প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] কামারখন্দে এক মাসে পাঁচ মাদক মামলা

মো.রাইসুল ইসলাম : [২] ২০১৯ সালের ৩১ মার্চ কামারখন্দ উপজেলাকে মাদকমুক্ত ঘোষণা করে উপজেলা প্রশাসন। মাদকমুক্ত ঘোষণার আগে নাটকীয়ভাবে উপজেলার বিভিন্ন মাদক ব্যবসায়ী ও সেবনকারীরা উপজেলা প্রশাসনের কাছে আত্মসমর্পণ করলেও মাদকমুক্ত ঘোষণার দুই বছর অতিক্রম হতে না হতেই উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বেড়েছে মাদক ব্যবসায়ী ও সেবনকারীদের উৎপাত।

[৩] সারা দেশের ন্যায় এ জেলাতেও মাদক নিয়ন্ত্রণে প্রশাসনের তৎপর রয়েছে। আর তারই ধারাবাহিকতায় সিরাজগঞ্জের কামারখন্দে জনু মাসেই হেরোইন, ইয়াবাসহ পাঁচটি মাদক মামলায় পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে কামারখন্দ থানার পুলিশ।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বিভিন্ন স্থানে বিশেষ অভিযান চালিয়ে মাদক সেবনকারী ও মাদক ব্যবসায়ীকদের আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়।

[৪] গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, উপজেলার লাহিড়ী বাড়ী এলাকার ছোরহাব আলীর ছেলে মো. মজনু ইসলাম (৩৮) তার কাছে থেলে ১০ পুরিয়া হেরোইন সহ তাকে গ্রেপ্তার করা হয়, যার বাজার মূল্য প্রায় ৬ হাজার টাকা। জামতৈল ধোপাকান্দি এলাকার মৃত করিম আলীর স্ত্রী মাজেদা বেগম (৫০) এর কাছ থেকে দুই গ্রাম হেরোইনসহ তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। যার বাজার মূল্য প্রায় ৬ হাজার টাকা।

[৫] ভদ্রঘাটের মাহমুদা কোলা এলাকার নুরুল ইসলামের ছেলে জহুরুল ইসলাম (৩৫) এর কাছে থেকে ১০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ তাকে গ্রেপ্তার করা হয় যার বাজার মূল্য প্রায় ২ হাজার টাকা। জামতৈল ধোপাকান্দি দুলাল হোসের ছেলে বুদ্দু মিয়া (৪০) ও একই এলাকার মৃত আজিম উদ্দিন এর ছেলে আকবার আলী (৪৮) এর কাছ থেলে ৫ গ্রাম হেরোইনসহ তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। যার বাজার মূল্য প্রায় ১৫০০ টাকা। ভদ্রঘাটের বিয়ারা এলাকার মৃত ছাত্তার মন্ডলের ছেলে আরিফুল ইসলাম (৩১) এর কাছে থেকে পাঁচ পুরিয়া হেরোইনসহ তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। যার বাজার মূল্য প্রায় ৩ হাজার টাকা।

[৬] কামারখন্দ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কে এম রাকিবুল হুদা বলেন, সিরাজগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার মহাদয়ের নির্দেশ মোতাবেক
থানায় নিয়মিত মাদক বিরোধী অভিযান চলছে। ইতি মধ্যে চলতি মাসে থানায় পাঁচটি মাদকের মামলা হয়েছে।

[৭] প্রতিটি বিটে পুলিশ অফিসারদের মাধ্যমে অভিযান পরিচালনা করার পাশাপাশি জনসচেতনতামুলক সভা করা হচ্ছে।মাদকের বিরুদ্ধে আমাদের জিরো টলারেন্স আছে।মাদকের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত আছে।

সর্বাধিক পঠিত