প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আদিব মাহমুদ: কতিপয় ‘চারা’ নেতাদের জন্য কিছু অনন্য উদাহরণ!

আদিব মাহমুদ: এমন একজন প্রধানমন্ত্রী ছিলেন যিনি ১৯৬৫ সালে নিজের একটি ৪ চাকার গাড়ি ক্রয় করতে পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংক থেকে মাত্র ৫ হাজার টাকা ঋণ নিয়েছিলেন। কিন্তু দুর্ভাগ্য, জীবদ্দশায় সেই ঋণের একটি কিস্তিও তিনি জমা করতে পারেননি । ১৯৬৬ সালে তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুর পর ব্যাংক কর্তৃপক্ষ তার বাড়িতে নোটিশ পাঠান। নোটিশ পেয়ে তার স্ত্রী নিজের পেনশনের টাকা থেকে ওই ঋণের সকল কিস্তি জমা করেন। যার কথা বলছি তিনি আর কেউ নন, তিনি লাল বাহাদুর শাস্ত্রী। তার সহধর্মিণী ললিতা শাস্ত্রীও ঠিক তারই মতো সৎ স্বভাবী ছিলেন এবং সারা জীবন একজন প্রকৃত জীবনসঙ্গীর মতোই পাশে ছিলেন। শাস্ত্রীর ওই ৪ চাকার গাড়িটি আজও রয়েছে জনপথের আবাসে (বর্তমানে সংগ্রহশালা)! এবার এখানে একটু থামুন, আর ভাবুন কিছু এমন লোকের কথা যারা ব্যাংকের ঋণের কোটি কোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা। এমন আর একটি ঘটনার কথা আজ বলা খুব দরকার। ১৯৬২ সালের কথা, সেসময় শাস্ত্রীজি অখিল ভারতীয় কংগ্রেস কমিটির মহাসচিব। তখন প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরু। তার কোনো এক কাজের দরুন কাশ্মীর যাওয়ার দরকার ছিলো।

নেহরু তাকে কাশ্মীর যেতে লাগাতার অনুরোধ করলেও তিনি বার বার যেতে অস্বীকার করেন। পণ্ডিত নেহরুও হতচকিত। কেন তিনি যেতে রাজি হচ্ছেন না। রীতিমতো অবাক পণ্ডিত নেহরু। পণ্ডিত নেহরু কিন্তু তাকে অত্যন্ত শ্রদ্ধা ও ভালোবাসেন। তখন নেহরু তাকে কাশ্মীর না যাওয়ার কারণ জিজ্ঞাসা করেন। প্রথমে তো উত্তর দিতেই নারাজ। শুধু একটাই কথা আমি যাবো না। কিন্তু বহুবার অনুরোধ করার পর তিনি যে উত্তর দিলেন তাতে নেহরুর চোখে জল চলে আসে। শাস্ত্রী বললেন, কাশ্মীরে খুব ঠাণ্ডা পড়ছে। আর তার কাছে গরম পোশাক-আশাক নেই। পণ্ডিত নেহরু অত্যন্ত ভাবুক হয়ে পড়েন এবং নিজের একখানা গরম বস্ত্র তাকে দেন। পণ্ডিত নেহরুও এই কথাটি আর কাউকে বলেননি। এই লাল বাহাদুর শাস্ত্রী যখন প্রধানমন্ত্রী হন তখন সেদিনের নেহরুর দেওয়া ওই কোটটি পরিধান করেই শপথ নেন। এই একটি কোট দুই প্রধানমন্ত্রী ব্যবহার করেছিলেন। এবার এখানে আবারও একটু থামুন এবং ভাবুন- আজকের নেতারা দশ লাখের স্যুট পরিধান করে নিজে কে বিশ্বের শ্রেষ্ঠ গরিব বলে দাবি করেন। কতো বাহুল্য, কতো রঙ্গ, কতো বিলাসিতা! ফেসবুক থেকে

সর্বাধিক পঠিত