প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] তালেবানরা যুদ্ধবিরতিতে রাজি না হওয়ায় কাবুলের হতাশা, নাজরাবের পতন

রাশিদুল ইসলাম : [২] আফগানিস্তানের পূর্বাঞ্চলীয় কাপিসা প্রদেশের নাজরাব জেলা দখল করে নিয়ে তালেবান। কাপিসা প্রদেশের কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে আইআরআইবি জানিয়েছে, গত কয়েকদিন ধরে আফগান সেনাবাহিনীর সঙ্গে তীব্র সংঘর্ষের জের ধরে সোমবার নাজরাব জেলার পতন হয়।

[৩] তালেবান বর্তমানে আফগানিস্তানের ৪০০ জেলার মধ্যে ২০০ জেলার দখল নেয়ার দাবি করছে। কাবুল সরকার সোমবার ২৫ জেলার নিয়ন্ত্রণ তালেবানের কাছ থেকে পুনরুদ্ধারের দাবি করেছে।

[৪] আফগানিস্তানের দ্বিতীয় ভাইস প্রেসিডেন্ট সরওয়ার দানিশ বলেছেন, দোহা বৈঠক থেকে সুস্পষ্ট কোনো ফল বেরিয়ে আসেনি। কারাগারে আটক তালেবান সদস্যদের মুক্তি দিতে আফগান সরকার রাজি না হওয়ায় ওই বৈঠক কার্যত ভেস্তে যায়।

[৫] সরওয়ার দানিশ ঈদুল আজহা উপলক্ষে এক বাণীতে বলেন, “কয়েকটি দেশের মধ্যস্থতায় তালেবানের সঙ্গে দোহায় সম্প্রতি যে বৈঠক হয়েছে তা থেকে বোধগম্য কোনো ফল বেরিয়ে আসেনি।” তিনি বলেন, প্রায় এক বছর ধরে তালেবানের সঙ্গে আফগান সরকারের যে শান্তি আলোচনা চলছে তা সফল না হওয়ার পেছনে তালেবান গোষ্ঠী ও তাদের সমর্থকদের দ্বৈত আচরণই মূলত দায়ী।

[৬] আফগান ভাইস প্রেসিডেন্ট বলেন, তালেবান গোষ্ঠী এখন পর্যন্ত জনগণকে দেয়া একটি প্রতিশ্রুতিও রক্ষা করেনি। তিনি তালেবানকে গঠনমূলক ও অর্থবোধক আলোচনায় বসতে বাধ্য করার জন্য এই গোষ্ঠীর সমর্থকদের প্রতি আহ্বান জানান।

[৭] এদিকে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, আফগানিস্তানে জোর করে একটি সরকার চাপিয়ে দেয়ার চেষ্টা করলে সংকটের সমাধান হবে না এবং দেশটির সংকট তীব্র হলে পাকিস্তান ক্ষতিগ্রস্ত হবে। মার্কিন সরকারের আফগান বিষয়ক বিশেষ প্রতিনিধি জালমাই খালিলজাদ সোমবার ইসলামাবাদে ইমরান খানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

[৮] ইমরান খান বলেন, তার দেশ আফগানিস্তানে ব্যাপকভিত্তিক রাজনৈতিক আলোচনার মাধ্যমে একটি টেকসই শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। তিনি বলেন, আফগানিস্তানে সংঘর্ষ ও অস্থিতিশীলতা পাকিস্তানের স্বার্থ রক্ষা করবে না; কারণ, তাতে পাকিস্তানের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হবে। সামরিক উপায়ে আফগান সংকটের সমাধান করা যাবে না এবং বাইরে থেকে কোনো সরকার চাপিয়ে দেয়াও সমস্যা সমাধানের কোনো উপায় নয়। কেবলমাত্র আলোচনার মাধ্যমে অর্জিত সমঝোতাই পারে দেশটিকে চলমান সংকট থেকে মুক্তি দিতে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত