে। যুক্তরাজ্যের গবেষকেরা বলেছেন, ফাইজার-বায়োএনটেকের তৈরি টিকার দুই ডোজ প্রয়োগের মধ্যকার সময়ের ব্যবধান আট সপ্তাহ হলে তা সবচেয়ে ভালো কার্যকর। বিবিসি

[৩] এই ব্যবধান মানবদেহের যে মাত্রার রোগ প্রতিরোধব্যবস্থা তৈরি করে, তা অধিকমাত্রায় করোনা প্রতিরোধ করতে সক্ষম।

[৪] ২০২০ সালের শেষ দিকেই যুক্তরাজ্য ডোজ প্রদানের মধ্যবর্তী সময়ের ব্যবধান তিন সপ্তাহ থেকে বাড়িয়ে ১২ সপ্তাহ করেছে। সরকারের এই সিদ্ধান্তকে সমর্থন করছে নতুন এই গবেষণা।

[৫] নতুন এই গবেষণার জন্য যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগের পাঁচ শতাধিক কর্মীর নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এরমধ্যে একদল যারা ২০২০ সালের শেষ দিকে টিকা নিয়েছে এবং যারা ২০২১ সালের শুরুতে টিকা নিয়েছে, তাদের রোগ প্রতিরোধব্যবস্থা বিশ্লেষণ করা হয়েছে।

[৬] দেখা গেছে, যারা কম সময়ের ব্যবধানে টিকা নিয়েছে, তাদের তুলনায় যারা বেশি সময়ের ব্যবধানে টিকা নিয়েছে, তাদের প্রতিরোধব্যবস্থা শক্তিশালী। এ ছাড়া তিন সপ্তাহের ব্যবধানে টিকার ডোজ নেওয়া ব্যক্তিদের শরীরে খুব কম পরিমাণে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে।

[৭] অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকসুজানা ডুয়ানচি বলেন, ‘আট সপ্তাহ আমার কাছে ‘সুইট স্পট’ বা সুবিধাজনক সময় বলে মনে হয়। কারণ এই মুহূর্তে ডেল্টা ধরণের প্রকোপ বাড়ায় টিকা নেয়ার হার বেড়েছে। দূভার্গ্যবশত এই ভাইরাসের শেষও দেখতে পাচ্ছি না আমি। তাই ভারসাম্য করে টিকা নেয়ার মাধ্যমেই আপনি নিজেকে সর্বোচ্চ সুরক্ষা দিতে পারবেন’।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত