প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] স্টারলিঙ্ক ইন্টারনেট সেবায় ৩০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করবেন এলন মাস্ক

ওয়ালিউল্লাহ সিরাজ: [২] মার্কিন শীর্ষ কোটিপতি ও উদ্যোক্তা এলন মাস্ক টেলিকম শিল্পে বিনিয়োগের কথা ভাবছেন। তার এই বৈশ্বিক স্যাটেলাইট ইন্টারনেট উদ্যোগটির মাধ্যমে প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষ এমনকি বিদ্যুৎবিহীন মানুষরাও সেবা পাবেন। এই সেবা নিয়ে নেটওয়ার্ক পরিষেবা সরবরাহকারী কোম্পানির সঙ্গেও অংশীদারিত্বের বিষয়ে কথা বলা হবে। এলন মাস্ক আশা প্রকাশ করে বলেছেন, প্রথম বছরে ৫ লাখের বেশি মানুষ এই সেবার আওয়ায় আসবে। স্পুটনিক

[৩] মঙ্গলবার বার্সেলোনার মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেসে ক্যালিফোর্নিয়া থেকে এক জুম অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে স্পেসএক্সের সিইও বলেন, আশা করছি প্রথম বছরই টেলিকম শিল্পে আমরা ৫-১০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করবো।

[৪] এলন মাস্ক আরও বলেন, আপনি ধরে নিতে পারেন যে, স্টারলিং ফাইভ-জি এবং ফাইবারের মধ্যে সংযোজক হিসেবে কাজ করছে। যাদের সত্যিকারেই ব্রডব্যান্ড সেবা প্রয়োজন তাদের তিন থেকে পাঁচ শতাংশ গ্রাহকের কাছে পরিষেবা পৌঁছানো সত্যিই কঠিন হয়ে যাবে। একজন গ্রাহককে স্টারলিঙ্ক রিসিভার সরঞ্জামগুলোর সাথে ‘স্টিকের ইউএফও’ টার্মিনাল, ট্রিপড এবং ওয়াইফাই রাউটার জন্য প্রায় ৫শ ডলার খরচ করতে হয় এটা কোম্পানির জন্য ক্ষতিকর। কারণ কোম্পানি প্রতি সেটের জন্য প্রায় হাজার ডলার ব্যয় করে। নতুন এই প্রযুক্তির ফলে ব্যয় অনেকটাই কমে যাবে। যেমন ব্যয় নেমে আসবে ৫শ থেকে ২শ অথবা সাড়ে ৩শ ডলারে অথবা এর কাছাকাছি। খুব বেশি খরচ আর হবে না বলেই আশা করছি। আমাদের সেবা নিলে প্রতি মাসে একজন গ্রাহকের খরচ হবে মাত্র ১শ ডলার। সারা বিশ্বে এই একই মূল্য থাকবে।

[৫] যেসব গ্রাহক প্রত্যন্ত অঞ্চলে বসবাস করেন এবং পর্বতারোহী গ্রাহকগণ যেকানে বিদ্যুৎ নেই তারাও এই প্রযুক্তির মাধ্যমে ভাল সেবা পাবেন। তিনি বলেন, স্টারলিংক উপগ্রহগুলো পৃথিবীপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৩০০ মাইল বা ৫০০ কিলোমিটার উপরে ভূ- সিনক্রোনাস উপগ্রহের প্রদক্ষিণ করে যা স্থল বিন্দুর উপরের প্রদক্ষিণ করে ৬২১ মাইল বা ১ হাজার কিলোমিটার।

[৬] এলন মাস্ক বেশিরভাগ সময় বিনিয়োগে করেন নিজের প্রতিষ্ঠানেই। একবার তিনি নিজেই এ কথাই বলেছেন। ২০১৮ সালে তার প্রতিষ্ঠান দ্য বোরিং কোম্পানি ১১ কোটি ২৫ লাখ ডলার বিনিয়োগ পায়। এর ৯০ শতাংশ করেন এলন মাস্ক নিজে। ডিপমাইন্ড এবং নিউরোভিজিলের মতো বেশ কিছু নতুন প্রতিষ্ঠানে তিনি বিনিয়োগ করেছেন বলে এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তবে পরিমাণ জানা যায়নি। ২০১৫ সালে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা গবেষক প্রতিষ্ঠান ওপেনএআইয়ে ১শ কোটি ডলার দেওয়ার প্রতিজ্ঞা করেন মাস্কসহ আরও বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ী। সম্পাদনা : রাশিদ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত