প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জয় প্রকাশ: বৃদ্ধ মা-বাবাকে সন্তানের মতো দেখভাল করতে হয়

জয় প্রকাশ: [১] মায়ের শরীর ভালো নেই। কাল রাত থেকেই জ্বর, শরীর ব্যথা। বিশেষ করে বাম কানের আশপাশে খুব ব্যথা। চিকিৎসক ধারণা করছেন কানের ভেতরে সংক্রমণ হয়েছে। সেই অনুযায়ী চিকিৎসা শুরু হয়েছে। মা আমার সারাক্ষণ কাজে ব্যস্ত থাকার মানুষ। তিনি যখন দীর্ঘ সময় ধরে শুয়ে থাকেন, তখন বুঝতে হয় শরীর তার বেশ খারাপ। জ্বর ১০২ এর নীচে নামছে না। খাওয়াতেও অরুচি। ধমক দিয়েই খাওয়াতে হচ্ছে। মাঝে মধ্যে সারা শরীর মাসাজ করে দিচ্ছি। তাতে কিছুটা স্বস্তি পাচ্ছেন। কিন্তু তখনই শুরু হচ্ছে সব কিছু নিয়ে তার দুশ্চিন্তা। বাসার কাজ কে করবে, কোন কাজ বাকী রয়ে গেলো, কোন বাজার নেই, কোন বেলায় কী রান্না হবে। সেই সঙ্গে আছে ছেলে মেয়ে কেউ বিয়ে করলো না, কার ভবিষ্যৎ কীভাবে কাটবে? ময়মনসিংহে বাসার কী অবস্থা? পাশের ফ্ল্যাটের একজন কক্সবাজারে যাবেন, কর্মস্থলে, তিনি চলে গেলেন কিনা, তার শরীর নাকি ভালো না, ঠিকঠাক মতো যেতে পারলেন কিনা? আমার ছোট ভাই বাচ্চাদের নিয়ে আমার বাসায় আসার কথা, তাদের কল করে বলতে হবে যেন না আসে, কেননা আসলে তো মা তাদের জন্য কিছুই করতে পারবেন না। মা এমন হাজার কথা বলে যান, আমি মাসাজ করি আর শুনি। বোঝার চেষ্টা করি আমাদের মায়েদের মনস্তত্ত্ব। মনে হয়, আমাদের চিরন্তন ঘরানার মায়েরা আসলে মানুষ না, চ্যারিটি হোম।

[২] মাসাজ করতে গিয়ে টের পাই, মায়ের শরীর কতোটা বার্ধক্যের ছোঁয়া পেয়েছে। যে শক্ত হাতে সংসার সামলেছেন, সেই হাতের পেশি দুর্বল হয়েছে। শরীরে ভাঙন ধরেছে। কাল রাতভর বসে ছিলাম, মাঝে মাঝে তাকিয়ে দেখছিলাম মায়ের মুখ, অনেকটাই শুকিয়েছে। টের পাই, প্রবল ঝড়ের মাঝে আশ্রয় দেয়া বৃক্ষের জীবনচক্রে এখন ভাটার টান। সেই আগের মতোই দাঁড়িয়ে থাকার চেষ্টাটা আছে, সন্তান আর চারপাশকে আগলে রাখার মানসিকতা এখনো প্রবল, কিন্তু বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছে প্রকৃতির অলঙ্ঘনীয় নিয়ম, বার্ধক্য। আর এই অতিমারির সময়ের নানা সংকট যোগ করেছে বাড়তি অনিশ্চয়তা। [৩] বৃদ্ধ মা-বাবাকে সন্তানের মতো দেখভাল করতে হয়। তারা যখন বৃদ্ধ হন, তখন তাদের মন একই সঙ্গে অভিজ্ঞতার পুষ্টি ও ক্লান্তি ধারণ করে। তাই সেই ক্লান্তি যেন পেয়ে না বসে, তা খেয়াল রাখতে হবে  সন্তানকে। একই সময়ে আরেকটা বিষয় ঘটে, বৃদ্ধ  মা বাবার মনস্তাত্ত্বিক গঠনে শিশুসুলভ প্রবণতার বিকাশ ঘটে। এটা আমরা একদমই ইগনোর করি। যা করা উচিত নয়। সব সন্তানকেই মনে রাখা উচিত, তাদের বৃদ্ধ মা-বাবা আসলে তাদের সন্তান। ফেসবুক থেকে

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত