প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মোহাম্মদ এ হালিম: যে সমস্ত বিজ্ঞান গবেষণাগারের ৭০ থেকে ৯০ শতাংশ বিজ্ঞানীর ন্যূনতম গবেষণা প্রশিক্ষণ পিএইচডি নেই, তারা কীভাবে দেশের গবেষণাকে সামনে নিয়ে যাবেন!

মোহাম্মদ এ হালিম: যে সমস্ত বিজ্ঞান গবেষণাগারের ৭০ থেকে ৯০ শতাংশ বিজ্ঞানীর ন্যূনতম গবেষণা প্রশিক্ষণ পিএইচডি নেই, তারা কীভাবে দেশের গবেষণাকে সামনে নিয়ে যাবেন? যেখানে নিজেদের বেশির ভাগ সায়েন্টেফিক অফিসারের পিএইচডি ডিগ্রি নেই সেখানে অন্যদের জন্য ডক্টরাল ও পোস্ট-ডক্টরাল ফেলোশিপ দেওয়া অপচয় ছাড়া কিছুই নয়। আবার একটি প্রতিষ্ঠানের শতকরা ৭০-৯০ ভাগ সায়েন্টেফিক অফিসারদের ছুটি, বেতন ও বৃত্তি দিয়ে বাইরে পিএইচডি করানো সম্ভব নয়। আমরা সত্তর বছর আগের পলিসিকে ধরে রেখেছি। আমরা যে দেশের বিজ্ঞান গবেষণাকে ক্রমাগত অবনতির দিকে নিয়ে যাচ্ছি, তা বুঝতে ভীষণভাবে অক্ষম। পুরাতন পিলিসি নিয়ে অগ্রসর হলে আমরা দক্ষিণ এশিয়ায় তো দূরের কথা, আফ্রিকান দেশগুলোর সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিকতে পারবো কিনা তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। নীচে কিছু পদক্ষেত্র নিয়ে ভাবছি যা দেশের সার্বিক গবেষনা কালচারকে শক্তিশালী করতে পারে :

[১] সায়েন্টেফিক অফিসার পদে মাস্টার্স পাস করা ছাত্রদের নিয়োগ দ্রুত বন্ধ করতে হবে । [২] বিদেশ থেকে দক্ষ ও প্রশিক্ষিত পিএইচডি ও পোস্ট-ডক অভিজ্ঞতা সম্পন্ন বিজ্ঞানীদের সিনিয়র/প্রিন্সিপাল সাইন্টেফিক অফিসার হিসাবে নিয়োগের ব্যবস্হা করতে হবে। [৩] প্রিন্সিপাল/চিফ সায়েন্টেফিক অফিসার যাদের পিএইচডি ডিগ্রি নেই, গবেষণা দক্ষতা ও প্যাশন নেই তাদের স্বেচ্ছায় অবসরে পাঠানো যেতে পারে।

[৪] অতিদ্রুত আন্তর্জাতিক মানের ১০-১৫ জন চিফ সাইন্টিষ্ট নিয়োগ দেওয়া যেতে পারে। চিফ সায়েন্টিষ্টরা কোচ বা সুপারভাইজর হিসেবে তরুণ সায়েন্টেফিক অফিসারদের পিএইচডি প্রশিক্ষণ দেশেই দিবেন। সায়েন্টেফিক অফিসারদের পিএইচডি থিসিসের কাজ বিজ্ঞান গবেষণাগারে হবে কিন্তু থিসিস ডিফেন্স ও মূল্যায়নগুলো বিশ্ববিদ্যালয়ে হওয়া প্রয়োজন। থিসিস পরীক্ষক হিসাবে বিদেশি প্রফেসরদের দায়িত্ব দেওয়া যেতে পারে।
[৫] সেসমস্ত সাইন্টেফিক অফিসারদের পিএইচডি আছে এবং গবেষণা জন্য প্যাশন আছে তাদের দক্ষ ও প্রশিক্ষিত করতে এক/দুই বছরের জন্য বিশ্বের সেরা ল্যাবগুলোতে পোস্টডক করতে পাঠানোর ব্যবস্থা করতে হবে। [৬] জুনিয়র সেসমস্ত সায়েন্টেফিক অফিসারদের গবেষণার ব্যাপারে আগ্রহ নেই তাদের টেকনিক্যাল বা প্রশিক্ষক বা অফিসিয়াল কাজে ট্রান্সফার করা যেতে পারে ।

[৭] সায়েন্টেফিক অফিসারদের প্রমোশন সার্ভিস টাইমের ওপর না রেখে প্রমোশন তাদের গবেষণার মান, গবেষণা প্রজেক্ট তদারকি, ছাত্রদের সুপারভিশন, পাবলিকেশন, প্যাটেন্ট ও প্রোডাক্ট বাণিজ্যিকীকরণ ওপর হতে হবে। ফেসবুক থেকে

সর্বাধিক পঠিত