প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মহামারীর কারণে ২০২২ সালে বৈশ্বিক বেকারত্বের হার পৌঁছাবে ২০ কোটিতে

লিহান লিমা: [২] কোভিড মহামারী কর্তৃক সৃষ্ট অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের কারণে ২০২২ সালে বৈশ্বিক বেকারত্বের সংখ্যা ২০ কোটি ৫০ লাখে পৌঁছাতে পারে, যা ২০১৯ সালে ছিলো ১৮ কোটি ৭০ লাখ। মর্ডান ডিপ্লোমেসি

[৩] আইএলও জানায়, বেকারত্ব বৃদ্ধির ফলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবেন নারী ও তরুণ কর্মীরা। লকডাউনের কারণে নারীর ওপর গৃহস্থালি দায়িত্বের বোঝা আরো বেড়েছে। ২০২০ সালে নারীর কর্মসংস্থান ৫ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে, যেখানে পুরুষের হার ৩.৯ শতাংশ। অর্থনৈতিক মন্দার অন্যতম শিকার হয়েছে তরুণরা। ২০২০ সালে ৩.৭ শতাংশ অভিজ্ঞ বয়প্রাপ্তদের তুলনায় তরুণদের চাকরি হারানোর হার ৮.৭ শতাংশ। সবচেয়ে বেশি ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে মধ্য আয়ের দেশগুলোতে।

[৪] আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার নতুন প্রতিবেদনে বলা হয়, অনেক দেশ চলমান স্বাস্থ্য সংকট কাটিয়ে উঠলেও দারিদ্র দূরীকরণে বিশ্ব আরো ৫ বছর পিছিয়ে পড়েছে। আইএলওর নির্বাহী পরিচালক গাই রাইডার বলেন, ‘আমরা পিছিয়ে পড়েছি। দারিদ্র দূরীকরণে আমরা ২০১৫ সালের অবস্থায় ফিরে এসেছি। অর্থাৎ আমরা যখন ২০৩০ সালের স্থিতিশীল উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা গ্রহণ করেছিলাম আমরা এখনো সেই স্থানেই রয়েছে।’

[৫] ২০২১ সালের প্রথমার্ধে মহামারীতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ল্যাটিন আমেরিকা ও ক্যারিবিয়ান, ইউরোপ ও মধ্য এশিয়া। এই দেশগুলো অসম অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের শিকার হয়েছে। এই অঞ্চলের দেশগুলো প্রথম প্রান্তিকে মোট কর্মঘণ্টা ৮ শতাংশ ও দ্বিতীয় প্রান্তিকে ৬ শতাংশ হারিয়েছে, যা বৈশ্বিক গড় (৪.৮ শতাংশ ও ৪.৪ শতাংশ) থেকে অনেক বেশি।

[৬] মহামারীর ফলে সৃষ্ট অর্থনৈতিক ব্যাঘাত বিশ্বের অনানুষ্ঠানিক খাতের ২’শ কোটি কর্মীর জন্য ‘বিপর্যয়কর পরিণতি’ ডেকে এনেছে। ২০১৯ সালের তুলনায় আরো ১০ কোটি ৮০ লাখ মানুষ বিশ্বজুড়ে নতুন করে ‘চরম দারিদ্রের’ খাতায় নাম লিখিয়েছেন। অর্থাৎ তারা ও তাদের পরিবার দৈনিক ৩.২০ ডলারেরও কম আয়ে দিনতিপাত করেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত