প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মাইক্রোসফটের জরুরি নিরাপত্তা সর্তকতা, দ্রুত পিসি আপডেট দেয়ার অনুরোধ

ওয়ালিউল্লাহ সিরাজ: [২] অপারেটিং সিস্টেম নিরাপত্তা গবেষকরা অপারেটিং সিস্টেমে গুরুতর দুর্বলতা শনাক্ত করার পর মাইক্রোসফট কর্তৃপক্ষ এই আহ্বান জানান। সিএনএন

[৩] প্রিন্ট নাইটমেয়ার হিসেবে পরিচিত প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা যা উইন্ডোস প্রিন্ট স্পুলার কার্যক্রমকে সচল রাখে। সাইবার সিকিউরিটি সংস্থা সেনসরি গবেষকরা দুর্ঘটনাক্রমে এর কার্যক্রমকে বাধাগ্রস্ত করতে কি করতে হবে এ ধরনের গাইডলাইন প্রকাশ করেছিল। মে মাসের শেষের দিকে এসে গবেষকরা এক টুইটার বার্তায় লেখেন, তারা প্রিন্ট স্পয়লারের মধ্যে কিছু সমস্যা দেখতে পাচ্ছেন। তা হচ্ছে একইসাথে একাধিক ব্যবহারকারীকে প্রিন্টার অ্যাক্সেস করতে দিচ্ছে। ভুলক্রমে তারা যে প্রুপ অফ কনসেপ্ট প্রকাশ করে ফেলেছিল তা খুব দ্রুতই তারা মুছেও ফেলেছিল কিন্তু ডেভলপার গ্রুপ গিটহাবসহ অনলাইন কিছু হ্যাকার গ্রুপ সংরক্ষণে রেখেছে।

[৪] মাইক্রোসফট সতর্ক করে বলছে, হ্যাকার গ্রুপ গুলো এই দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে যেকোন প্রোগ্রাম ইনস্টল করতে, দেখতে বা মুছে ফেলতে পারে। এমনকি মূল ব্যবহারকারীর মত নতুন অ্যাকাউন্ট তৈরিও করতে পারে। পিসির জন্য ক্ষতিকর এমন নির্দেশনা দেয়া ও নিয়ন্ত্রণ করতেও সক্ষম হবে হ্যাকাররা। উইন্ডোজ-১০ এই সমস্যা গুলোর সম্মুখীন হবে না কিন্তু উইন্ডোজ-৭ এর সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। উইন্ডোজ-৭ এর মত ১২ বছরের পুরনো অপারেটিং সিস্টেমের আর আপডেট না দেয়ার ঘোষণা দিলেও তারা একটি সংরক্ষণ ব্যবস্থা জারি রেখেছে যা প্রিন্ট নাইটমেয়ারের উপর নজর রাখে। উইন্ডোজ সার্ভার ২০১৬, উইন্ডোজ -১০ সংস্ককরণ ১৬০৭ এবং উইন্ডোজ সার্ভার ২০১২ এর আপডেট গুলো শীঘ্রই প্রকাশিত হবে।

[৫] এই আপডেটটা দেয়ার পর একটি সুখবর হচ্ছে আপডেটের কারণে পূর্ববর্তী সমস্যার সমাধান সহ পরবর্তী সুরক্ষামূলক ব্যবস্থা নিশ্চিত হবে। এজন্য মাইক্রোসফটের বিশেষভাবে অনুরোধ করছে ব্যবহারকারীরা যাতে খুব শীঘ্রই আপডেটটা করে নেন। গত দেড় বছরে বেশ কয়েকটা আপডেট সতর্কতার মধ্যে এটি সর্বশেষ। এর আগে মাইক্রোসফটকে তার উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমের একটি প্রধান ত্রুটি সম্পর্কে সতর্ক করা হয়েছিল যা হ্যাকারদের দখলে চলে গিয়েছিল এবং তারা তাদের নিজস্ব সফটওয়্যার হিসেবে তা ব্যবহার করে বিভিন্ন জনপ্রিয় ইমেইল এবং ক্যালেন্ডার সার্ভার গুলো নিজেদের আয়ত্তে নিয়েছে। উইন্ডোজ-১০ আসার প্রায় ৬ বছর পরে উইন্ডোজ-১১ বাজারে আসে। এটি এখন একটি বড় আপডেট যা এখন বিশ্বব্যাপি প্রায় ১.৩ বিলিয়ন ডিভাইসে চলছে। সম্পাদনা : রাশিদ

 

সর্বাধিক পঠিত