প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বাঙালীর মুক্তির সনদের ঐতিহাসিক ৬ দফা দিবস সোমবার

সমীরণ রায়: [২] ৭ জুন ঐতিহাসিক ৬ দফা দিবস। ১৯৬৬ সালের এই দিনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষিত বাঙালি জাতির মুক্তির সনদ ৬ দফা দাবির পক্ষে দেশব্যাপী তীব্র গণআন্দোলনের সূচনা হয়। এই দিনে আওয়ামী লীগের ডাকা হরতালে টঙ্গি, ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জে তৎকালীন পুলিশ ও ইপিআর’র গুলিতে মনু মিয়া, শফিক ও শামসুল হকসহ ১০ জন বাঙালি শহীদ হন।

[৩] ৬ দফা দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

[৪] বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আপোষহীন সংগ্রামের ধারায় ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানের দিকে এগিয়ে যায় পরাধীন বাঙালি জাতি।

[৫] করোনা পরিস্থিতির কারণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী জনসমাগম পরিহার করে দিবসটি উদযাপন করা হবে। দলের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে-সোমবার সূর্য উদয় ক্ষণে বঙ্গবন্ধু ভবন, কেন্দ্রীয় কার্যালয় ও দেশব্যাপী আওয়ামী লীগ দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন। সকাল ৯টায় ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করবে। এছাড়া দিবসটি উপলক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের অংশ হিসেবে আলোচনায় বক্তব্য দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অনুষ্ঠানটি বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ বেসরকারি টেলিভিশন, অনলাইন ও সোশ্যাল মিডিয়ায় সন্ধ্যা ৭টা থেকে রাত ১০টার মধ্যে প্রচারিত হবে। দিবসটি উপলক্ষ্যে জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির পক্ষ থেকে প্রকাশিত ই-পোস্টারের শিরোনাম করা হয়েছে “৭ই জুন বাঙালির মুক্তির সনদ ঐতিহাসিক ৬ দফা দিবস: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা।

[৬] আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ৭ জুন ‘ঐতিহাসিক ৬-দফা দিবস’ উপলক্ষে এক বিবৃতিতে দল ও সহযোগী সংগঠনের সর্বস্তুরের নেতা-কর্মীদের যথাযথভাবে স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিধি মেনে ঐতিহাসিক ৭ই জুন উপলক্ষে গৃহীত কর্মসূচিতে অংশগ্রহণের অনুরোধ জানান তিনি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত