প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ড. এমদাদুল হক : কর্মের মধ্যে তন্ময়তা থাকলে কর্মের সঙ্গে প্রেম মিশে যায়

ড. এমদাদুল হক : আপেল যেমন গাছ থেকে মাটিতে পড়ে, কখনো উপরের দিকে যায় না তেমনি কর্ম থেকে যথোপযুক্ত ফল উৎপন্ন হয়েই থাকে, কখনো এর ব্যতিক্রম হয় না। এটি প্রাকৃতিক বিধান। তাই কর্মফলে বিশ্বাস করার প্রয়োজন নেই। কর্মফলে বিশ্বাস করলে বরং কর্মের সঙ্গে স্বার্থপরতা ও অহং যুক্ত হয়ে বিভ্রান্তি অনিবার্য হয়ে ওঠে, অস্থিরতা দেখা দেয়, কর্ম সুসম্পন্ন হয় না। পরিণামে কর্মফলও ভালো হয় না। তখন লোকে ভাবে, ভালো করতে গিয়ে খারাপ হয়ে গেছে।

বুদ্ধিমান কর্মফল নিয়ে ভাবে না- সে সম্যক সময়ে সম্যক কর্ম করে। তার কর্মের যথার্থতা নিরূপিত হয় আনন্দ দ্বারা। ভালো ফলের প্রত্যাশা, ভয় ও অস্থিরতা থেকে সে মুক্ত। সে প্রতিটি কাজ করে মনোযোগের সঙ্গে। তাই কর্ম তার জন্য সুফল, সন্তুষ্টি ও প্রশান্তি নিয়ে আসে। প্রশ্ন হলো, ফলের প্রত্যাশা থেকে কি মুক্ত হওয়া যায়?

খাওয়ার সময় আমরা এমন আশা করি না যে, এই খাদ্য থেকে দেহে রক্ত, মাংস, শক্তি, বুদ্ধি উৎপন্ন হবে, কিন্তু তা হয়েই থাকে এবং এইসব ফল উৎপাদনের কর্তা আমরা নই। কেউ এমন দাবি করতে পারে না যে, সে খাদ্য থেকে বুদ্ধি উৎপন্ন করেছে। এই প্রকারে কর্ম সম্পাদন করাই হলো প্রত্যাশাহীন কর্ম। প্রত্যাশা বড়ই প্রবঞ্চক। প্রত্যাশা দূর করার প্রচেষ্টা আসে আরেকটি প্রত্যাশা থেকে। কর্ম সম্পাদনের মধ্যে যখন আনন্দ মিশ্রিত থাকে তখন এর থেকে অতিরিক্ত প্রাপ্তির প্রত্যাশা স্বয়ং থেকেই চলে যায়। তখন কর্ম যেমন উৎকৃষ্ট হয়, তেমনি প্রত্যাশা অনুপস্থিত থাকে। কর্মের মধ্যে তন্ময়তা থাকলে কর্মের সঙ্গে প্রেম মিশে যায়। যেখানে প্রেম যায়, সেখানে শক্তিও যায়। যেখানে প্রেম ও শক্তি যায় সেখানে নবসৃষ্টি অনিবার্য। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত