শিরোনাম

প্রকাশিত : ০৪ জুলাই, ২০২১, ০২:৪৯ দুপুর
আপডেট : ০৪ জুলাই, ২০২১, ০২:৫০ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

[১] সপ্তাহে তিন বিধিনিষেধকে পুঁজি করে জরুরি পণ্য সেবার আড়ালে মাদকদ্রব্য পরিবহন করলে কঠোর ব্যবস্থা: র‍্যাব

সুজন কৈরী: [২] করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকার ঘোষিত কঠোর বিধিনিষেধকে পুঁজি করে যারা মাদক ব্যবসা করছেন, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন র‍্যাব। রোববার দুপুরে রাজধানীর উত্তরা সোনারগাঁও জনপথ রোডের যমযম টাওয়ারে করোনার বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবিলায় র‍্যাবের নেওয়া পদক্ষেপ ও কার্যাবলি নিয়ে স্পট ব্রিফিংয়ে র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন এমন হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

[৩] তিনি বলেন, গোয়েন্দা তথ্যে জানা গেছে, কঠোর লকডাউনকে পুঁজি করে এক শ্রেণির অসাধু মাদক ব্যবসায়ী ও চোরাকারবারিরা ট্রাক-কাভার্ড ভ্যানে জরুরি পণ্য সেবার আড়ালে মাদক পরিবহন করছে। এমন তথ্যে শনিবার চট্টগ্রাম ও রংপুরে জরুরি পণ্যবাহী ট্রাকসহ বিপুল পরিমাণ ইয়াবা, গাঁজা ও ফেন্সিডিল উদ্ধার করা হয়। আটক করা হয় ৪ জনকে।

[৪] কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, যারা এই কঠোর লকডাউনকে পুঁজি করে মাদক চোরাকারবারি ও পরিবহন করছে তারাসহ ট্রাক চালক, হেলপারসহ সংশ্লিষ্ট সবার বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি আরও বলেন, সরকার ঘোষিত কঠোর বিধিনিষেধের আজ চতুর্থ দিন। শনিবার পর্যন্ত র‍্যাব সারা দেশে অভিযান চালিয়েছে। টহল জোরদার করা হয়েছে, চেকপোস্ট স্থাপন বেড়েছে। যারা বিধিনিষেধ অমান্য করেছে এমন প্রায় ৭ শতাধিক মানুষকে আইনের আওতায় আনা হয়েছে এবং প্রায় ৬ লাখেরও বেশি টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

[৫] র‌্যাব কর্মকর্তা বলেন, শনিবার আমরা বলেছি, যারা পাড়া-মহল্লাতেও জমায়েত করার চেষ্টা করছে তাদের বিরুদ্ধেও র‍্যাব অভিযান পরিচালনা করবে। শনিবার থেকেই র‍্যাব পাড়া-মহল্লায় অভিযান শুরু করে। পাড়া-মহল্লার ভেতরে জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা, মাইকিং এবং মাস্ক বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়া পাড়া-মহল্লার বিভিন্ন চায়ের দোকানে বসে অনেক লোককে চা খেতে দেখেছি। তাদের অনুরোধ করা হয়েছে বাসায় থাকার জন্য।

[৬] সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, গার্মেন্টসের মালিক ও শ্রমিকদের প্রতি অবশ্যই দৃষ্টি রেখেছি। তারা যেন সঠিকভাবে গার্মেন্টসে যেতে পারেন এবং কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারেন এই ব্যবস্থা আমরা সব সময়ই করছি। চেকপোস্টে সঠিক পরিচয় দিলে এবং গার্মেন্টসের কথা বললে আমরা তাদের ছেড়ে দিচ্ছি। তবে গার্মেন্টস মালিকদের অনুরোধ করবো তারা যেন গার্মেন্টসের কাছাকাছি থেকে কার্যক্রম পরিচালনা করেন। দূর থেকে যাতায়াত করলে ভোগান্তি হতে পারে।

  • সর্বশেষ