প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শওগাত আলী সাগর: কানাডাই হচ্ছে একমাত্র ধনী দেশ যারা গরিবদের কাছ থেকে হাত পেতে ভ্যাকসিন নিয়েছে

শওগাত আলী সাগর: ভ্যাকসিনের দৌঁড়ে পিছিয়ে পরা কানাডা কীভাবে এতোটা দ্রুততায় এগিয়ে এলো। জাস্টিন ট্রুডো প্রথম থেকেই বলেছিলেন- অক্টোবরের মধ্যে সবার জন্য ভ্যাকসিন নিশ্চিত করবেন। কিন্তু চীন কোনো ধরনের নোটিশ না দিয়েই ভ্যাকসিন আটকে দেয়ার পর ফাইজারের সরবরাহও যখন বন্ধ হয়ে যায়, কানাডা তখন রীতিমতো চোখে অন্ধকার দেখতে শুরু করে। চীনের ভ্যাকসিন কানাডায় উৎপাদনের সব প্রস্তুতি নেয়া হয়ে গিয়েছিলো ততোক্ষণে। ‘আমি তো বলেছি অক্টোবরের মধ্যে সবাই ভ্যাকসিন পাবে, অপেক্ষা করো।’- এই কথা বলে ট্রুডো যতোই আশ্বস্থ করার চেষ্টা করেছেন, জনমনে হতাশা ততোই বেড়েছে। এই সময়টায় সোচ্চার হয়ে ওঠে রাজনৈতিক দলগুলো। প্রধান বিরোধী দল কনজারভেটিভ পার্টি, এনডিপিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলো সংসদের ভেতরে, বাইরে ভ্যাকসিন নিয়ে এমন শোরগোল তুলে, মনে হচ্ছিলো ভ্যাকসিন না হলে কানাডা দেশ হিসেবেই টিকে থাকবে না। রাজনৈতিক দলগুলোর প্রবল চাপে মনে হচ্ছিলো ভ্যাকসিনের কারনেই ট্রুডো ক্ষমতা হারাচ্ছেন! বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর সেই চাপ সহ্য করা কঠিন ছিলো ট্রুডোর জন্য।

জনগণের কাছে জবাবদিহি আছে এমন যে কোনো সরকারের পক্ষেই সেই চাপ উপেক্ষা করা কঠিন। ট্রুডো পাগলের মতো ছুটতে থাকেন ভ্যাকসিন সংগ্রহে। দরিদ্র দেশগুলোতে ভ্যাকসিন সরবরাহের প্লাটফরম ‘কোভ্যাক্স’ এর কাছেও তিনি হাত পাতেন। কানাডাই হচ্ছে একমাত্র ধনী দেশ যারা গরিবদের কাছ থেকে হাত পেতে ভ্যাকসিন নিয়েছে। সেই কানাডা সিংহ ভাগ নাগরিককে ভ্যাকসিন দিয়ে ফেলেছে। ভ্যাকসিনের ওপর নির্ভর করে অর্থনীতি খুলে দেয়া শুরু করেছে। এবং সেটি তাদের ঘোষিত অক্টোবরের আগেই। কানাডার ভ্যাকসিন নিয়ে এই সাফল্যের জন্য আমি বিরোধী রাজনৈতিক দলকেও কৃতিত্ব দিতে চাই।বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো প্রবল চাপ তৈরি না করলে ট্রুডো হয় তো ‘অক্টোবর মাস’কে মাথায় রেখে এগুতেন। কিন্তু রাজনৈতিক চাপ যখন জনমতকে প্রভাবিত করতে শুরু করে, তখন সেই মতের প্রতি সত্যিকারের গণমুখী সরকারকে সাড়া দিতেই হয়। ভ্যাকসিনে কানাডার সাফল্যকে আমি জনগণের রাজনীতি তথা গণমুখী রাজনীতির সাফল্য হিসেবেই দেখি। লেখক: কানাডা প্রবাসী সাংবাদিক

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত