প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] প্রতিনিয়তই বাড়ছে পণ্যের দাম

শাহীন খন্দকার : [২] শক্রবার রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে গত সপ্তাহের চেয়ে আজ আটা, ময়দা, ডাল, পেঁয়াজ, আদা, হলুদ, এলাচ, সয়াবিন, মুরগি ও চিনির দাম বেড়েছে। এছাড়া বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে সবজি, মাংস ও ডিম। রাজধানীর বাজারগুলোতে ঘুরে এ তথ্য জানা গেছে। এছাড়া পেঁয়াজের দাম বেড়েছে আবারও। তবে দেশি পেঁয়াজ আগের মতোই ৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, গত সপ্তাহে যে আমদানি করা পেঁয়াজের দাম ছিল ৪৫ টাকা, এখন সেই পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা কেজি দরে। আর যে পেঁয়াজের দাম ছিল ৪০ টাকা, এখন সেই পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪৫ টাকা কেজি দরে। শাটডাউন হওয়ার খবরে পেঁয়াজসহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিষের দাম বাড়ছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা।

[৩] সরকারি বিপণন সংস্থা টিসিবির তথ্য বলছে, গত সপ্তাহে মসুর ডালের দাম ছিল ৮৫ টাকা কেজি। এই সপ্তাহে সেই মসুরের ডাল বিক্রি হচ্ছে ৯০ টাকা কেজি দরে। অর্থাৎ এক সপ্তাহের ব্যবধানে মসুর ডালের দাম বেড়েছে কেজিতে ৫ টাকা। বেশ কিছু দিন ধরে আটা-ময়দার দাম স্বাভাবিক থাকলেও হঠাৎ করেই দাম বেড়েছে। খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন, এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্যাকেটজাত আটার দাম বেড়েছে কেজিতে এক থেকে দুই টাকা, আর খোলা ময়দার দাম বেড়েছে কেজিতে চার থেকে পাঁচ টাকা।

[৪] গত কয়েক মাস ধরে অব্যাহতভাবে বেড়েই চলছে সয়াবিন তেলের দাম। গত সপ্তাহে ৬৬০ টাকায় বিক্রি হওয়া ৫ লিটার বোতল এই সপ্তাহে বিক্রি হচ্ছে ৬৮০ টাকা। অর্থাৎ এক সপ্তাহের ব্যবধানে দাম বেড়েছে ২০ টাকা। ব্রয়লার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা। লাল লেয়ার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৩০ থেকে ২৪০ টাকায়। আর সোনালি মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ২৩০ টাকায়।

[৫] রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, আমদানি করা আদার কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৬০ থেকে ১৮০ টাকা, যা এক সপ্তাহ আগে ছিল ১০০ থেকে ১২০ টাকার মধ্যে। মোহম্মদপুর কৃষি বাজারের ব্যবসায়ী আওলাদ হোসেন বলেন, ‘কোরবানির ঈদের আগে আদাসহ বিভিন্ন মসলার দাম বাড়ে। তারই অংশ হিসেবে এখন আদার দাম বেড়েছে। গত সপ্তাহে যে হলুদ ২০০ টাকা কেজি, এখন সেই হলুদের দাম ২২০ টাকা কেজি। ব্যবসায়ীরা বলছেন, কোরবানির ঈদ যত ঘনিয়ে আসছে গরমমশল্লার দাম ততই বাড়ছে। গত সপ্তাহে তারা যে এলাচ ৩ হাজার ২৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেছেন। এই সপ্তাহে সেই এলাচের দাম বেড়ে হয়েছে ৩ হাজার ৩৫০ টাকা।

[৬] গত সপ্তাহে প্রতি কেজি চিনি বিক্রি হয়েছিল ৭০ টাকা কেজি দরে। এখন সেই চিনি কেজিতে দুই টাকা বেড়ে ৭২-৭৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এদিকে গত সপ্তাহে দাম বাড়া আলু ও ডিমের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। আর ফার্মের মুরগির ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ১০৫ থেকে ১১০ টাকা। আগের মতোই দাম অপরিবর্তিত রয়েছে গরু ও খাসির মাংসের দাম। গরুর মাংসের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫৮০ থেকে ৬০০ টাকা। আর খাসির মাংসের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০০ থেকে ৯০০ টাকা।

[৭] এদিকে সবজি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, আগের মতো অপরিবর্তিত রয়েছে বেগুনের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৬০ টাকা। শসার কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা। পটলের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা। ঢেঁড়সের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা। বরবটি ৬০ থেকে ৭০ টাকা, গাজর ৮০ থেকে ১০০ টাকা, পাকা টমেটো ৮০ থেকে ১০০ টাকা, ঝিঙে ৪০ থেকে ৫০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। কাঁচকলার হালি বিক্রি হচ্ছে ৩৫ থেকে ৪০ টাকা। লাউয়ের প্রতিটি বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০ টাকা। এক কেজি কচুর লতি বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা। পেঁপের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা। কাঁচামরিচ কেজি ১২০ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে। সম্পাদনা: মেহেদী হাসান

সর্বাধিক পঠিত