প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নেইলসন সমীক্ষা: ‘বাসায় থেকে অফিস’ যৌনতা ডেটিং হালকা ঘুম হৈ চৈ, সবই চলছে

রাশিদ রিয়াজ : মার্কিন নাগরিকরা কাজের সময় প্রচুর খাবার খায়, পান করে, ধূমপান করে, ভিডিও গেম গেলে এবং পর্ণ দেখে যখন তারা কোয়ারেন্টাইনে ছিল তখনো। কোভিড মহামারী শুরু হবার পর বাসা থেকে অফিসের কাজের সংস্কৃতি চালু হয়েছে কমবেশি সব দেশেই। বিষয়টি নিয়ে কম বিতর্ক হয়নি। কেউ কেউ বলছেন বাসা থেকে কাজের সময় নিজের যত্নের দিকে বেশ ভালই মনোযোগ দেওয়া যায়। আবার অন্যরা বলছেন তাড়াহুড়ো করে পর্ণ দেখার মানসিকতা না থাকলে আপনি বাসায় কাজের সময় খুব ভোরে উঠতে পারেন, কাজ শুরু করতে পারেন, নতুন ভাষা শেখার পাশাপাশি দিনে ১০টি বই পড়তে পারেন। তারা নিরপেক্ষভাবে বাড়িতে কঠোর পরিশ্রম করছে নাকি বহির্মুখী ক্রিয়াকলাপে নিযুক্ত ছিল এ নিয়ে গবেষণা শুরু হয়। গবেষণায় দেখা গেছে মার্কিন নাগরিকরা প্রচুর মদ গিলেছেন, গাজা টেনেছেন, ভিডিও গেম খেলেছেন, জাঙ্ক ফুড খেয়েছেন এবং টেলিভিশন, নেটফ্লিক্স ও পর্ণ দেখেছেন। ফোর্বস

প্রায় ১শ বছর ধরে বাজার গবেষণা ও রেটিং করছে নেইলসন করপোরেশন। তাদের এ গবেষণা দেখা গেছে কোভিডে মহামারীতে এ্যালকোহল বিক্রি ৫৫ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। গতবছর ২১ মার্চের সঙ্গে এর আগের বছরের মার্চের তুলনায় ট্যাকুলা, জিন, ককটেল বিক্রি বেড়েছে ৭৫ শতাংশ। মদ বিক্রি ৬৬, বিয়ার ৪২ ও অনলাইনে এ্যালকোহল বিক্রি বৃদ্ধি পায় ২৪৩ শতাংশ। যুক্তরাষ্ট্রের যেসব প্রদেশে গাজা বৈধ সেসব স্থানে তা প্রচুর বিক্রি হয়েছে। গত মার্চে ইলিনয়সে গাজা বিক্রি হয়েছে ৩৬ মিলিয়ন ডলার। দিনে ১২ কোটি মানুষ পর্ণহাব দেখেছে এবং লকডাউনে এ পর্ণ অনলাইনটির দর্শক বৃদ্ধি পেয়েছে ১১.৬ শতাংশ।
এনবিসি নিউজ তখন এক প্রতিবেদনে জানায় বেশিরভাগ মার্কিন নাগরিক কোয়ারেন্টাইনের পর নিজেদের কম স্বাস্থ্যবান হিসেবে ফিরে পাবে। ব্লুমবার্গের এক প্রতিবেদনে তখন বলা হয় অধিকাংশ মার্কিনীরা ক্যানের মাংস, স্যুপ, ম্যাকর্নি ও পনীর খেতে অভ্যস্ত হয়ে পড়েছে। এবং জরিপে দেখা যায় তাদের মধ্যে পটাটো চিপস, অরেয়স, স্পাম, বার্গার ও প্রেটজেলস ও আরামদায়ক খাবার খাওয়া বেড়ে গেছে। তাদের ওজন স্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। একই বছর মধ্য মার্চ নাগাদ মার্কিন ভোক্তারা ১৫৬.১ বিলিয়ন মিনিট কম্পিউটারে কনটেইন দেখেছেন। যা এর আগের বছরের তুলনায় দ্বিগুণ ছিল। এর প্রায় ৩০ শতাংশ স্ট্রিম ছিল নেটফ্লিক্স প্রোগ্রামিংয়ে টাইগার কিংক দেখতে আর বাকি ২০ শতাং দেখেছে ইউটিউব।

সর্বশেষ জরিপে দেখা গেছে বাসা থেকে কাজের সময় ৪২ শতাংশ ডেট করেছেন, ৪১ শতাংশ যৌনতায় লিপ্ত হয়েছেন, প্রায় অর্ধেক বলছেন তারা এ্যালকোহল পান করেছেন, ৬০ শতাংশ ক্ষণিকের বিরতি নিয়ে ঘুমিয়েছেন, ৭৭ শতাংশ বলেছেন সপ্তাহে অন্তত একদিন তারা অনলাইনে শপিং করেছেন। ৫০ শতাংশ স্বীকার করেছেন তারা অফিসে কাজের সময় অন্য কোম্পানিতে কাজও করেছেন। প্রতি ৫ জনের মধ্যে ১ জন অর্থাৎ ৪৪ শতাংশ লোকবলকে অফিসের কাজ থেকে অনুপস্থিত থাকায় সতকৃ করে দেওয়া হয়েছে এবং ৩৯ জনকে অফিসের কাছ ছাড়া ভিন্ন কাজে ব্যস্ত থাকায় কর্মচ্যুত করা হয়েছে। ৭৬ শতাংশ বলছেন তারা বাসায় কাজ করার সময় ৪ ঘন্টার বেশি কম্পিউটার ব্যবহার করেছেন। ৪০ শতাংশ বলছেন অন্তত ৪ ঘন্টা তারা কম্পিউটারের সামনে ব্যয় করেন। তবে কোভিড মহামারীতে অসংখ্য মানুষের মৃত্যুরপরও মানুষ বাসা থেকে অফিসের কাজ করার পাশাপাশি ভবিষ্যতে ফের স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যাওয়ার বিষয়টি উপলব্ধি করবে এবং এভাবে চাকিরি ও ক্যারিয়ারের সন্ধানের মধ্যে দিয়ে সময়টি উত্তেজনা, আশাবাদ এবং পরিবর্তনের সময় হিসেবে একসময় স্মৃতি চারণের অংশ হয়ে দাঁড়াবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত