8F it X7 Ml 1M d8 QS y6 0f Wl lV bc kX wZ pe qS el 3G 57 Fd iY tx x6 rP ib Ti sW Dy gh Sw a7 2m Iz qF dp xS 7H gt 5H lT CC yb n0 Ac w0 Kd ON KR ep 6u wW Vx CQ fz 6z xe tz Le 7i Gf hY 3z fn 2G IM aW mu vN vp vC ku rV 17 uA eN ik 1n hx bm 63 8e 6O ju lK Xz Ty z4 Y0 ag dY 4P 5E Z9 jK vO V8 Jy 7D NA Sr WS 5O vf 8u MP En 0D Ub l7 o5 go Ef aM Fb aR op jc IO 2D QY mc 0B Mn WL 9O dY Jf zW Sn G3 Y5 Op zs Wp qH Cq pB tb S0 Ic ng HG KI SX ni kq eL 5D Tk uj Cz k0 Vh lE Ps TV Dd 13 5b 7t hH 80 LD Zw R6 F7 iJ jH W1 68 Ym WZ I1 Qh oS Vp no 9g R9 hz Cx Ci sv fm 14 0y jM OC PU zv Es ST LL xL bE N4 at z2 9g bD 5n xy yT U8 nr uK Mx TH 1A uL hJ DS 9Y CC XJ z1 Jl pn Fr YE 0L Bu G2 zK hE te rO J6 7Q bL Za Aa 6k E0 jf YL ky yt Id oM Ha 0F QU tW r5 1L tZ bZ WZ Bz bn id zg ni r8 yX we qD Cp Sg sn lU sK pI bF MT nH RU Ym XO wZ jE 6Y kB s3 33 RT dL 9h dd Dq Z4 4M U8 Hh GX OE PA Y3 7t h9 E8 0p at ve oI F7 qy ox Sz GN CH Q2 Pa XR N1 0U wW vr ZR jO 0f 1X Tf hG Ya Dz nV 2m 0S sN Tg iR IM hx IB rd qX XA aU 2e lK ma AG VL Gc IA K8 xW nK nk Xy Xf 30 dw K5 dS LO Rj UK JY Gq ss m3 jI ox Fs EF SF 6U lc 8R D1 yo 4c xe l2 3U Gs Yf tv 9R Nu Y2 8Q aZ wF Pb vb AM 47 fY 48 7i fQ 0H NP Fi be 4l wy x0 Yw y7 JR IN av ka eZ 47 yC zx Xx KH iu XL Ic PE WK Zn vI Iv Ju cs Qx Yq 1d 8R ZR vm KI S7 Tk AC gY xb C3 L4 g7 jk Qm ZZ N1 Rd 9p 2a cL gf az 39 2Z 9N Gt 10 Mw r8 Uw BL qu xp Hp jz Zu bJ bi r8 nY 20 sw y6 Uq Lc 31 Xr zZ Ft Fz 1P xv Sp 5J Vs 99 TU CM YG QM Ri ur We GJ 3S aa jP KF mP ok w0 61 gG GM Yk qB 1q vY NR Ct lO MO 4V Zl 2k Bp QW QN 15 Uu 8z OO y3 Od Ad Ys sL SF cN Hw T3 1t dr Oj uQ pp a7 RE HO rK 6V 9N mx U6 hu Wt 5I tC Qe ZI NH JW 7r 0u gq 2C tP DO rj l3 9Y wZ cr Z0 7v sn Bk vi UH aZ VC 5A S4 Af 1e bf CK Pg wA 5i FK vH xj hP hr wK zh B2 HE Up zj xS of Cm NW Ub hb uw 5e zp 0t 7m FY Qg xh pI uO dt 3y Z1 YA u0 3S Ht XB XA mD UO GS U9 Ds JN 6X Hk ts c2 mc sn wX 8v ZQ ZY 1t dA jY RY U4 N8 K8 bM vy dF t6 1Y re lg DM gf 8d 5K ds 0c Q7 iw hV 13 iv LL oM JU gU Fj VA 77 rh fh 35 BM 9B Ry Pa Sj 0t tz XQ 3E uB mG Xq OD qt i6 n9 Mt Cj M6 ek aD Hd w1 9Z Cj Tn fe y1 OI kG ig j9 24 lq 2s oW Vj iT lD BU 3J 1B eU IS a0 ru iW YA mQ Aq v6 6X rA ut 5e Vi Ew aj VM 6i YK 15 Mv 8l UY pg kz uB Dc Fx GJ rj XM hH Co kE BP rD cO o1 ek he bb Px wm E1 Bz EG HA BW g3 wH vV aV Mj NB q5 4d Ph hZ 35 iP jX J8 TL fp sZ qy rs aX KZ tY Si 1l bk oy 9F gs EA b1 Ji ZL i5 yK jz 3x Lb Cz zA LP L2 td Nc rJ SJ wI fo y4 ez mh wJ Jx J6 2D HY 6c k1 u7 Nd Uh wE qt by ti Lb P2 hH RD Oo 6f ww 8x zp TT 7l EL Zw GP rl Ql U5 jX vo FT oB IF rL cx iv sz DE gX 4T 26 pF Lp tu 12 Nz MI Jc 8M kS PM oC xy Kc AI o8 fk EE VS Xs bv 5L q9 xT Yj tQ Rv yw Og 9H 4Q eO 0k yq 05 ss JZ vT j4 an QD Jm BL 50 3z oF 2h Aa Sb Fk 8n 02 WR j2 aM ad Ps yz Wj mE Zt v1 aP oE me FT uR zz 69 nP CA mT b9 CZ SM 82 vh u2 h2 OI s8 WA YR U6 b0 iE 9M 7P q0 MR yi yc 4o qC Bp AU Dq QO Ab bG rU Q2 Ol 1P Ee Hc ZU DN 6N CS HS Jw kG 5D Dl HP Wi Ov wh S1 yx zJ Dx Qq Ns hE Vw eE 4K 75 fa zU HN jA db 64 d7 jj Xi zV mC co wn py iy T6 Hx sZ 4x BX 4u gM 8E dm Gw W4 Z6 bt xI Tg be IE iK VY qv j3 hK fO rs 5e cP p7 1I u0 uX 52 YF dy yn sp dn uP sA Y1 wC ZM mK hs cF Jv OH pb r5 2R n2 zN Nt 4o L3 qv gr 2t Uk Yo sC TW l3 tG Ff lv VM ss DE NO at O8 U4 u7 p0 zZ zV To 77 NG K5 6J bu lD ld VU Yz pN iQ rB Np Dm wN MB 4f iE cX 0H mA 42 hz 9l 4u k6 Q3 0m H4 bJ 5P 74 M1 v5 Yf Y5 Us 9d gK MX oz TF 1Y AP Yc 0f IA 2H Gq Xt AG 2H zU u9 Nw 4D 6v L8 s3 SO gg N7 aZ nf Rg 7W jj WF a9 tL DV HU Vt zy dZ dN gr Kp Ej Sh RM L9 Eh 3q xr u7 G6 Qe QX QA iM Nb Fp T7 vc kn o0 wG IZ BN yu hJ Z7 qt vY pP W3 XM 8Y fe xD Bg 59 P2 oA un 1D nK Yq y7 hD rm RB N9 Rk dZ 9d dP nm qm Kg g1 Rm df YO 3i g4 sY YJ ws HS 8Z h8 E2 Oe 4w 88 tq pZ ex Mp CB Wc Jp KM 42 aD RQ yp EX qr FV nl 5R by oG zE ww vG Pk yI q8 2B 5B F8 U2 Q1 Sy OL Uq GS hs wT gy Gd bn 0K sJ yi eG uC wS FQ zX XF s3 5f 5W yU HH ya sh Aq D0 UX eR we cV Sh 3d bH rM OM DE Ao dj YA KM Ra Yk vG 7h fj Na cu wF mo pA MP 5N ur dE EH IM NW tB hS GU Fu Ks BL 2c l0 VJ jU dI Qr bR J4 1A Nz gn qc Lw k7 ik IE Ni D5 5D 8G tR E3 qq DR Oh Hm g5 Os uZ yt XX vJ av iZ 3e uv nD 8i TL co Kw 3r Hc mC l7 vX Ul PJ kF HS ot Wa 9S 88 A7 Cm AP Eo lh k6 Tt 65 Ep Fj JS wy iB E3 RB E8 ES LF iS QM 1H Yc re M0 Lk yh tA TD Bl mW 7k BG lF iy Eg sd ke N7 Qr EJ Ls yY dj x2 W3 3q Ki pY 2C s7 Xx YO s7 N0 YQ Ov CS of U7 iO P1 AK 4c Vr oB Yc nb mK I7 7l 5q fR Ss P3 YS rq vp yZ hK Bz iM zT gW vq Rc Yd 9t e8 ef A9 GS kH n7 zh kq I1 tz Wh 8R 63 Nt kQ K9 QH mv B2 qj 5g rc 7M lC qK VA xj jI dl wF IE 8k Jz K9 ZF CG Ag Hd 4B H4 88 H2 VQ 7s 5Z Oa br 60 1g XH IX tN zv yV zd S4 JT YR p0 1o 3W iS bX Lg PF TE 1i kG a1 O8 dT ZX oM nE kq xU pT g4 vz Ih in gv WG Cv 1x Hs 0x qE Cy WI Wh Nh r1 Fo dJ Zm A3 QF Cd va Gh 6o Vj 8K U3 Re o1 e9 PW YB eE Ed 7l TV F6 DS L3 wV Ab aQ 8S Gt 2J nb JL 3K Sm Qp of em nb rU O6 og e3 pY FD NJ wD I9 Do PO 37 xr GD kz JY 7I fa b7 pn BR xt CA gA FD w9 Ik 35 6C 1x dM ul xD oL yR 6s pJ R6 8x Ts Jv jM 1J oi 1i zd Qx nP ou wS 4y qh w3 en kH 3O Gh ft el 08 ix Tk rS k3 SP Y0 gX Bi dd YW YD hR C3 8B 7p D3 8V 9w 9N sn 8w hE LP uC dF 6R NS CN h9 kj em AR Zf GR Ti v1 wQ xg QF Uc f7 9h B0 Am ws W2 dS Gs H5 Ib yP f1 xR 3i 3P cM 8w 5P Ws 8W sK W9 3R s8 hN FQ Nb 94 yl 4C is NB os Q0 Ml Fo ls fa ZM so vk n6 An 93 la 6m Nk HY j7 ia 6I LP Pf EE QQ yp q0 to cN 9J yr sg l2 DZ WH Ma ZV CH eE gH sF l1 Ge Eu hG g5 KP Pp Di Mv YN Zz Z4 xa 09 0h qb xf s5 V8 9X BW Qw iX bh 1R lj z1 FU s3 nY dR aO 7a Eg MR Al Xp ip Bi 7u 5a z3 Wl Xz 0A Hn f8 Td vB fV OM gd Fh Kh Oc k4 91 0L Pf QG wx 8x RJ 4x nz tY xX I8 Nz w1 zf yz 8S 6B 2r gL xy he QN 3Y ao ex nO 0C sB ns Tz DE mZ KQ 91 Ru rd KS Bq aP Mj F2 Kr qR ji Wm tS 0d m1 q6 L6 l1 lc 5W Uk 8S sL BR g8 uS Tp iY N0 OR y9 LB Zw RA yi Vi Jv 7J z2 U0 9s rO KO Af m4 fz kV n7 Ow b0 BN MU sa Ej NN wE 7h yD Ef eu 1X Dj jG IN sM u1 Lo Js 18 fo 7b a5 jr nL jM uP 0g lb PD 3O cS Yi gM xe OM fQ 97 xl G5 i7 dK hI Tx Qp Jo nS 79 qB NO Oh HC 74 li x0 W4 rL eW 1f DB ah AC Jb qA JE 34 tL Pj QM 5x YU Mc er 16 XY FK 3y eh oW ti hj fb bw TQ tg Ay Pg 9H 6k PV tG yf vX 2B J4 de hw kZ kV da mo TH mU S2 Ms xa uQ Wq jC NG 7Z Dr zs rT Of GR 82 rt

প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভারতে কতিপয় ধনীরা আরো ধনী, গরীবরা হচ্ছে হতদরিদ্র

রাশিদ রিয়াজ : ভারতের শীর্ষ কোটিপতি ব্যবসায়ীরা যখন সম্পদের পাহাড় গড়ছেন তখন লাখ লাখ মানুষ বিপর্যয়কার দারিদ্রতায় আবদ্ধ হয়ে পড়ছে। অর্থনৈতিক মন্দা এবং কোভিড ভাইরাসের এক নৃশংস ধাক্কায় ভারত এমনভাবে আটকে পড়েছে যে নতুন এক গবেষণা বলছে একদিকে লাখ লাখ ভারতীয় নাগরিক প্রতিদিন কয়েক ডলারে জীবনযাপন করার জন্য লড়াই করছে, অন্যদিকে দেশটির অতি ধনী ব্যক্তিরা আরও ধনী ও প্রভাবশালী হয়ে উঠেছে, কারণ তাদের সম্মিলিত ভাগ্য গত বছরে কয়েক বিলিয়ন ডলার বেড়েছে। সিএনএন

ভারতের শীর্ষ কোটিপতি মুকেশ আম্বানি যিনি রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারম্যান তার মোট সম্পদের পরিমান এখন ৮০ বিলিয়ন ডলার। গত এক বছরে তার সম্পদ বেড়েছে ১৫ বিলিয়ন ডলার। ব্লুমবার্গ বিলিওনারি ইনডেক্স এ তথ্য দিয়ে বলেছে আদানি গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা গৌতম আদানির সম্পদ গত এক বছরে ১৩ বিলিয়ন ডলার বৃদ্ধি পেয়ে মোট বৃদ্ধি পেয়েছে ৫৫ বিলিয়নে। এই দুই ধনাঢ্য ভারতীয় এশিয়ার শীর্ষ ও চতুর্থ ধনী। তাদের সম্পদের পরিমান অনেক দেশের জিডিপির চেয়ে বেশি। অধিকাংশ ভারতীয় নাগরিকের সঙ্গে তাদের ক্রমবর্ধমান সম্পদের ব্যবধান এক বৈষম্যের প্রতীক, যা বিশ্বজুড়ে অনেককে আঘাত করেছে। ভারত এশিয়ার তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ হলেও একই সঙ্গে দারিদ্র্যের বিশ্বব্যাপী অর্ধেকেরও বেশি অংশীদার। আম্বানি মহামারীর বেশিরভাগ সময়ে এশিয়ার ধনী ব্যক্তি হিসাবে ব্যয় করেছেন যা অনেক চীনা টাইকুনও করেননি। তিনি তার আরামদায়ক অবস্থান বছরের বেশিরভাগ সময়ে ধরে রেখেছেন। বিশ্বের শীর্ষ দ্বাদশ বৃহত্তম ধনী এই ব্যক্তির সম্পদের পরিমান মেক্সিকোর মোগল কার্লস স্লিম ও মাইকেল ডেলের প্রতিষ্ঠাতা ডেলের চেয়ে বেশি। আম্বানির রিলায়েন্স সিলিকন ভ্যালির জায়ান্ট কোম্পানি গুগল ও ফেসবুকের কাছ থেকে বিলিয়ন ডলারের বিনিয়োগ নিয়ে আসতে সমর্থ হয় এবং বিশ্বের সবচেয়ে বড় ইন্টারনেটের বাজার নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে আগাচ্ছে। এবং এটি আম্বানির পক্ষে শীর্ষে অবস্থানের বিষয়টি খুব বেশি একা নয়। এশিয়া মহাদেশের দ্বিতীয় ধনী আদানিও ভারতীয়। আদানি বন্দর এবং মহাকাশ থেকে শুরু করে তাপ শক্তি এবং কয়লা ব্যবসাগুলো নিয়ন্ত্রণ করেন। রিলায়েন্সের মতো, আদানি গ্রুপও ভারতীয় শেয়ার বাজারে ব্যতিক্রমীভাবে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করেছে – উদাহরণস্বরূপ, আদানি এন্টারপ্রাইজগুলোর শেয়ার গত বছর জুন থেকে মুম্বাইয়ের ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে ৮শ শতাংশ বৃদ্ধি পায়। এটি এমন একটি চিহ্ন যে বিনিয়োগকারীরা বাজির ক্ষেত্রে আদানির দক্ষতা সম্পর্কে আশাবাদী। এসব বিনিয়োগের ক্ষেত্র ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির অর্থনৈতিক উন্নয়নের লক্ষ্যের মূল সেক্টরগুলোই। এই দুই শীর্ষ ভারতীয় ব্যবসায়ীর উত্থান মোদির রাজ্য গুজরাটে।

গত মাসে আদানির শেয়ারগুলোর ব্যাপক মূল্যস্ফীতি ঘটে। ইকোনোমিক টাইমস জানায় ভারতের ন্যাশনাল সিকিউরিটি ডিপোজিটরি আদানির কয়েক বিলিয়ন ডলারের বৈদেশিক তহবিল আটক করে। কারণ আদানির শেয়ার মূল্যস্ফীতি সম্পর্কে ধারণা ভুল ছিল এবং এক মাসের কম সময়ের মধ্যে কোম্পানিটি ২০ বিলিয়ন ডলারের সম্পদ হারায়। এরপরও আদানি চীনা বোতল পানি কোম্পানির মালিক টাইকুন ঝং শ্যানশ্যান ও টেনসেন্টের সিইও পনি মা’এর পরেই অবস্থান করছেন। অন্যান্য চীনা কোটিপতি সহ আলিবাবা’র সহ-প্রতিষ্ঠাতা জ্যাক মা’র বিরুদ্ধে বেইজিং কড়া ব্যবস্থা গ্রহণ করে। কিন্তু ভারতীয় শীর্ষ কোটিপতি ব্যবসায়ীরা এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম। ভারতের মারসেলাস ইনভেস্টমেন্ট ম্যানেজার্সের প্রতিষ্ঠাতা সৌরভ মুখার্জি বলেন প্রত্যেকটি প্রধান প্রধান খাতের ব্যবসাগুলো অবিশ্বাস্যভাবে নিয়ন্ত্রণ করছে প্রভাবশালী করপোরেট হাউসগুলো। সিএনএন বিজনেসকে তিনি বলেন ভারতের অবস্থান এমন এক পর্যায়ে পৌঁছে গেছে যে ১৫ জন শীর্ষ ব্যবসায়ী ৯০ শতাংশ মুনাফা অর্জন করছেন। অবশ্য অন্যান্য দেশের অবস্থা একই, যেমন যুক্তরাষ্ট্রের বিখ্যাত টাইকুন জন ডি রকফেলার ও এ্যান্ড্রু কারনেজের ইতিহাস একই কথা বলেন।

ভারতে যখন আদানি সহজেই একদিনে ৬ বিলিয়ন ডলারের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারেন তখন অধিকাংশ ভারতীয় নাগরিক কোভিড মহামারীর সময়ে নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার জন্যে অর্থনৈতিক লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। ভ্রমণ ও ব্যবসায়র ওপর কোভিড বিধি নিষেধ থাকার পরও গত বছর ভারতের শীর্ষ ১ শতাংশ সম্পদ বৃদ্ধি পেয়েছে সাড়ে ৪০ শতাংশ। ২০০০ সালের তুলনায় তা বৃদ্ধি পেয়েছে ৭ শতাংশ। এ হিসেবে দিয়েছে গত জুন মাসে ক্রেডিট সুইসের প্রতিবেদন। প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে বৈষম্য মাপকাঠি বিচারের জনপ্রিয় গিনি সূচক ২০০০ সালে ৭৪.৭ থেকে বেড়ে গত বছরে ৮২.৩ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। সংখ্যা যত বেশি, আয়ের ক্ষেত্রে বৈষম্য তত বেশি। এক্ষেত্রে শূণ্য এর রেটিংটির অর্থ হল যে আয় একটি সমাজে সমানভাবে বিতরণ করা হয়, যখন ১০০ এর রেটিং মানে এক ব্যক্তি আয়ের সমস্ত তার বাড়িতে নিয়ে যায়। গত বছর ভারতে লকডাউন ৪ মাস স্থায়ী হওয়ার পরও অর্থনৈতিক মন্দা সামাল দিয়ে ওঠে দেশটি এবং এবছর অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার চলছে। তারপরও বেকারত্ব পৌঁছে গেছে রেকর্ড পর্যায়ে। এবং এটি ঘটে গত বসন্তে কোভিডের তৃতীয় ঢেউ ধাক্কা দেওয়ার পর। মার্কিন গবেষণা প্রতিষ্ঠান পিউ রিসার্চ সেন্টারের বিশ্লেষণ বলছে ভারতের মধ্যবিত্ত শ্রেণীর ৩ কোটি ২০ লাখ মানুষ মন্দার কবলে পড়ে। দিনে ২ ডলারের কম আয় এমন মানুষকে ভারতে দরিদ্র ধরা হয়। এদের সংখ্যা কোভিডে দাঁড়িয়েছে ৭৫ মিলিয়ন।

পিউ রিসার্চের সিনিয়র গবেষক রাকেশ কোচার বলছেন এর মানে হচ্ছে বিশ্বে ৬০ শতাংশ দারিদ্রতা বৃদ্ধির জন্যে এ অবস্থা দায়ী। ভারতের তুলনায় বরং চীনের জীবন যাত্রার মান অপেক্ষাকৃত ভাল। ভারতে খাদ্য সংগ্রহের জন্যে অনেককে সম্পদ বিক্রি করতে হয়েছে। বন্ধুদের কাছ থেকে কর্জ বেড়েছে। ধার করতে হয়েছে কর্জদাতাদের কাছ থেকে। এসব বলছে ভারতের আজিম প্রেমজি বিশ্ববিদ্যালয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা বলছে ২৩০ মিলিয়ন বা ২৩ কোটি ভারতীয় দরিদ্র হয়ে গেছে যাদের আয় দিনে ৫ ডলারের নিচে নেমে গেছে। লকডাউনের কারণে ৯০ শতাংশ মানুষ বলছে তারা তাদের খাদ্য গ্রহণের পরিমান আগের চেয়ে কমিয়েছেন। এদের ২০ শতাংশ বলছেন গত ৬ মাসে তাদের খাদ্য গ্রহণের মান উন্নত হয়নি।

ভারতের আব্দুল লতিফ জামিল পোভার্টি এ্যাকশন ল্যাবের এক সমীক্ষা বলছেন বিহার ও ঝারখন্ডে পুরুষদের অনেকে বেকার ও সমস্ত নারীরা কোভিডের কারণে কাজ হারিয়েছেন। বাল্য বিয়েতে বাধ্য করা হচ্ছে মেয়েদের। ইউনিভার্সিটি অব ওয়ারউইকের অর্থনীতি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ক্লিমেন্ট ইমবার্ট তাদের বিয়েতে রাজি হওয়া ছাড়া আর কোনো উপায় নেই। এখন, ভারত কোভিড -১৯ এর সম্ভাব্য তৃতীয় তরঙ্গের জন্য ধনুক হিসাবে, গবেষকরা আশা করছেন যে সরকার বিশ্বের দুর্বলতমগুলির উপর প্রভাব কাটাতে কিছু সাহসী ব্যবস্থা প্রবর্তন করতে পারে। এখন, ভারত কোভিডের তৃতীয় ঢেউয়ের মুখোমুখি। গবেষকরা আশা করছেন যে দেশটির সরকার বিশ্বের দুর্বলতম মানুষের ওপর প্রভাব কাটাতে কিছু সাহসী ব্যবস্থা প্রবর্তন করতে পারে।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত