প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] রাজশাহীতে আমের বাজারে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছে ক্রেতা-বিক্রেতা

আবু হাসাদ: [২] রাজশাহীর সর্ববৃহৎ পুঠিয়া-বানেশ্বর-বিড়ালদহ আম মোকামে প্রতিদিনই বাড়ছে জনসমাগম। তবে মোকামে আসা বেশির ভাগ ক্রেতা-বিক্রেতারা সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিধি নিষেধ মানছেন না।

[৩] স্থানীয়রা বলছেন, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের তদারকি না থাকায় আগতদের মধ্যে করোনা সংক্রামণ বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।রোববার সকাল সাড়ে ১০টায় বানেশ্বর ঘুরে দেখা গেছে, ট্রাফিক মোড় এলাকায় শত শত লোকজন অবাধ চলাচল করছেন। এদের মধ্যে বেশির ভাগ চারঘাট, বাঘা ও দুর্গাপুর উপজেলার। তারা বানেশ্বর থেকে বিভিন্ন গন্তব্য স্থানে যাতায়াতের জন্য এসেছেন। অপরদিকে আমের বাজারে আগত অধিকাংশ লোকজন স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও সামাজিক দূরত্ব মানছেন না।

[৪] বানেশ্বর হাট ইজারদার ওসমান আলী বলেন, সকাল থেকে রাত পর্যন্ত বাজারে লোকসমাগম থাকে। তবে আমের মৌসুম শুরু হওয়ায় লোকজন একটু বেশি হচ্ছে। তবে হাট কমিটির পক্ষ থেকে মাঝে মধ্যে বাজারে আসা সকলকে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে বলা হচ্ছে। কিন্তু ক্রেতা বিক্রেতারা সচেতন হচ্ছে না।গতকালও উপজেলা প্রশাসন বাজারে এসে সকলকে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে দীর্ঘ সময় প্রচারণা চালিয়েছেন।

[৫] আমাদের প্রচারণাও সব সময় চালানো হবে। ক্রেতা বিক্রেতাদের মাঝে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত না করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমাদের লোকজন সব সময় তদারকি করছেন। তবে অল্প জায়গায় লোকজন বেশি হওয়ায় কিছুটা সমস্যার মধ্যে আমরাও থাকি।বানেশ্বর এলাকার মনিরুল ইসলাম নামের একজন স্কুল শিক্ষক বলেন, বানেশ্বর বাজার জুড়ে প্রতিদিন কয়েক হাজার লোকসমাগম ঘটে।

[৬] এদের মধ্যে অধিকাংশ লোকজন কোনো রকম স্বাস্থ্য বিধি মানছে না। বর্তমানে রাজশাহী বিভাগের মধ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জ করোনার হটস্পট এর পাশাপাশি রাজশাহী চরম ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। এই বাজারে অবাধ চলাচল বন্ধ করতে না পারলে পরিস্থিতি ভয়ঙ্কর হতে পারে।আমজাদ হোসেন নামের একজন আম ব্যবসায়ী বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে বানেশ্বর-বিড়ালদহ আম বাজারে কর্তৃপক্ষ বা প্রশাসন কোনো প্রকার তদারকি করছেন না।

[৭] দুই একদিন পর তারা বাজারে এসে দুই একটি কথা বলে ফটো তুলেই তাদের দ্বায়িত্ব শেষ করছেন। সেই সাথে হাটে আগত ক্রেতা-বিক্রেতাদের মধ্যে কোনো শৃঙ্খলা নেই। যে যার ইচ্ছেমত চলছে। কারো মধ্যেই কোনো স্বাস্থ্য সচেতনা নেই। বানেশ্বর বাজারে আসা আম বিক্রেতা আউব আলী বলেন, বাজারে সকলের কাছে মাস্ক রয়েছে।

[৮] কেবল ইউএনও বা পুলিশ আসলেই সবাই ব্যবহার করেন।এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুরুল হাই মোহাস্মদ আনাছ বলেন, বানেশ্বর বাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় সার্বক্ষণিক স্বাস্থ্য বিধি বিষয়ে প্রচারণা চলছে। সেই সাথে বিধি নিষেধ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। প্রতিদিন আমাদের এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত