প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আব্দুন নূর তুষার: বোট ক্লাব কী?

আব্দুন নূর তুষার: A boat club is a sports club serving boat owners, particularly those interested in rowing and yachting, but also kayaking, canoeing, motor boats and other small boats.এটাই আছে বোট ক্লাবের সংজ্ঞা হিসেবে অভিধানে ও বিশ্বকোষে।

এর অনুবাদ হলো বোট ক্লাব বা নৌযান ক্লাব হলো মূলত বাইচ, ইয়াটিং, কায়াকিং, ক্যানোয়িং, ছোট ও বড় যন্ত্রহীন ও যন্ত্রচালিত নৌযানের বিষয়ে আগ্রহী নৌযান মালিকদের ক্রীড়া ক্লাব। ঢাকা বোট ক্লাব নামক এই খুশীজল বিক্রয় ও বিপনন কেন্দ্রটিতে নৌযান মালিক কয়জন আর নৌযান নোঙ্গর করার কোনো ব্যবস্থা আছে কী? অবশ্য নৌকার দরকার কী? নেশার নৌকা নাকি পাহাড়তলী যায়। জলযান না হলেও চলে। আমি অনেক ভিডিও পেলাম ইউটিউবে, তাতে নানারকমভাবে খাওয়া ও ভবনের স্থাপত্য এবং নৈসর্গিক পরিবেশের ধারা বিবরনী আছে । নৌকা তো দূরের কথা কোনো বৈঠা বা লগির ছবিও নেই। অশিক্ষা থাকলে কেবল নাম ধার করা যায়, নামের সঙ্গে কাজটি করা যায় না। তাদের কাছে ক্লাব মানে মদ্যশালা, খুশীজল বিপণন। নইলে অভিজাতদের ক্লাব মানেই কেন সুস্বাদু স্যানিটাইজার পান করার আস্তাবল হয়ে যায়? এখানে কারা থাকেন পরিচালনার দায়িত্বে? বোটক্লাবের ওয়েব সাইটে গিয়ে দেখলাম এখানে পারটেক্স পরিবারের আধিক্য। এই ভাইয়েরা সকল ক্লাবেই আছেন বলে জানালো আমার এক বন্ধু।

কর্পোরেট সদস্য হিসাবে আছে সিটিব্যাংক, পারটেক্স গ্রুপ, শান্তা হোল্ডিংস আর নেটওয়ার্ল্ড নামে প্রতিষ্ঠানগুলো। কোথাও লেখা নেই মেম্বার হতে কী যোগ্যতা লাগে। তবে ফাউন্ডিং মেম্বার এক্সিকিউটিভ মেম্বারদের ছবি আছে ও নাম আছে। হুবহু একই বানী দিয়েছেন দাড়ি কমাসহ, ক্লাবের উপদেষ্টা ও সভাপতি দুজনেই আলাদা আলাদাভাবে। ওয়েবসাইটের বাকি সব আন্ডার কন্সট্রাকশন। জমিটা কার।

জানা যায় জমি সরকারি। সরকার এধরনের খুশীজল বিপণন ও বিনোদন করার জন্য জমি লীজ দেয়? যুগান্তর পত্রিকা বলছে, ঢাকা বোট ক্লাব কর্তৃক দখলকৃত জমির লিজ গ্রহীতা বিরুলিয়া এলাকার আতাউল্লাহ মাদবরের ছেলে সাইদুর রহমান সুজন। লিজ গ্রহীতা বাৎসরিক ইজারা মূল পরিশোধ করেছেন সাভার আমিনবাজার ভূমি অফিসে। নির্মাণ কাজ শুরু করার আগে লিজ বাতিল করা বা অন্য কোনো কাগজপত্র দেখাতে পারেনি ঢাকা বোট ক্লাব। সাভারের আমিনবাজার ভূমি অফিস সূত্রে জানা যায়, বড়কাকর মৌজার ৪৮ নং খতিয়ানের আর এস ১৩০, এসএ দাগ নং ৯৭২ এবং আর এস ১২৯৭ নং দাগের ০.৭০ একর জমির লীজ গ্রহীতার নাম সাইদুর রহমান সুজন মাতবর। এ ব্যাপারে আমিনবাজার সহকারি কমিশনার (ভূমি) হ্যাপি দাস যুগান্তরকে বলেন, তুরাগ পাড়ের ঢাকা বোট ক্লাবের জমিটি আমাদের না, তবে ওই প্রজেক্টের আশপাশের জমি আমাদের আওতাধীন। বোট ক্লাবকে তুরাগ পাড়ে জমি লিজ দেওয়া হয়েছে কিনা? জানতে চাইলে এই কর্মকর্তা কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। জমিটা তাহলে কার বা কাদের? অতএব [১] বোটক্লাবের জমির ঠিক নেই। [২] বোটক্লাবের মালিকানা কার?

[৩] বোটক্লাবে মদ বেচাকেনার লাইসেন্স আছে? নারকোটিকস কন্ট্রোলের ওয়েবসাইটে বার লাইসেন্সের অনলাইন আবেদন করার বাটনটা কাজ করে না। তাই তারা বলুক কবে কতো তারিখে তারা বোটক্লাবে মদ বেচার লাইসেন্স দিয়েছে? [৪] বোটক্লাবে সদস্য হতে বোট লাগে না। বোটের মালিক হতে হয় না। বোট ডকিং এর কোনো ব্যবস্থা নেই যদিও তারা বলেছেন ভবিষ্যতে এখানে নৌকা বেঁধে রাখা যাবে। [৫] বোটক্লাব অনুমোদিত সময়ের পরেও খোলা থাকে। লোকজনের প্রস্রাবের জায়গা নেই তাই তারা তাদের জন্য প্রস্রাব এর সহায়তা দেয়। বোট ছাড়া বোট ক্লাব করতে পারলে প্লেন ছাড়া ফ্লাইয়িং ক্লাব ও ঘোড়া ছাড়া পোলো ক্লাব খুলতে অসুবিধা কী? শুধু মদের লাইসেন্স আর কাবাব পরোটা থাকলেই তো হয়। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত