প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] কোভিড পরিস্থিতিতে বন্দরে কন্টেইনার জট, বিদেশি ক্রেতাদের অর্ডার ধরে রাখতে বিপাকে রপ্তানিকারক

মিনহাজুল আবেদীন: [২] করোনায় সিডিউল পরির্তনের কারণে সিঙ্গাপুর ও কলম্বো বন্দরসহ এশিয়ার ট্রান্সশিপমেন্ট পোর্টগুলোতে জমেছে কন্টেইনারের স্তুপ। কন্টেইনারের সংকট ও জাহাজ নির্ধারণ না হওয়ায় বেসরকারি অফডকগুলোতে বাড়ছে রপ্তানি পণ্যের কন্টেইনারের সংখ্যা।

[৩] তথ্য মতে, দেশের ১৯টি বেসরকারি অফডকে কন্টেইনার ধারণ ক্ষমতা প্রায় ৭৭ হাজার ৭’শ টিইইউএস। বর্তমানে অফডকগুলোতে কনটেইনার আছে প্রায় ৬১ হাজার একশ টিইইউএস। যা ধারণ ক্ষমতার ৮৫ শতাংশ।

[৪] সোমবার ডিবিসি টিভির এক প্রতিবেদনে বাংলাদেশ ইনল্যান্ড কন্টেইনার ডিপোস এসোসিয়েশনের (বিকডা) সভাপতি নুরুল কাইউম খান বলেন, ট্রান্সশিপমেন্ট হয় তিন জায়গা থেকে। ওই জায়গাগুলোতে জট লাগার কারণেই এই সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। এই সমস্যার কারণে আমরাও পণ্য পাঠাতে পারছি না।

[৫] তিনি বলেন, আগে সপ্তাহে তিনটি মাদার ভেসেলের সিডিউল পাওয়া গেলেও এখন পাওয়া যাচ্ছে একটি। ফলে দেশের আমদানি-রপ্তানিতে জাহাজ ও কন্টেইনারের সংকট সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে সিডিউল দিতে না পারায় অনেক মেইন লাইন অপারেটর তাদের চার্জ বাড়িয়ে দিয়েছে।

[৬] বিজিএমইএ ও চট্টগ্রাম চেম্বার পরিচালক অঞ্জন শেখর দাশ বলেন, প্রেসার সৃষ্টি করে অ্যাডভান্স শিপিং অর্ডার নিয়ে হ্যান্ডওভার করা হয়েছে। যার কারণেই এই সমস্যা। বায়ারদেরকে চয়েজ করতে হবে ১৯ টা অফডকে তাদের সমানভাবে বন্টন করতে হবে। সম্পাদনা: মেহেদী হাসান

 

 

 

 

 

 

সর্বাধিক পঠিত