প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] চার দশকেও তৈরি হয়নি, বিদেশ ফেরত কর্মীদের ডাটাবেজ

মিনহাজুল আবেদীন: [২] দীর্ঘ সময়েও বিদেশ ফেরত বাংলাদেশি কর্মীদের কোনও ডাটাবেজ তৈরি করতে পারেনি সরকার। ডাটাবেজ না থাকায় করোনার মধ্যে বিদেশ ফেরত প্রবাসীদের জন্য দীর্ঘমেয়াদী কোনও সহায়তা কার্যক্রমও পরিচালনা করতে পারছে না প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়। অভিবাসন সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বিমান বন্দর কর্তৃপক্ষ ও ইমিগ্রেশন বিভাগের সমন্বয়ে সহজেই তৈরি করা যাবে এই ডাটাবেজ।

[৩] তথ্য মতে, মহামারির মধ্যে লকডাউনে যখন শিল্প কলকারখানার উৎপাদন বন্ধ, সেই দু:সময়েও রেকর্ড পরিমান রেমিটেন্স পাঠিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ বাড়িয়েছেন প্রবাসী কর্মীরা। অথচ মহামারিতে চাকরি হারিয়ে ফেরা বিশাল সংখ্যক প্রবাসী কর্মীর তালিকাই তৈরি করতে পারছে না প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়।

[৪] মঙ্গলবার ডিবিসি টিভির এক প্রতিবেদনে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব মনিরুছ সালেহীন বলেন, আমরা লোকজনকে যে সংখ্যায় সার্টিফিকেট দিতে চাই, একটা সার্টিফিকেট দিতে সরকারকে ভর্তুকি দিতে হয় দুই হাজার বা আড়াই হাজার টাকা। তারপরও আমরা দিতে চাচ্ছি। কিন্ত দেয়ার জন্য লোক নেই।

[৫] অভিবাসন বিশেষজ্ঞ শরিফুল হাসান বলেন, যারা বিদেশে কাজ করেন তাদের কাছে স্মার্ট কার্ড রয়েছে, কাজেই বিমান বন্দরে যদি এই কাজটা করা যায়, তবে কারা ফিরছেন, কতোদিনের জন্য ফিরছেন, কাজটা আরও সহজ হয়ে যাবে।

[৬] রামরু তাসনিম সিদ্দিকী বলেন, সিভিল এভিয়েশন এবং ইমিগ্রেশনের সহযোগীতার যারা দেশে ফিরছেন, সেখানে একটা অতিরিক্ত ফর্ম দিয়ে এই ডেটা আমরা তৈরি করি। কিন্তু আমরা এই কাজটার ব্যাপারে বেশি দূর এগুতে পারিনি। সম্পাদনা: মহসীন

 

 

সর্বাধিক পঠিত