প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাজেট পাসের পর ১৩ পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি,  খেটে খাওয়া মানুষের নাভিশ্বাস

নিউজ ডেস্ক: করোনায় ভোক্তার আয় কমে ব্যয় বেড়েছে। এর মধ্যে আয়ের বেশির ভাগ টাকা খরচ হচ্ছে খাদ্যপণ্য কিনতে। তাই তাদের প্রত্যাশা ছিল ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটে পণ্যের দাম কমবে। সে মোতাবেক সরকারের পক্ষ থেকেও পণ্যের দাম বাড়ানো হয়নি। তবে বাজারে চিত্র পুরোই উল্টো। কর আরোপ না করলেও বাজেট প্রস্তাবের কয়েকদিনের ব্যবধানে চাল-ডাল থকে শুরু করে আটা-ময়দা, পেঁয়াজ, আদা, রসুন, ডিম ও শিশুখাদ্য গুঁড়াদুধসহ ১৩টি নিত্যপণ্যের দাম রীতিমতো লাগামহীন। এমন পরিস্থিতিতে ‘রীতিমতো মাথায় হাত’ নিম্ন আয় ও খেটে খাওয়া মানুষের।

অন্যদিকে বাজেট ঘোষণার পর মুড়ি, সাবান, সিলিন্ডার গ্যাস ইত্যাদি পণ্যের দাম কমার কথা থাকলেও কোনো পণ্যের দাম কমেনি বলে জানিয়েছন ব্যবসায়ীরা। তারা বলছেন, এগুলো আগের কেনা। ফলে আগের দামেই বিক্রি করছি। নতুন দামে যখন কিনব তখন নতুন দামে বিক্রি করব।

বৃহস্পতিবার সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) বলছে, গত এক মাসের ব্যবধানে ১৩ পণ্যের দাম বেড়েছে। মাসের ব্যবধানে প্রতিকেজি চাল সর্বোচ্চ ৩ দশমিক ৩৬ শতাংশ বেড়েছে। কেজিতে ময়দার দাম বেড়েছে ১ দশমিক ১৫ শতাংশ। ভোজ্যতেলের মধ্যে প্রতিলিটারে বেড়েছে সর্বোচ্চ ৮ দশমিক ১১ শতাংশ। প্রতিকেজি ডালের সর্বোচ্চ দাম বাড়ানো হয়েছে ১১ দশমিক ৭৬ শতাংশ। দেশি পেঁয়াজে মাসের ব্যবধানে দাম বাড়েছে কেজিতে ১৮ দশমিক শূন্য ৭ শতাংশ। রসুন মাসের ব্যবধানে ১১ দশমিক ১১ শতাংশ বাড়তি দরে বিক্রি হচ্ছে। আদার দাম কেজিতে বেড়েছে ১৩ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ, দারুচিনি ৪ দশমিক ৯৪, রুই মাছ ৯ দশমিক শূন্য ৯, গুঁড়াদুধ শূন্য দশমিক ৭৯ শতাংশ দাম বেড়েছে। এছাড়া মাসের ব্যবধানে প্রতিকেজি চিনির দাম বেড়েছে ৫ দশমিক শূন্য ৭ শতাংশ। প্রতিকেজি প্যাকেটজাত লবণের দাম বেড়েছে ৮ দশমিক ৮৮ শতাংশ। প্রতি হালি (চার পিস) ফার্মের ডিমের দাম বেড়েছে ১৫ শতাংশ।

জানতে চাইলে কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমান বলেন, বাজারে নিত্যপণ্যের দাম বাড়া একেবারেই অযৌক্তিক। কারণ বাজেটে নতুন করে পণ্যের ওপর কর আরোপ করা হয়নি। বরং কিছু পণ্যের দাম কমানো হয়েছে। তারপরও ক্রেতা বাজারে তার সুফল পাচ্ছে না। তাই বাজারের অসাধুদের রোধে কঠোর মনিটরিং করতে হবে। বাজার তদারকি সংস্থাগুলোকে আরও কার্যকর ভূমিকা পালন করতে হবে। পাশাপাশি বাজারে কিছু পণ্যের দাম বিশ্ববাজারে বাড়তির কারণে বেড়েছে। সেসব পণ্যের দাম কমাতে ও ভোক্তার ক্রয়ক্ষমতায় আনতে আমদানি ক্ষেত্রে সব ধরনের ভ্যাট ট্যাক্সমুক্ত করতে হবে। এতে পণ্যের দাম কমবে। ক্যাবের পক্ষ থেকে আমরা অর্থমন্ত্রীকে এই বার্তা দিতে চাই। বাজার তদারকি সংস্থা জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের উপ- পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার বলেন, বাজারে পণ্যের দাম ভোক্তা সহনীয় রাখতে প্রতিদিন রাজধানীসহ সারা দেশে তদারকি পরিচালনা করা হচ্ছে। পাইকারি দামের তুলনায় খুচরা বাজারে দামের তারতম্য যাচাই করা হচ্ছে। এ সময় অনিয়ম পেলেই আইনের আওতায় আনা হচ্ছে। কাউকেই ছাড় দেওয়া হচ্ছে না।

রাজধানীর কারওয়ান বাজার, মালিবাগ কাঁচাবাজার, নয়াবাজার ঘুরে ও খুচরা বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার খুচরা বাজারে প্রতিকেজি ভালো মানের মিনিকেট চাল বিক্রি হচ্ছে ৬৪-৬৫ টাকা। এই চাল বাজেটের আগে বা এক মাস আগে বিক্রি হয়েছে ৬০ থেকে ৬২ টাকা। একইভাবে প্রতিকেজি বি আর-২৮ চাল বিক্রি হচ্ছে ৫২-৫৪ টাকা, যা আগে বিক্রি হয়েছে ৪৮-৫০ টাকা। এছাড়া মোটা চালের মধ্যে স্বর্ণা জাতের চাল প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০-৫১ টাকা, যা আগে বিক্রি হয়েছে ৪৫-৪৬ টাকা। চালের দাম বাড়ার কারণ জানতে চাইলে কারওয়ান বাজারের আল্লাহর দান রাইস এজেন্সির মালিক সিদ্দিকুর রহমান বলেন, সরকারি গুদামে চাল নেই। সরকারের মজুত কমেছে। মিলাররা সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে চালের মৌসুমেও দাম বাড়াচ্ছে। পাশাপাশি বাজেটের অজুহাত দেখাচ্ছে। কিন্তু বাজেটে চালের দাম বাড়বে এমন কোনো প্রস্তাবনা আমরা লক্ষ করি নি। এটা তাদের কারসাজি।

নওগাঁ চালকল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ হোসেন চকদার বলেন, বাজারে চালের দাম বাড়ার একমাত্র কারণ হচ্ছে ধানের দাম বৃদ্ধি। বিগত বছরে কৃষকরা ধান ওঠানোর আগেই কাটাই-মাড়াই করে হাটে বিক্রি করত। কিন্তু এ বছর সামান্য পরিমাণ ধান হাটে বিক্রি মজুত করে রেখেছে। এতে চালের দাম বেড়েছে।

চালের পাশাপাশি বাজেট ঘোষণার পর নতুন করে বেড়েছে আটা ও ময়দার দাম। ৩২ কেজি দরে খোলা আটা বিক্রি হচ্ছে ৩৪ টাকা কেজিতে। বাজেটের আগে ৪০ টাকা দরে বিক্রি হওয়া প্যাকেট ময়দা বিক্রি হচ্ছে ৪৪ টাকা দরে। খোলা সয়াবিন তেলের কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৩২-১৩৩ টাকা, যা বাজেটের আগে বা এক মাস আগে ১২৬-১২৭ টাকায় বিক্রি হয়েছে। পাঁচ লিটারের বোতলজাত সয়াবিন বিক্রি হচ্ছে সর্বোচ্চ ৭৩০ টাকা, যা বাজেটের আগে ৬৮০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। রাজধানীর খুচরা বাজারে প্রতিকেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫৫-৬০ টাকা, যা এক মাস আগে ৫০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। পেঁয়াজের সঙ্গে কেজিপ্রতি আমদানি করা রসুন বিক্রি হচ্ছে ১৩০ টাকা, যা আগে ১২০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। ডালের মধ্যে ভালো মানের মসুর ডাল বিক্রি হচ্ছে ১১৫-১২০ টাকা কেজিতে। এক মাস আগে বিক্রি হয়েছে ১০০-১১০ টাকা। কেজিতে ৫ টাকা বেড়ে প্রতিকেজি আলু বিক্রি হচ্ছে ২৫ টাকা। প্রতিকেজি চিনি ৫ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৭৫ টাকা। প্রতিকেজি প্যাকেটজাত লবণ ৩ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৩৫ টাকা।

দাম বাড়ার কারণ জানতে চাইলে নয়াবাজারের মুদি বিক্রেতা মো. তুহিন বলেন, পাইকারি বাজারে পণ্যের দাম বাড়িয়েছে। যে কারণে বাড়তি দরে বিক্রি করতে হচ্ছে। তবে পাইকারি বাজারে পণ্যের সরবরাহের ঘাটতি নেই। তারপরও পাইকাররা বাড়তি দরে বিক্রি করছে। বিক্রেতারা বাজেটের অজুহাত খোঁজে। সরকার দাম না বাড়লেও সেটাই করেছে। ফলে খুচরা বাজারে বাড়তি দরেই বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছি। তবে কারওয়ান বাজারের পাইকারি বিক্রেতা মো. আলাউদ্দিন বলেন, পাইকারি বাজারে পণ্যের দাম বাড়েনি। বৃষ্টির কারণে সরবরাহ কমায় দাম বেড়েছিল। এখন তা আবার কমছে।

সূত্র: যুগান্তর

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত